সব মিলিয়ে দেশের অবস্থা নিঃসন্দেহে ভয়াবহঃ ড. শাহদীন মালিক

0
197

দেশে ন্যূনতম সুরক্ষা নেই মন্তব্য ক‌রে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী শাহদীন মালিক বলেছেন, ‘বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ও জবাবদিহি না থাকাই অকার্যকর রাষ্ট‌ে পরি‌ণত হওয়ার বড় লক্ষণ। সব মিলিয়ে দেশের অবস্থা নিঃসন্দেহে ভয়াবহ।’

শনিবার (৩ আগস্ট) জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে মৌলিক অধিকার সুরক্ষা কমিটির উদ্যোগে ‘নির্যাতনবিরোধী জাতিসংঘ সনদের বাস্তবায়ন পর্যালোচনা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

শাহদীন মালিক বলেন, ‘দেশের জবাবদিহিতা না থাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ধরে নিয়ে যাচ্ছে। নির্যাতন করছে। দীর্ঘ সময় আটক করে রাখছে। এটা কোন ধরনের আইনের মধ্যে পড়ে জানা নাই।’

‌তি‌নি ব‌লেন, ‘দেশে গুম হচ্ছে, খুন হচ্ছে, এসব বিচারের পরিপন্থী। এগুলো ন্যূনতম আইনি পর্যায়ে পড়ে না। যারা এসব করে মনে করে নির্যাতন করে, খুন করে, আটকে রেখে দেশের জন্য ভালো করছি, তারা মোটেও ভালো চিন্তা করছে না। তারা দেশের জন্য ভালো কোনও চিন্তা করছে না। দেশটা আরও ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।’

সুরক্ষা কমিটির এই সদস্যের দাবি, ‘সব মিলিয়ে দেশের অবস্থা নিঃসন্দেহে ভয়াবহ। একটি দেশ অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত হওয়ার আগে এমন পরিস্থিতিই থাকে। জনগণকে মানবাধিকারসহ গুম নির্যাতন বিচার বর্হিভূত হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে দেশের ভেতরে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’ তা না হলে দেশে একটা অকার্যকর রাষ্ট্রের দিকে এগিয়ে গেলে কেউ রুখে দিতে পারবে না বলে সর্তক করে দেন তিনি।

আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বলেন, ‘নির্যাতন বন্ধে প্রতিরোধ ব্যবস্থা নেই, প্রতিকারেরও কোনো উপায় নেই। তাই পুলিশ হেফাজতে নির্যাতন বন্ধ হচ্ছে না। আইনে না থাকলেও বাস্তবে গুম হচ্ছে। আবার নির্যাতন বন্ধে আইন আছে অনেক কিন্তু বাস্তবায়ন শূন্য।’

অনুষ্ঠানে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মানবাধিকারকর্মী সারা হোসেন। তিনি বলেন, ‘জেনেভায় দেয়া সরকারের প্রতিবেদনে অনেক বিষয় এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে।’

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ‘সরকারি প্রতিনিধিদল কমিটির বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে সংবিধান ও বিদ্যমান আইনের আলোকে নির্যাতন এবং অন্যান্য নিষ্ঠুর, অমানবিক এবং অমর্যাদাকর আচরণ প্রতিরোধে বিষয়ে উল্লেখ করলেও নির্যাতন, গুম, বিচারবহির্ভূত হত্যা ও অন্যান্য সংগঠিত অপরাধের ব্যাপারে কোনো বাস্তব পদক্ষেপ না নেয়ার এবং দু–একটা ঘটনা ছাড়া অপরাধীদের বিচারে সোপর্দ না করার বাস্তবতাকে আড়াল করতে সচেষ্ট ছিল।’

সুরক্ষা কমিটি মনে করছে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিরাট অংশ, ক্ষমতাসীনদের বহুলাংশ এবং স্বার্থান্বেষী বিভিন্ন মহল আইন ও বিচারের ঊর্ধ্বে। অনেক প্রশ্নের যথাযথ উত্তর না পাওয়ার বিষয়টি জাতিসংঘের নির্যাতনবিরোধী কমিটির সমাপনী পর্যবেক্ষণেও উল্লেখ করা হয়েছে।

উৎসঃ ব্রেকিংনিউজ

আরও পড়ুনঃ সরকারের চেয়ে শেখ হাসিনার অবস্থা ভয়াবহ: গয়েশ্বর চন্দ্র রায়


সরকারের চেয়ে শেখ হাসিনার অবস্থা ভয়া*হ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয় মানবাধিকার আন্দোলন আয়োজিত এক জাতীয় সেমিনারে যোগ দিয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।

শনিবার (৩ আগস্ট) জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘মানবাধিকার ও আইনের শাসনের চরম অবনতি: কোন পথে বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘বর্তমান সরকার সবচেয়ে বেশি দূর্বল। আর সরকার কোনও ভালো অবস্থানে নেই। আরেক জন চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে গিয়েছেন, এদিকে দেশের অবস্থা ভয়া*হ। কিন্তু তার চেয়ে মনে হয় শেখ হাসিনার অবস্থা ভয়া*হ। তা না হলে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে খুব তাড়াতাড়ি চিকিৎসা বন্ধ করে তিনি আসতে পারতেন’।

বিএনপির এই নীতিনির্ধারক বলেন, ‘দেশের মানুষ বন্যায় ভাসছে কিন্তু তিনি আসতে পারছেন না। তাহলে তিনি কঠিন অবস্থার মধ্যে আছেন। এর কারণে পুরোপুরি নিশ্চিত না হয়ে তিনি আসতে পারছেন না। শোনা যাচ্ছে, নানা রকম সমস্যা। আর চোখের আলোটা আমাদের প্রধানমন্ত্রীর বেশি জরুরি। তাহলেইতো মানুষের চোখের দিকে তাকালে তাদের চোখের ভাষাটা কি, তা বুঝতে পারবেন।

তবে আমরা চাই, আল্লাহ উনার চোখ ভালো করুক। আল্লাহ তার চোখ, শরীর ও ভাবনাটা সুস্থ করুক। আর আল্লাহ যেনো উনাকে মানুষকে ভালোবাসার তৌফিক দেন। কারণ আমরা কোনও মানুষের অমঙ্গল কামনা করি না।

গয়েশ্বর আরও বলেন, রাজনৈতিক নেত্রীর মুক্তি হয় রাজনৈতিক আন্দোলনের মাধ্যমে। কিন্তু আমাদের নেত্রী (বিএনপি চেয়ারপারসন খালোদা জিয়া) জেলখানায় যাওয়ার পরে আমরা এমন কোনও আন্দোলন করতে পারি নাই যে সরকার তাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হবে। আর আন্দোলনের কোনও আওয়াজও আমরা আদালতে দিতে পারিনি। আর বেগম জিয়াকে মুক্তি না দিলে জজদের ওপরে জনগণ ক্ষুব্ধ হবে। এই বার্তাও আমরা দেই নাই।

এ সময় গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ঢাকার দুই সিটি করপোরেশর দুর্নীতির আড্ডাখানা।

তিনি বলেন, গণপি*নির আড়ালে অন্য কোনও উদ্দেশ্য আছে কি না? সে বিষয়টি সামনে আনতে হবে। সরকারের মন্ত্রীরা বলছেন, এর সঙ্গে বিরোধী দলের হাত আছে। তার মানে কি? তার মানে, দেশকে চরম একটা অবস্থানের মধ্যে ফেলে দেয়া এবং কোনও একটা সময়ে তারা নিজেরাই দেশ ছেড়ে কেটে পড়ে কি না।

সেমিনারে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মাদ রহমাতুল্লাহ, রবিউল আলম, কৃষকদলের আহ্বয়ক কমিটির সদস্য লায়ন মিয়া মোহাম্মাদ আনোয়ার, কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ বক্তব্য দেন।

