খালেদা জিয়ার অসুস্থতা ও বিদেশ পাঠানোর খবরে সরকারের ভূমিকায় ষড়যন্ত্র দেখছে বিএনপি!

0
345

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার অসুস্থতা ও বিদেশ পাঠানোর খবরে আওয়ামী লীগ নেতাদের বক্তব্যে ষড়যন্ত্রের গন্ধ দেখছেন দলটির নেতারা। তারা মনে করছেন চিকিৎসার নামে খালেদা জিয়াকে বিদেশ পাঠানোর পায়তারা করা হচ্ছে। অসুস্থতার খবর, দলের মহাসচিবের সাক্ষাৎ করতে না দেওয়া এবং সিভিল সার্জনকে কারাগারে পাঠানোর বিষয়টিকে স্বাভাবিকভাবে নিতে পারছে না বিএনপি।

এরমাধ্যমে সরকার মাইনাস ওয়ান ফর্মুলা বাস্তবায়নের চেষ্টা করছে বলে মনে করেন দলটির নীতিনির্ধারকরা। এই অবস্থার মধ্যে জামিন আবেদনের শুনানি এগিয়ে আনতে রোববার আপিল বিভাগে যাচ্ছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা।

এদিকে খালেদা জিয়া সুস্থ না অসুস্থ, তাকে বিদেশে চিকিৎসরা জন্য পাঠানো হবে না দেশে রেখেই চিকিৎসা দেওয়া হবে এসব প্রশ্নের উত্তরে আওয়ামী লীগ বলছে, চিকিৎসকেরা পরামর্শ দিলে খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠানো হবে আর বিএনপির দাবি, ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের দিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে হবে। দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি কথা বার্তায় খালেদা জিয়ার অসুস্থতা ও বিদেশ পাঠানো নিয়ে এক ধরনের ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে।

তবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে বিএনপি মিথ্যাচার করছে। তিনি বলেন, কারাগারে গিয়ে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা দেখে ঢাকার সিভিল সার্জনও জানিয়েছেন তার শারীরিক অবস্থা আগের মতোই রয়েছে। এরআগে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা বিষয়ে তিনি বলেন, দেশে চিকিৎসা করার মতো অবস্থা যদি না থাকে, তবে ডাক্তাররাই পরামর্শ দেবেন তার জন্য কী করতে হবে। প্রয়োজন আইন অনুযায়ী খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে। চিকিৎসকেরা পরামর্শ দিলে তাঁকে বিদেশে পাঠানো হবে।

বিএনপির নেতারা বলছেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা আসলে কী, তা বিএনপির কাছে এখনো পরিষ্কার নয়। নানা কথাবার্তায় তাদের সন্দেহ হচ্ছে। অতি দ্রুত ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের দিয়ে কারাগারে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা এবং তাকে মুক্তি দিয়ে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছে বিএনপি।

এ পরিস্থিতিতে রোববার খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা তার মুক্তির দাবি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার কথা বলছেন। যাতে তিনি অসুস্থ হলে দ্রুত উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করা যায়।

খালেদা জিয়ার একান্ত সচিব আবদুস সাত্তার বলেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে আমরা পুরোপুরি অন্ধকারে আছি। প্রকৃত অবস্থা কিছুই আমরা জানি না। আদালতে হাজিরার দিনে তাকে হাজির না করে কারা কর্তৃপক্ষ অসুস্থতার কথা জানায়। এরপর ম্যাডামের চার জন ব্যক্তিগত চিকিৎসক প্রয়োজনীয় নিয়মরীতি মেনে তার সঙ্গে সাক্ষাতের চেষ্টা করেছেন। কিন্তু তারা এখনও সাক্ষাৎ করতে পারেননি।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রহুল কবির রিজভী বলেছেন, খালেদা জিয়া বিদেশ যেতে চেয়েছেন এ নিয়ে কোনো ধরনের গুঞ্জনে কান না দিতে। গুঞ্জন পরিবেশ নষ্ট করে বলে মনে করেন তিনি। তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্য বিকৃত করা হয়েছে। তবে আমরা ম্যাডামের অসুস্থতার খবরে অত্যন্ত উদ্বিগ্ন। তার চিকিৎসা নিয়ে আমাদের মধ্যে উদ্বেগ রয়েছে। সরকার সঠিক তথ্য দিচ্ছে না। এমনকি ম্যাডামের ব্যক্তিগত চিকিৎসকদেরকেও তার সঙ্গে দেখার করার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না।

খালেদা জিয়ার চিকিৎসা না বিদেশ যাত্রা এই বির্তকের সূত্রপাত ঘটে গত শুক্রবার বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সংবাদ সম্মেলনে দেওয়া বক্তব্যকে কেন্দ্র করে। ওই সংবাদ সম্মেলনে খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে দিতে দাবি তোলেন তিনি। এর কিছুক্ষণ পরই সাংবাদিকদেরকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, অসুস্থ হলে খালেদা জিয়াকে প্রয়োজনে বিদেশে চিকিৎসা করানো হবে। এরপরই গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বিদেশে চলে যাচ্ছেন কি না।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা সুনির্দিষ্টভাবে বলেছি আমরা এখন তার নিঃশর্ত মুক্তি চাই, যাতে তার উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা দেশে হোক বিদেশে হোক আমরা করতে পারি। যেহেতু খালেদা জিয়া এর আগে দেশের বাইরেও চিকিৎসা করিয়েছেন, সেহেতু মুক্তি পেলে তিনিই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের অবিলম্বে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য যেতে দেওয়া ও তাদের সুপারিশ অনুযায়ী পরবর্তী চিকিৎসার ব্যবস্থা করা। এজন্য সর্বোত্তম ব্যবস্থা হচ্ছে, অবিলম্বে তার প্রাপ্য জামিনে মুক্তি দিয়ে চিকিৎসার জন্য তাকে বাইরে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, তার অসুস্থতার খবরে আমরা উদ্বিগ্ন। কারা কর্তৃপক্ষ বলছে না, তিনি কতটা অসুস্থ। সরকারও এ বিষয়ে স্পষ্ট কোনো কিছু জানাচ্ছে না। তার অসুস্থতার বিষয়ে কিছু জানানো হচ্ছে না। আমরা অসুস্থ খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানি এগিয়ে আনার চেষ্টা করব। রোববার আমরা আপিল বিভাগে যাবো। চেষ্টা করব বেগম খালেদা জিয়ার জামিন কারানোর জন্য।আস

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here