উৎসঃ ব্রেকিংনিউজ

আরও পড়ুনঃ বাংলাদেশে এক স্বৈরাচারের বিদায়, গদিতে বসা আরেক স্বৈরাচারের


শেখ হাসিনা যেভাবে দেশ চালাচ্ছেন তা স্বৈরতান্ত্রিক রাজনীতির শাসন ছাড়া আর কিছুনা। এমন স্বৈরতান্ত্রিক চিন্তা এরশাদের মাথাতেও আসেনি।বাংলাদেশে একনায়কের বিদায় হয়েছে। আর সে বিদায়ের পর ক্ষমতার গদি আঁকড়ে আছে আরেক একনায়ক।

এশিয়ান টাইমসে প্রকাশিত এক সম্পাদকীয়তে বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি আর হালচাল নিয়ে এমনি সোজাসাপ্টা অভিমত ব্যক্ত করেছেন জন কনারস। “এস বাংলাদেশ বুরাইজ ওয়ান ডিকটেটর, এনাদর হোল্ডস ফার্ম,” শিরোনামের এই সম্পাদকীয়টি প্রকাশিত হয় ৩১ জুলাই। জাস্ট নিউজ পাঠকদের জন্য তার ভাবানুবাদ প্রকাশ করা হলো:

১৯৮০ পরবর্তী দশকে যে জেনারেল এরশাদ বাংলাদেশ শাসন করেছেন গত ১৪ জুলাই তিনি ইন্তিকাল করেছেন। তার মৃত্যুর মধ্য দিয়ে বিরক্তিকর একটি অধ্যায়ের সমাপ্তি ঘটেছে। সদ্য যৌবনে পা রাখা দেশটির সবচাইতে বিতর্কিত শাসনামল ছিলো সেটা। বাংলাদেশিরা তার বিদায়ে পেছন ফিরে তাকালে দেখতে পাবে কীভাবে একজন স্বৈরশাসন চালিয়েছিলো আর পরবর্তীতে কীভাবে সে রাজনীতির ছায়ায় পালিত হলো। এরশাদের এই রাজনৈতিক প্রভাবকে আজো খেলো হিসাবেই দেখা হয়।

বাংলাদেশের রাজনীতির হিসেব-নিকেশে একমাত্র স্বৈরশাসকে হিসেবে যাকে দেখা হয় তিনি হলেন এরশাদ।

অতীতের যারা সাক্ষী তারা ১৯৮২ সালে সাবেক এই ক্ষমতাধর শাসকের (এরশাদ) মার্শাল ল জারিকে উঠতি বাংলাদেশের গণতন্ত্র ধ্বংসের নকশা মনে করেন। তরুণ বাংলাদেশিরা তাকে শুধুমাত্র একজন সুবিধাবাদী হিসেবেই চিনে। অধিকন্তু এরশাদ ছিলেন স্বৈরশাসক, স্বৈরতন্ত্রকে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

এরশাদকে আমরা যেভাবেই স্মরণ করিনা কেন বাংলাদেশের সমসাময়িক রাজনীতির হিসেবে তাকে কিছুতেই অবজ্ঞা করার সুযোগ নেই। অন্ততপক্ষে তিনি ক্ষমতাসীন শেখ হাসিনাকে যেভাবে সমর্থন যুগিয়েছেন সেটার জন্য হলেও তাকে মনে রাখতে হয়। ১৯৭৫ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত একের পর এক যতো সামরিক অভ্যুত্থান ঘটেছে তাতে এরশাদের কল-কাঠি নাড়ায় শেখ হাসিনা এবং তার দল আওয়ামী লীগ উপকৃত হয়েছে। সেই ফলের ধারাবাহিকতায় ২০০৮ সালে দলটি ভালো একটা বিজয় পেয়েছে!

১৯৭১ সালের স্বাধীনতা অর্জনের পর বাইরের দিক থেকে সবার প্রত্যাশা ছিলো বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক উপায় এবং পন্থাগুলো বিকশিত হবে। দেশ স্থিতিশীল হবে। বাস্তবতা হচ্ছে, হাসিনা যেভাবে দেশ পরিচালনা করে যাচ্ছেন তা স্বৈরতান্ত্রিক রাজনীতির বাস্তবায়ন। এরকম স্বৈরতান্ত্রিক রাজনীতি এরশাদের মাথাতেও আসেনি।

প্রধান সব বিরোধীদলগুলো ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচন বয়কট করেছিলো। ২০১৮ সালেও স্পষ্টত অস্বচ্ছ নির্বাচন হয়েছে যেটাকে নিউইয়র্ক টাইমস বলেছে “প্রহসন”।

ক্ষমতায় ঠিকে থাকার জন্য হাসিনাকে কোনো অভ্যুত্থান করতে হয়না। কিন্তু বিরোধীদলকে শেষ করে দেবার যে নির্ভার পন্থা তিনি বেছে নিয়েছেন তাতে করে বাংলাদেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র বিকাশের আশা অংকুরে মরে যাচ্ছে। ২০১৮ সালের ভোটে অংশ নিয়েছিলো বিএনপি। কিন্তু মিথ্যা অভিযোগে দলটির হাজারো নেতা-কর্মী আর নির্বাচনী প্রার্থীকে গ্রেফতারের মুখোমুখি হতে হয়। ভোটের দিনেও ৪০ এর বেশী প্রার্থী নিজেদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছিলো।

হাসিনা সরকারের অধীনে রাজনৈতিক বিরোধী কর্মী এবং সমালোচকদের সহিংসভাবে দমন করা হয়। আইনের ইচ্ছামতো বদল করে সমাজকর্মী, সাংবাদিক এবং শিল্পীদের আটকে এবং জেলে পুরা হয়। বাংলাদেশে মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধের বাহানা করে আইনশৃঙ্খলাবাহিনীকে ব্যবহার করে শতাধিক লোককে হত্যা করা হয়েছে। আটক করা হয়েছে হাজারো মানুষকে। রাজপথে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের পুলিশি হেফাজতে নিয়ে নির্যাতন করা হয়েছে।

যারা অনলাইনে সরকার, প্রধানমন্ত্রী, এমনকি প্রধানমন্ত্রীর স্বজনদের যারা সমালোচনা করে তাদের আটক করতেই ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট বানানো হয়েছে। ২০১৮ সালের আগস্টে ফেসবুকে এবং আল-জাজিরায় মানবাধিকার লংঘন নিয়ে কথা বলার অপরাধে সাংবাদিক এবং সমাজকর্মী শহীদুল আলমকে ১০৭ দিন জেলে থাকতে হয়েছে।

সবচাইতে অন্যায় আচরণের জন্য বেছে নেয়া হয়েছে বিএনপি এবং তার নেতাকর্মীদের। দুর্নীতি দমন কমিশনের আবদনের প্রেক্ষিতে দেশটির প্রধান বিরোধীদলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়ার সাজা ৫ বছর থেকে দ্বিগুণ করে সেটা ১০ বছর বানানো হয়েছে। গত বছরের শুরু দিকে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে সাজা দেয়া হয়। এটাকে ২০১৮ সালের নির্বাচন থেকে খালেদা জিয়াকে বঞ্চিত করার কৌশল বলেছেন সমালোচকরা। আর শেষমেষ সে বুদ্ধিই কাজে লাগানো হলো।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এশিয়া বিষয়ক পরিচালক ব্র্যাড অ্যাডামস বলেছেন, “২০১৮ সালের বাংলাদেশ নির্বাচনে যেটা খোলাখুলিভাবে দৃশ্যমান হলো তা হলো সরকার শক্ত হাতের ভয় দেখিয়ে তার ক্ষমতা পাকাপোক্ত করছে।”

“সরকারের উচিত গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ, মুক্ত মতপ্রকাশ, আইনের স্বাধীনতা এবং গতিশীল সুশীল সমাজকে স্বীকৃতি দেয়া।”

হাসিনার সমর্থকরা তার নেতৃত্বকে বৈধতা দিতে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির বুলি কপচায়।

হাসিনার একনায়কতান্ত্রিক শাসনে অস্থিরতা ক্রমশ বড়ছে। আর সেটা এখনকার জন্য যেমন, তেমনি দীর্ঘ মেয়াদের জন্যও একটা ঝুঁকি। তার সরকার যে অর্থনৈতিক উন্নয়নের কথা বলছে সেটা একটা ঝুঁকি হিসেবে থেকেই যায়। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় গত বছর সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা যখন রাজপথে নেমে আসে তখন থ্রিজি এবং ফোরজি নেটওয়ার্ক বন্ধ করে দেয় সরকার।

উত্তর আমেরিকা, ইউরোপ এবং এশিয়ায় বাংলাদেশের অংশীদার যারা রয়েছে তাদের উচিত সরকারের এসব নীতির বিরুদ্ধে মুখ খোলা।

শেখ হাসিনা ধারাবাহিকভাবে কঠোর হস্তে নির্যাতন করে তার সমালোচকদের মুখ বন্ধ রাখতে চাইছে। এতোকিছু করেও তিনি জাতিসংঘ থেকে “চ্যাম্পিয়নস অফ দ্যা আর্থ” পুরস্কার বাগিয়ে নিয়েছেন। পরিবেশ নিয়ে সংবিধান ধারা সংশোধন করার কারণে জাতিসংঘ যখন তাকে স্পষ্টত পুরস্কৃত করছে ঠিক সেই সময়টাতেই গণতন্ত্র সুরক্ষার প্রতি তার যে অবজ্ঞা সে বিষয়টি কিন্তু দৃষ্টিসীমার বাইরে ফসকে যাচ্ছে।

যখন মিয়ানমার, থাইল্যান্ড এবং হংকংয়ে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা নিয়ে কথা হয় তখন কিন্তু বাংলাদেশে গণতন্ত্রের অবনতির বিষয়টি নিয়ে কথা হয়না। ভালো পরিবেশে রাজনীতি থেকে মানুষ কী প্রত্যাশা করতে পারে -এরশাদের মৃত্যু সে বিষয়টি নিয়ে আমাদের ভাবিয়ে তুলছে।

উৎসঃ justnewsbd

আরও পড়ুনঃ বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ইস্যু : নতুন হিসাব কষছে বিএনপি


জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় জামিন আবেদন সরাসরি নাকচ হয়ে যাওয়ার পর বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ইস্যুতে নতুন হিসাব-নিকাশ কষছে বিএনপি। গ্রেফতারের ১৭ মাস পেরিয়ে গেলেও আইনি প্রক্রিয়ায়ই নেত্রীর মুক্তি হতে পারে, এমন আশা এত দিন দলের অভ্যন্তরে কিছুটা হলেও ছিল। কিন্তু সর্বশেষ এই রায়ের পর সেই ভরসা বলতে গেলে পুরোটাই উবে গেছে। কর্মীদের মধ্যে এখন আরো বেশি ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। নীতি নির্ধারণীয় পর্যায়ে থাকা সিনিয়র নেতারাও রাজনৈতিক কর্মসূচি গ্রহণের ক্ষেত্রে চাপে পড়ে গেছেন। তারাও বেগম জিয়ার মুক্তি ইস্যু নিয়ে নতুন করে ভাবতে শুরু করেছেন। গতকাল রাতে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণে সিনিয়র আইনজীবীদের সাথে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেছেন নেতারা। সেখানে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও স্কাইপিতে যুক্ত ছিলেন।

গত বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়া গ্রেফতার হওয়ার পর বিএনপিতে তিন ধরনের মত ছিল। এক. কারাগারে পাঠানো হলে মাসখানেকের মধ্যেই জামিনে বেরিয়ে আসবেন খালেদা জিয়া। দুই. বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছে ছেড়ে দেয়ার জন্য নয়। এবং তিন. আইনি প্রক্রিয়ায় মুক্তি সম্ভব নয়, রাজপথেই এর ফায়সালা হতে হবে। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় জামিন আবেদন সরাসরি নাকচ হয়ে যাওয়ার পর এই তিন ধরনের মতো একমতে রূপ নিয়েছে বলে গতকাল সিনিয়র এক নেতা জানিয়েছেন। ওই নেতার মতে, ‘রাজপথ ছাড়া খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনার আর কোনো পথ খোলা নেই।’

বিএনপির নীতিনির্ধারকেরা মনে করছেন, আদালতের সর্বশেষ এই অবস্থানের পর রাজনৈতিক দূরত্ব আরো তীব্র হলো। বেগম জিয়ার মুক্তি নিয়ে সরকারের কট্টর অবস্থানের প্রকাশ ঘটল। সরকারের প্রধানের ইচ্ছা ছাড়া বেগম জিয়ার মুক্তি সম্ভব নয়, সেটিও স্পষ্ট হয়েছে। রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধের যেটুকু অবশিষ্ট ছিল তাও শেষ হয়ে যাওয়ার পথ ধরেছে।

৭৫ বছর বয়স্ক সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া এখন বঙ্গবন্ধু মেডিক্যালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার স্বাস্থ্যের অবস্থার বর্ণনা দিতে গিয়ে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, খালেদা জিয়ার জিবে আলসার হয়েছে। এক সাপ্তাহে তার চার কেজি ওজন কমেছে। উনি শুঁকিয়ে গেছেন। কিছুই খেতে পারছেন না। হুইল চেয়ার ছাড়া মুভ করতে পারছেন না। বিছানা থেকে একা নিজে উঠতে পারেন না। হুইল চেয়ারে বসিয়ে তাকে টয়লেটে, ওয়াসরুমে বা খাবার টেবিলে নিতে হয়। এভাবে বেগম জিয়াকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন মির্জা ফখরুল।

আইনি প্রক্রিয়ায় মুক্তি অসম্ভব মনে করে, অসুস্থতা বিবেচনায় এনে প্যারোলে খালেদা জিয়ার মুক্তি চাওয়া হবে কি না তা নিয়ে নতুন করে আবারো বিএনপির ভেতরে আলোচনা শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে। মাস চার আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর একটি বক্তব্যের সূত্র ধরে এই আলোচনা বেশ চাউর হয়েছিল। বিএনপির নেতারা তখন বলেছেন, বেগম জিয়া প্যারোলে মুক্তি পেতে চান না। বিএনপির সিনিয়র একা নেতা বলেছেন, দল, পরিবার ও সর্বোপরি বেগম খালেদা জিয়ার সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করছে পরবর্তী রাজনৈতিক অবস্থান নির্ধারণের বিষয়টি। বিএনপির মধ্য সারির নেতাদের একটি অংশ অবশ্য শুরু থেকেই যেকোনো প্রক্রিয়ায়ই হোক বেগম জিয়াকে কারমুক্ত দেখতে চান।

বিএনপি চেয়ারপারসনের আইনজীবীরা মনে করছেন, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন হাইকোর্টে সরাসরি খারিজ হয়ে যাওয়ায় তার মুক্তির বিষয়টি অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। নয়া দিগন্তের সাথে আলাপকালে তারা বলেছেন, এখন জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় খালাস চেয়ে যে আপিল আবেদন শুনানির অপেক্ষায় আছে, সেই আবেদনটি হাইকোর্টের অন্য কোনো বেঞ্চে উপস্থাপন করে জামিন আবেদন করা যেতে পারে। আর দ্বিতীয় প্রক্রিয়া হলো হাইকোর্টের জামিন আবেদন খারিজের আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে যাওয়া। তারা বলেছেন, যেহেতু খালেদা জিয়ার কোনো আইনজীবীকে তার সাথে সাক্ষাৎ করতে দেয়া হচ্ছে না, সেহেতু এ বিষয়ে সিনিয়র আইনজীবীরা সম্মিলিতভাবে আলোচনায় বসে সিদ্ধান্ত নেবেন।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজ হয়ে যাওয়ায় এখন আপিল বিভাগে যেতে হবে। তিনি বলেন, আমরা এই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে যাব। তিনি বলেন, রাজনৈতিক কারণে বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে এই মামলা করা হয়েছে। এ কারণে সরকারের সদিচ্ছা ছাড়া বেগম খালেদা জিয়ার জামিন হবে না। সাত বছরের সাজায় তার জামিন নামঞ্জুর করা অত্যন্ত দুঃখজনক।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেছেন, খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ আলোচনা করে ঠিক করা হবে।

খালেদা জিয়ার আরেক আইনজীবী ও বিএনপির আইন সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল বলেন, জামিন পাওয়ার ক্ষেত্রে যে শর্তগুলো আদালত বিবেচনা করেন, তার প্রত্যেকটাই শর্তই বেগম খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য ছিল। যেমন স্বল্প সাজা, শারীরিকভাবে অসুস্থ, বয়স বিবেচনা ও তার সামাজিক অবস্থান। প্রত্যেকটি ক্ষেত্রে খালেদা জিয়া জামিন পাওয়ার হকদার ছিলেন। তার পরেও তাকে জামিন না দিয়ে উনাকে ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে, যা অবিচারেরই নামান্তর।

এ মামলায় জামিন পাওয়ার ক্ষেত্রে বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে পরবর্তী আইনি পদক্ষেপ কি হতে পারে? এ প্রশ্নের জবাবে কায়সার কামাল বলেন, যেহেতু বেগম খালেদা জিয়ার কোনো আইনজীবীকে সরাসরি সাক্ষাৎ করতে দেয়া হচ্ছে না, সেহেতু সিনিয়র আইনজীবীরা আলোচনায় বসে সম্মিলিতভাবে সিদ্ধান্ত নেবেন। সেই সাথে আমরা বেগম খালেদা জিয়ার সাথে দেখা করে তার পরামর্শ নেয়ার চেষ্টা করব।

উৎসঃ নয়া দিগন্ত

আরও পড়ুনঃ ‘সাঈদী হুজুর মুক্তি পাবেন এবং আবার ময়দানে নাহমাদুহু বলে ওয়াজ শুরু করবেন।’


‘সাঈদী হুজুর মুক্তি পাবেন এবং আবার ওয়াজের ময়দানে গিয়ে নাহমাদুহু বলে তার ওয়াজ শুরু করবেন।’ গোলাম মাওলা রনিকে এক আওয়ামীলীগ সমর্থক সাঈদী বক্তের ফোনকল।

আল্লামা দেলোয়ার হোসাইন সাঈদীকে নিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়েছেন আওয়ামী লীগ দলীয় সাবেক সংসদ সদস্য ও বর্তমানে বিএনপি নেতা গোলাম মাওলা রনি। তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে তিনি পটুয়াখালীর স্থানীয় এক বন্ধুর ছেলের উদ্ধৃতি দিয়ে আল্লামা সাঈদী সম্পর্কে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। নিচে পাঠকদের জন্য স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলঃ

“আজকের এই পবিত্র দিনে একটি পবিত্র স্থানে বসে আল্লামা দেলোয়ার হোসাইন সাঈদী সম্পর্কে এই মাত্র আমি যা শুনলাম তাতে আমার অন্তর শীতল হয়ে গেলো ! বর্তমানে জীবিত আছেন এমন চারটি প্রজন্মের মধ্যে সবচেয়ে ছোট প্রজন্মের মন মস্তিষ্কে জনাব সাঈদী কিভাবে ঢুকে পড়েছেন তার বাস্তব প্রমান পাওয়ার পর মনে হলো – জনাব সাঈদী হয়তো এই যুগের মুজাদ্দেদ এবং জমিনে জান্নাতি মানুষের জীবন্ত প্রতিরূপ !

উপরোক্ত বিষয়টি খুলে বলার পূর্বে প্রতি শুক্রবারে আমার জীবন যাত্রা নিয়ে কিছু বলে নেই ! দিনটিতে আমি রোজা রাখি এবং সাড়ে এগারোটার মধ্যে মসজিদে চলে আসি ! সারাদিন এই পবিত্র গৃহে থাকি এবং মাগরিব অথবা এশা পড়ে বাসায় যাই ! এই আট-নয় ঘন্টা সময়ে আমি সাধারণত কোনো ফোন রিসিভ করিনা ! কিন্তু আজ একটা ফোন কেন জানি রিসিভ করলাম !

ফোনের অপর প্রান্ত থেকে একটি ইতস্তত কণ্ঠ জানতে চাইলেন আমি গোলাম মাওলা রনি কিনা ? তার পর ফোনকর্তা তার নিজের পরিচয় দিতে গিয়ে জানালেন যে, তিনি নবম শ্রেণীতে পড়েন ! তার বাবার নাম কাম্বার এবং ফুফার নাম নুরুল হুদা যিনি বর্তমানের সিইসি !

কাম্বার আমার বহু পুরোনো বন্ধু ! কিন্তু গত কুড়ি বছর ধরে কোনো যোগাযোগ নেই ! কাম্বারদের পুরো পরিবার কট্টর আওয়ামীলীগ এবং তারা বেশ ধনী এবং অভিজাত ! কাম্বারের ছেলে জানালেন যে, তিনি ইংলিশ মিডিয়ামের ছাত্র এবং আওয়ামীলীগ করেন ! নিয়মিত নামাজ পড়েন – কোরান তেলাওয়াত করেন এবং ইসলামের নিয়ম কানুন কঠোর ভাবে অনুসরণ করেন!

ভিডিওঃ  ‘আল্লামা সাঈদী সম্পর্কে গোলাম মাওলা রনির চমৎকার মূল্যায়নের সেই ভিডিও! ’

[সংবাদের ভিডিওটি দেখতে প্লে বাটনে ক্লিক করুন]

আমার বন্ধু পুত্র আমাকে জানালেন যে , জনাব দেলোয়ার হোসাইন সাঈদীর ওয়াজ শুনেই তিনি ধর্ম কর্মে একনিষ্ঠ হয়েছেন ! সম্প্রতি সাঈদী সাহেব কে নিয়ে আমার দেয়া একটি বক্তব্য তিনি ইউ টিউবে দেখার পর কৃতজ্ঞতা জানানোর জন্য আমাকে ফোন করেছেন !

আল্লাহর দ্বীনের অনুরক্ত সম্মানিত কিশোরটি ফোনে আমার সঙ্গে কথা শেষ করার পূর্বে কান্না জড়িত কণ্ঠে বললেন যে , তিনি বিশ্বাস করেন – সাঈদী হুজুর মুক্তি পাবেন এবং আবার ওয়াজের ময়দানে গিয়ে নাহমাদুহু বলে তার ওয়াজ শুরু করবেন !

ছেলেটির কথা শুনে আমি কিছুক্ষন বাকরুদ্ধ হয়ে রইলাম ! তারপর এই স্টেটাস লিখতে শুরু করলাম ! আল্লাহর দরবারে বন্ধু পুত্রের জন্য দোআ চাই এবং তার মনের আকুতিটি যেন কবুল হয় সেই জন্যও দোআ করছি ! আমিন !”

উৎসঃ সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম মাওলা রনির ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে

আরও পড়ুনঃ ‌জেল থেকে আল্লামা সাঈদীঃ ’আমি আবার ফিরে আসবো কোরআনের ময়দানে। ইনশাআল্লাহ’

কারাবন্দি আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর সাথে তার ৩য় পুত্র মাসুদ সাঈদী (ফাইল ছবি)

মাসুদ সাঈদী

“আমার বাবা আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী হাফিজাহুল্লাহর (আমার হৃদয়ে সঞ্চিত সবটুকুন ভালবাসা যার পবিত্র দু’পায়ে নিবেদিত) সাথে দেখা করতে আজ আমরা তার পরিবারের সদস্যরা কাশিমপুর কারাগারে গিয়েছিলাম।

সাক্ষাতে জন্য আবেদন করার পর কারা কর্তৃপক্ষ প্রায় ৩ ঘন্টা গেটের বাইরে বসিয়ে রেখেছিল আমাদের। আজ বৃষ্টিও হয়েছে বেশ কিছুটা সময়। বৃষ্টির মধ্যেই বসে থাকতে হয়েছে আমাদের। সকালে নাস্তা করে বেরিয়েছিলাম, এর মাঝে আর কিছুই খাওয়া হয়নি। এমনিতে আমি ডায়াবেটিসের রুগী। বেশী সময় না খেয়ে থাকলে শরীর কেঁপে ওঠে, দূর্বল লাগে। আমাদের সাথে ঘরের বাচ্চারাও থাকে, বসে থাকতে থাকতে তারাও এক সময় ধৈর্য্য হারিয়ে ফেলে, ছটফট করতে থাকে। এভাবে প্রায় প্রতি সাক্ষাতে আমাদেরকে শারীরিক ও মানসিক কষ্ট দিয়ে কারা কর্তৃপক্ষ যে কি তৃপ্তি পান তা আমার মতো অযোগ্য এক ব্যক্তির মাথায় আজো ঢুকলো না। এমন আচরণ করাটা কি ‘উপরের নির্দেশ’ নাকি তাদের চাকুরী বাঁচানো (!) না চাকুরীতে প্রমোশনের কোন ফর্মুলা (?) তা আমার জানা নেই।

অবশেষে দেখা করার ডাক এলো। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর আব্বার মায়াবী চেহারাখানি দেখে মূহুর্তেই সব কষ্ট ভুলে গেলাম। দেখা করতে ঢুকেই আরেক পেরেশানীতে পরলাম। খালি হাতের ঘড়ি দেখছি। এই বুঝি কেউ একজন এসে বলবে, ‘স্যার উঠুন, আপনাদের সাক্ষাতের সময় শেষ।’ মাথার ভেতর খালি ঘুরপাক খাচ্ছে ‘৩০ মিনিট’, ‘৩০ মিনিট।’ আমাদের সাক্ষাতের সময় যে মাত্র ৩০ মিনিট !!

পরিবারের সবার সাথে আব্বা হাসি মুখে কথা বলছিলেন। আর আমি আব্বার মুখের দিকে তাকিয়ে ভাবছিলাম, এমন একজন মানুষকে কেমন করে ‘ওরা’ গত ৯টি বছর ধরে আটকে রেখেছে!! আহারে! এই মানুষটি যদি বাইরে থাকতেন, তাহলে তার তাফসীর শুনে গত ৯ বছরে অন্তত: ৯জন মানুষতো ইসলাম গ্রহন করতো, অন্তত: ৯জন মানুষতো নামাজী হতো, অন্তত: ৯জন মানুষতো সুদ ঘুষ ছেড়ে দিতো, অন্তত: ৯জন মানুষতো জেনা ব্যভিচার ছেড়ে দিতো, অন্তত: ৯জন মানুষতো কোরআন প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের কর্মী হতো !! হায় আফসোস!

তবে আলহামদুলিল্লাহ, ৯ বছর ধরে আটকে রেখে শত মানসিক যন্ত্রনা দিয়েও আমার বাবা আল্লামা সাঈদীর মানসিক দৃঢ়তায় এক চুল পরিমানও চিড় ধরাতে পারেনি ‘ওরা।’ তিনি যেন ধৈর্যের এক পিরামিড। শত কষ্টের মাঝেও তিনি কোরআনের ময়দানে ফেরার জন্য প্রস্তুত হয়ে আছেন।

আজো কথা প্রসংগে আবারো দৃঢ়কন্ঠে আব্বা ঘোষনা করলেন, ’আমি আবার ফিরে আসবো কোরআনের ময়দানে ইনশাআল্লাহ, কোটি জনতাকে আবার শোনাবো কোরআনের শাশ্বত বাণী, ইনশাআল্লাহ এই বাংলাদেশেই একদিন উড়বে ইসলামের পতাকা।’

দৃপ্ত কন্ঠে আব্বার কথাগুলো শুনে আমরা চোখের পানি ফেলেছি। আর চোখের পানি দিয়ে দাড়ি ভিজিয়ে বলেছি, ‘ওগো আরশের মালিক, ওগো আহকামুল হাকিমীন! তুমি কাশিমপুর কারাগারের ছোট্ট এই রুমে বসা তোমার গোলামদের আহাজারি কবুল করো। আমাদের চোখের পানি কবুল করো। আমরা মজলুম, আমাদের হাতগুলোকে তুমি খালি হাতে ফিরিয়ে দিওনা।’

চোখের পানি শুকাতে না শুকাতে উঠে দাঁড়াতে হলো। একজন কারারক্ষী এসে জানালেন সাক্ষাতের সময় শেষ। সাক্ষাতের এই ‘৩০ মিনিট’ কি আরেকটু দীর্ঘ হতে পারতো না !! ঘড়ির কাটাটা কি আরেকটু ধীরে ঘুরতে পারতো না !!

আব্বার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে কারাগার থেকে বেরিয়ে এলাম চোখ মুছতে মুছতেই, কিন্তু হৃদয়টা ভরে আছে নিদারুন এক প্রশান্তিতে। ঐ মায়াবী চেহারাটা দেখেছি যে! ঐ পবিত্র হাতে চুমু খেয়েছি যে!”

গ্রেফতারের কয়েক বছর আগে আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর সাথে তার ৩য় পুত্র মাসুদ সাঈদী (ফাইল ছবি)

Masood Sayedee – মাসুদ সাঈদী

পুনশ্চ ::

আলহামদুলিল্লাহ, আল্লাহ তায়ালার মেহেরবানীতে আপনাদের ভালবাসার ’সাঈদী’ আপনাদের দোয়ায় ভালো আছেন।

দেশ বিদেশের যারা আব্বার কাছে সালাম জানিয়েছিলেন আপনাদের সকলের সালাম আমি তার কাছে পৌঁছে দিয়েছি। আব্বাও আপনাদের সকলকে সালাম জানিয়েছেন। আপনাদের কাছে দোয়া চেয়েছেন।

আপনারা দোয়া করবেন, আল্লাহ রাব্বুল আলামীন যেন তাঁকে সুস্থ রাখেন, ভাল রাখেন। তাকে হেফাজতে রাখেন। তার নেক হায়াত দারাজ করেন। আল্লাহ রাব্বুল ইজ্জত ওয়াল জালাল তাকে যেন আবারো কোরআনের ময়দানে ফিরিয়ে দেন।

উৎসঃ আল্লামা সাঈদীর ৩য় পুত্র মাসুদ সাঈদীর ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে

আরও পড়ুনঃ আগরতলা বিমানবন্দর সম্প্রসারণে বাংলাদেশের জমি চায় ভারত


ত্রিপুরা রাজ্যের আগরতলা বিমানবন্দরকে (বর্তমান মহারাজা বীর বিক্রম বিমানবন্দর) সম্প্রসারণ করতে চায় ভারত। এজন্য জমির প্রয়োজন হওয়ায় বাংলাদেশের কাছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জমি চেয়ে প্রস্তাব করেছে দেশটি। তবে, ভারত কী পরিমান জমি চেয়েছে তা প্রকাশ করেননি কোনো কর্মকর্তা।

ইংরেজি দৈনিক নিউ এজ এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

অবশ্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এ বিষয়ে নিউএজকে বলেছেন, সরকার এখনো এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। তিনি আরো বলেন, ভারতকে ইতোমধ্যে ট্রানজিট ও ট্রান্সশিপমেন্ট সুবিধা দেয়া হয়েছে। গত এক বছর ধরে বেশ কয়েকটি সভায় নতুন করে এই প্রস্তাব দিয়ে আসছে দেশটি।

ভারত কী পরিমাণ জমি চেয়েছে তা প্রকাশ করেননি কোনো কর্মকর্তা। তবে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, আগরতলা বিমানবন্দর এবং এর রানওয়ে আখাউড়ার চানপুরে সীমান্তের এক কিলোমিটারেরও কম দূরে অবস্থিত।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দায়িত্বরত প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেছেন, কলকাতা ও গুয়াহাটি থেকে বিমান উড্ডয়নের পর আগরতলা বিমানবন্দরে অবতরণের সময় বাংলাদেশের আকাশসীমা ব্যবহারের প্রয়োজন পড়ে।

২০১৮ সালের জুলাই মাসে ভারতের তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (বর্তমান প্রতিরক্ষামন্ত্রী) বাংলাদেশ সফরকালে প্রথম এ প্রস্তাব দেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ত্রিপুরার আগরতলা বিমানবন্দর সম্প্রসারণের জন্য বাংলাদেশ ভারতের সাথে কীভাবে তার জমি ভাগ করে নিতে পারে তা পরীক্ষা করার জন্য গতবছরের অক্টোবর মাসে সংশ্লিষ্ট অন্যান্য মন্ত্রণালয় ও গোয়েন্দা সংস্থার সাথে একটি বৈঠক করেছিল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মহিবুল হক বলেন, ‘বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনার পর আমরা তাদেরকে একটি আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দিতে বলেছিলাম। ২০১৮ সালের অক্টোবরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সেই বৈঠকে অংশ নেওয়া দুজন সিনিয়র কর্মকর্তা বলেন, একজন সামরিক কর্মকর্তা ভারতের সাথে বাংলাদেশের ভূখণ্ড ভাগ করে নেওয়ার বিষয়ে নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়াদি বিস্তারিতভাবে জানিয়েছেন।’

একজন কর্মকর্তা বলেছেন, ‘বিমানবন্দর কীভাবে পরিচালিত হবে, সীমান্তবর্তী জমি ইজারা দেওয়া হবে কিনা এবং সরকার ভারতের সাথে জমিটি ভাগ করে নিতে চাইলে প্রক্রিয়া কী হতে পারে তাও আমরা আলোচনা করেছি।’ সভায় অংশ নেওয়া অন্য একজন কর্মকর্তা একটি মানচিত্র এনে দেখিয়েছেন যে, যদি আগরতলা বিমানবন্দরটি বাড়ানো হয়, তাহলে ভারত বাংলাদেশ ভূখণ্ডের অভ্যন্তরে লাইট স্থাপন করবে এবং বিমানবন্দর সুরক্ষার জন্য এলাকাটি ঘিরে নেবে।

পররাষ্ট্রসচিব শহিদুল হক বলেন, ‘এ বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। বেশ কয়েকটি মন্ত্রণালয় বিষয়টির সাথে সম্পর্কিত। মন্ত্রণালয়গুলো বিষয়টি নিয়ে নিজেদের মধ্যে সমন্বয় করছে।’

তবে, তিনি বলেন, ২০১৮ সালের অক্টোবরের ওই সভায় যারা অংশ নিয়েছিলেন তারা ভারতীয় প্রস্তাবটি ইতিবাচকভাবে গ্রহণ করেছিলেন। তারা প্রত্যেকেই মনে করেন, আমাদের জমির অংশ সেখানে যথাযথভাবে সংযুক্ত হবে। তিনি আরো বলেন, ওই বৈঠকে তিনি জেনেভা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের প্রসঙ্গ তুলে ধরেছিলেন। যেটি আংশিকভাবে সুইজারল্যান্ডে এবং আংশিকভাবে ফ্রান্সে পড়েছে। ১৯২০ সালে প্রতিষ্ঠিত জেনেভা বিমানবন্দরটি যখন এর উত্তর সীমান্তে চলে তখন এর অবস্থান থাকে সুইস ভূখণ্ডে। তবে, সুইজারল্যান্ড এবং ফ্রান্স উভয় স্থান থেকে সেখানে অধিগমন করা যায়।

বিমানবন্দর সম্প্রসারণের জন্য ভারতকে ভূমি দেয়া হলে তা জাতীয় নিরাপত্তাকে প্রভাবিত করবে কিনা জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, জাতীয় নিরাপত্তার সাথে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এবিষয়ে বলতে পারবেন। আমি এটিকে দূরদর্শী দৃষ্টিকোণে ব্যবসা এবং গতিশীলতার দিক থেকে দেখেছি। তিনি যুক্তি দেন যে, বিভিন্ন দেশে আন্তঃসীমান্ত বিমানবন্দর রয়েছে। অনেক দেশ একই বিমানবন্দর ব্যবহার করে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষক ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, ‘ইউরোপ ও দক্ষিণ এশিয়ার সীমান্ত পরিচালনা, অভিবাসন ব্যবস্থা বা মুদ্রানীতিতে একরকম নয়।’ তিনি বলেন, ‘বিমানবন্দরটি দুটি দেশ যৌথভাবে পরিচালনা করবে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। এটি যদি যৌথ উদ্যোগ হয়, তবে আমরা বিবেচনা করতে পারি। অন্যথায়, এটি যৌক্তিক নয়।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছিলেন, ‘আমরা কাউকে এভাবে জমি দেই না। আর, এবিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।’

সাবেক বিমানমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এই প্রস্তাবে অবাক হয়েছেন। কীভাবে অন্য একটি দেশের বিমানবন্দর আমার দেশে সম্প্রসারণ করা যায় এমন প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে সরকার কঠোর প্রতিরোধের মুখোমুখি হবে।’ রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও বিমানবিষয়ক পরিপ্রেক্ষিতে বিবেচনায় এই প্রস্তাব যৌক্তিক নয় বলে জানান রাশেদ খান মেনন।

২০১৯ সালের শেষে এবং ২০২০ সালের শুরুতে গুয়াহাটি এবং ইম্ফলের পরে আগরতলা বিমানবন্দরটি ভারতের উত্তর-পূর্বের তৃতীয় আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হয়ে উঠবে, গত ২৪ জুন এমন একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল ইন্দো-এশিয়ান নিউজ সার্ভিস।

ত্রিপুরার তৎকালীন পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী প্রানজিৎ সিংহ রায়কে উদ্ধৃত করে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতের বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ আগরতলা বিমানবন্দরকে ২০২০ সালের প্রথম দিকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। এজন্য ৪৩৮ কোটি টাকার একটি প্রকল্প গ্রহণ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। প্রকল্পের অংশ হিসেবে ইতোমধ্যে টার্মিনাল ভবন, রানওয়ে এবং অন্যান্য স্থাপনা নির্মাণের জন্য কর্তৃপক্ষকে ৭২ একর জমি সরবরাহ করেছে সরকার।

তৎকালীন পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী প্রাণজিৎ রায় সংবাদ মাধ্যমগুলোকে বলেছিলেন, বিমানবন্দরটির সম্প্রসারণের কাজ শেষ হলে আগরতলা থেকে বিমানযোগে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটসহ বাংলাদেশের অন্যান্য শহরগুলোতে যাওয়া যাবে।

উল্লেখ্য, ১৯৪২ সালে ত্রিপুরার তৎকালীন রাজা বীর বিক্রম কিশোর মানিক্য বাহাদুর বিমানবন্দরটি নির্মাণ করেছিলেন।

উৎসঃ বাংলা ডেস্ক

আরও পড়ুনঃ আওয়ামী লীগ এমপি শম্ভুর রাজত্বে কথা না শুনলেই চড়-থাপ্পড়, বেশিদিন টেকেন না সরকারি কর্মকর্তারা


সরকারি কর্মকর্তারা বরগুনায় বেশিদিন টিকতে পারেন না। বিশেষ করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ, পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং এলজিইডিসহ ঠিকাদারিসংশ্লিষ্ট দফতরগুলোতে রয়েছে শম্ভু আ*ঙ্ক।

টেন্ডারবাজি ঠেকাতে ই-টেন্ডার চালু করা হলেও তা মানতে চান না শাসক দলের মদদপুষ্ট ঠিকাদাররা। এরা সবাই স্থানীয় এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুরই লোক। কথা না শোনায় প্রকাশ্যে একজন নির্বাহী প্রকৌশলীকে মারধরের দৃষ্টান্তও আছে বরগুনায়। শুধু তাই নয়, কথিত দুর্নীতি মামলায় ফাঁসিয়ে তাকে জেলে পাঠানোর অভিযোগও আছে এমপির বিরুদ্ধে।

শম্ভুর হয়ে দফতরগুলোতে প্রভাব বিস্তারকারীদের বিরুদ্ধেও অভিযোগের শেষ নেই। সরকারি দায়িত্ব পালন করতে আসা জ্যেষ্ঠ প্রকৌশলীদের সঙ্গে রূঢ় আচরণ, তেড়ে যাওয়া, শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার উদাহরণও আছে একাধিক। তাই বরগুনায় আসার কিছুদিনের মধ্যেই বদলির জন্য নামেন তদবিরে। বদলি হওয়ার পর তারা যেন হাফ ছেড়ে বাঁচেন।

কামালভীতি সড়ক ও জনপথ বিভাগে (সওজ) : বাবা ছিলেন বরগুনা জিলা স্কুলের দফতরি। তারই ছেলে কামাল হোসেন এখন বিপুল বিত্তবৈভবের মালিক। বাগিয়ে নিয়েছেন জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের পদও। সড়ক ও জনপথ বিভাগের ঠিকাদারও তিনি। বার্ষিক টার্নওভার হিসাবে বড় ঠিকাদার না হলেও বরগুনার সওজে তিনি ‘মুকুটবিহীন সম্রাট’। তার কথায় চলেন দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। কথা না শুনলেই শুরু হয় গালাগাল ও লাঞ্ছনা।

বরগুনা জেলা স্কুলসংলগ্ন যে ভবনে কামাল ও তার পরিবারের বসবাস সেটিও সরকারি জমিতেই। তার আরেক ভাই মনিরুজ্জামান জামাল বরগুনা পৌরসভার কাউন্সিলর। ঠিকাদারি করেন গণপূর্ত বিভাগে।

সড়ক ও জনপথের বরগুনা জেলা অফিস সূত্র বলছে, এমপির ক্যাডার হিসেবে কামালকে কেউ কিছু বলার সাহসও পান না। যখনই নতুন নির্বাহী প্রকৌশলী দায়িত্বে আসেন তখন তাকে এমপি সাহেব ফোন করে কামালের কথা বলে দেন। বর্তমানে যিনি দায়িত্বে তিনিও এমপির ফোন পেয়েছেন ফেব্রুয়ারিতে যোগ দেয়ার পরপরই। এর আগে এ পদে ছিলেন জাভেদ হোসেন তালুকদার। দাফতরিক নিয়মে কাজ করতে গিয়ে তাকেও শুনতে হয়েছে গালাগাল, মারতেও চাওয়া হয়েছিল। পরে তিনি নাটোরে বদলি হয়ে হাফ ছেড়ে বাঁচেন।

জানতে চাইলে প্রকৌশলী জাভেদ হোসেন যুগান্তরকে বলেন, ‘৩ মাস ছিলাম বরগুনায়। পরে দেখলাম ওখানে মানসম্মান বাঁচিয়ে চাকরি করাই মুশকিল। তাই বদলি।’ জুনে বরগুনা ছেড়েছেন সওজের আরেক উপ-সহকারী প্রকৌশলী অরুন কুমার বিশ্বাস। মে মাসে সওজের দফতরেই তার ওপর চড়াও হন কামাল। প্রায় ২ কোটি টাকার টেন্ডার বাগাতে ব্যর্থ হয়ে প্রকাশ্যে তাকে তেড়ে যান কামাল। ক্ষোভে-দুঃখে আর দফতরেই যাননি তিনি। জানতে চাইলে যুগান্তরকে অরুন কুমার বলেন, ‘বরগুনায় চাকরি করার মতো পরিবেশ ছিল না। আমি সিনিয়রদের জানানোর পর তারা আমাকে পটুয়াখালীতে বদলি করেন।’

এছাড়া এমপি শম্ভুর ক্যাডার কামালের গালাগাল শোনেননি এমন কর্মকর্তা এ দফতরে খুঁজে পাওয়া মুশকিল। এর মধ্যে উপবিভাগীয় প্রকৌশলী রাসেলও আছেন। সওজের একাধিক কর্মকর্তা বলেন, ‘ঠিকাদারি কর্মকাণ্ডে স্বচ্ছতা আনতে নানা উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ই-টেন্ডার চালুসহ বার্ষিক টার্নওভারের ভিত্তিতে যোগ্যতা নির্ধারণ তার অন্যতম। কিন্তু তা মানতে চান না এ কামাল। কথা হল- তাকে কাজ দিতেই হবে। অন্য ঠিকাদাররাও কামালের হয়রানির শিকার। বরগুনার সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী জাকির হোসেন অবশ্য মানিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছেন।

জুনে যে ৫টি আরএফকিউর (রিকোয়েস্ট অফ কোটেশন) কাজ হয়েছে তার ৪টিই পেয়েছেন (২৫ লাখ টাকা) কামাল। একই মাসে স্মল কোটেশনের ২০টি কাজের মধ্যে ১৫টিই পান কামাল। এটম এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নামে ১৭ লাখ টাকার সরবরাহও জুটেছে কামালের ভাগ্যে।

সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী জাকির হোসেন বলেন, ‘নিয়মতান্ত্রিক পন্থায় কাজ করছি। অনিয়মের সুযোগ নেই। যারা কাজ পেয়েছেন তার টেন্ডার দিয়েই পেয়েছে।’

অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কামাল হোসেন বলেন, ‘এমপি মহোদয় আমাকে স্নেহ করেন। তাই বলে আমি কোনো অন্যায় করিনি। সওজ অফিসেও কোনো প্রভাব বিস্তার করিনি। আমি একজন ছোট ঠিকাদার। টুকটাক কাজকর্ম করে জীবনধারণ করি। যা বলা হচ্ছে তার পুরোটাই অপপ্রচার।’

কথা না শুনলেই চলে এমপি শম্ভুর হাত : বরগুনা সদরে পরপর ৫ বারের এমপি ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু। একবার ছিলেন উপমন্ত্রী। ২৭ বছর ধরে আছেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে। দোর্দণ্ড প্রভাবশালী এ নেতার বিরুদ্ধে আমতলী উপজেলায় জমি কেনায় সরকারি রাজস্ব ফাঁকি এবং তালতলী উপজেলায় রাখাইনদের জমি কিনে টাকা পরিশোধ না করার বহু অভিযোগ রয়েছে।

বরগুনা থেকে বহু শ্রমিক কলকাতায় নিয়ে সেখানে বাড়ি তৈরির অভিযোগও আছে তার বিরুদ্ধে। ঠিকাদারি কাজ বাগিয়ে নিতে দফতরে দফতরে লোক ফিট করে রাখার অভিযোগ আছে এমপি শম্ভুর বিরুদ্ধে।

সড়ক ও জনপথে কামালের মতো স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগে আছেন তার আপন ভায়রা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সিদ্দিুকর রহমান। ২০১৬-১৭ সালে ই-টেন্ডার চালুর আগে এ সিদ্দিকুরই শম্ভুর হয়ে নিয়ন্ত্রণ করতেন এলজিইডি। ঠিকাদার এবং দফতর সূত্রে জানা যায়, ই-টেন্ডারের আগে সিদ্দিকুরের কথা বাইরে যাওয়ার সুযোগ ছিল না কারও।

জেলা আওয়ামী লীগের এক নেতা বলেন, ‘আগে থেকেই ঠিকাদারি পেশার সঙ্গে জড়িত ইউপি চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান। সফল ছিলেন না। এমপি শম্ভুর ভায়রা হওয়ার পর সফলতা আসতে থাকে।’

তার সিদ্ধান্তেই নির্ধারণ হতো শত শত কোটি টাকার কাজের ঠিকাদারি। ই-টেন্ডার চালুর পর তা কমে গেছে। এখন তার কাজ হচ্ছে, যারা কাজ পাচ্ছেন তাদের ওপর খবরদারি করা, কাজের অংশীদার করতে বাধ্য করা।

বরগুনা এলজিইডির এক প্রকৌশলী বলেন, ‘এমপির ভায়রা হিসেবে তার অনেক অন্যায় আবদার মেনে নিতে হচ্ছে।’ এ নিয়ে কথা বলার জন্যে সিদ্দিকুরের মোবাইলে কয়েকবার ফোন দেয়া হলে তিনি ধরেননি। খুদে বার্তা পাঠালেও কোনো সাড়া মেলেনি।

কয়েক বছর আগে বরগুনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলীর দায়িত্বে ছিলেন আবদুল মালেক। আইলার পরে বরগুনায় যখন শত শত কোটি টাকার কাজ হয় তখন এমপির কথা অনুযায়ী কাজ না করায় মালেককে ডিসির দফতরের বারান্দায় নিজ হাতে চড়-থাপ্পড় মেরেছিলেন এমপি শম্ভু। তখন প্রকৌশলীরা আন্দোলনে নামার ঘোষণা পর্যন্ত দিয়েছিলেন। বহু কষ্টে পরিস্থিতি সামাল দিলেও ক্ষোভ ভুলতে পারেননি শম্ভু। তার কিছুদিনের মধ্যেই বরগুনায় দুর্নীতির এক মামলা হয় মালেকের বিরুদ্ধে। সেই মামলায় কিছুদিন জেলেও ছিলেন তিনি। পরে বদলি হয়ে বরগুনা ছাড়েন। কথা না শোনায় সওজের প্রকৌশলীর বিরুদ্ধেও দুর্নীতির অভিযোগে ফাঁসানোর অভিযোগ রয়েছে।

আলাপকালে পাউবোর প্রকৌশলী আবদুল মালেক বলেন, ‘আমার সঙ্গে যা হয়েছে তা সবাই জানেন। আলাদা করে কিছু বলার নেই।’

পিতার হয়ে সব অভিযোগ অস্বীকার পুত্রের : বর্তমানে ভারত সফরে আছেন এমপি ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু। ফলে কথা বলা যায়নি তার সঙ্গে। বাবার হয়ে কথা বলেন এমপিপুত্র বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক অ্যাডভোকেট সুনাম দেবনাথ। যুগান্তরকে তিনি বলেন, ‘আগাগোড়াই বলে এসেছি যে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ আমাদের বিরুদ্ধে এসব অপ-প্রচার চালাচ্ছে। বাবা ক্লিন ইমেজের রাজনীতিক বলেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে পরপর ৬ বার দলীয় মনোনয়ন দিয়েছেন। ৫ বার তিনি বিজয়ী হয়েছেন। দুর্নীতিবাজ সন্ত্রাসী হলে সাধারণ মানুষ তাকে বারবার ভোট দিয়ে এমপি বানাতেন না। আমার বাবা কোনোদিন ঠিকাদারি করেননি এবং সরকারি দফতরের স্বাভাবিক কার্যক্রমেও বিঘ্ন ঘটাননি। আমার খালু সিদ্দিকুর রহমান বিয়ের আগে থেকেই একজন প্রতিষ্ঠিত ঠিকাদার। বাবার প্রতিনিধি হিসেবে অন্য যাদের নাম বলা হচ্ছে, তারাও তো কেউ কোটি কোটি টাকার মালিক নন। বাবা ২২-২৩ বছর ধরে এমপি।

তার বাবার প্রতিনিধিত্ব পেলে তো তাদের শত শত কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়ার কথা। এসবই অপ-প্রচার। আমাদের হেয়প্রতিপন্ন করার চেষ্টা এটি। এসব অভিযোগ কেউ প্রমাণ করতে পারবে না। একজন সৎ রাজনীতিবিদ হিসেবেই তিনি পরিচিত। এসব মিথ্যা অপ-প্রচার চালিয়ে তাকে রাজনৈতিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করার চেষ্টা কখনোই সফল হবে না।’

উৎসঃ যুগান্তর

আরও পড়ুনঃ শেখ হাসিনার ক্ষোভ প্রকাশের পরই সব দুধ খাটি!


সব সম্ভবের দেশ বাংলাদেশ। এখানে যে সব কিছুই সম্ভব সেটা আবারও প্রমাণ করলেন সরকারের অনুগত বিচারপতিরা। দেশে উৎপাদিত পাস্তুরিত দুধ নিয়ে বেশ কয়েক মাস ধরেই সমস্যা চলছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওষুধ প্রযুক্তি বিভাগের অধ্যাপক আ ব ম ফারুক পরীক্ষা করে প্রমাণ করেছেন এসব দুধে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকারক মাত্রায় ভারী ধাতু, সালফা ড্রাগ ও অ্যান্টিবায়োটিকের অস্তিত্ব আছে। তার এই পরীক্ষাকে যাছাই করার জন্য নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষকে দিয়েছিলেন আদালত। তারা যাছাই করে দুধে এসব ক্ষতিকর উপাদান পেয়েছে। আদালতে তারা গত সোমবার এনিয়ে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে।

এরপর আদালত ১৪টি কোম্পানিকে দুধ উৎপাদন করতে নিষেধ করেছেন। এছাড়া উৎপাদিত দুধ বিক্রি বন্ধ করতেও আদেশ দিয়েছেন আদালত। আদালতের এই নিষেধাজ্ঞার পরই তেলেবেগুনে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠলেন শেখ হাসিনা। লন্ডনে বসে তিনি বললেন-কোথা থেকে এক প্রফেসর এসে এসব পরীক্ষা করেছে? ফারুক আহমেদের এই পরীক্ষার সঙ্গে দুধ আমাদানী কারকদের কারসাজি আছে বলেও সন্দেহ প্রকাশ করলেন শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার শেখ হাসিনার ক্ষোভ প্রকাশ করার পরই বুধবার বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের (বিএআরসি) পুষ্টি ইউনিটের করা পরীক্ষার বরাত দিয়ে কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বললেন-এসব পাস্তুরিত ও অপাস্তুরিত তরল দুধ খেলে কোনো ক্ষতি নেই। সম্প্রতি দুধের মধ্যে ভারী ক্ষতিকর ধাতুর অস্তিত্বের যে খবর ছড়িয়েছে, তা সত্য নয়। তাই তরল দুধ খাওয়া নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। তাদের এই রিপোর্ট হাইকোর্ট বিবেচনায় নেবেন বলেও তিনি তখন আশা প্রকাশ করেন।

কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাকের আশা প্রকাশের এক ঘণ্টা পরই চেম্বার আদালত আদেশ দিলেন যে, ১৪টি কোম্পানির দুধে ক্ষতিকর কিছু নেই। এই দুধ উৎপাদন ও বিক্রি চলবে।

আদালতের এই আদেশের পর মানুষ বিস্ময় প্রকাশ করছেন। আগের দিন যেখানে হাইকোর্ট বলেছে দুধে ক্ষতিকর উপাদান রয়েছে। এই দুধ উৎপাদন বন্ধ করতে হবে। সেখানে একদিন পরই এসব দুধ কি করে খাটি হয়ে গেল?

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শেখ হাসিনার ক্ষোভকে প্রশমন করতেই চেম্বার আদালত এই আদেশ দিয়েছেন। চেম্বার বিচারপতিরা দুধ কোনো পরীক্ষা করেননি। শুধু সরকারকে খুশী রাখতেই তারা এই আদেশ দিয়েছেন। পদ ধরে রাখার জন্য এই মুহূর্তে জাতির বৃহত্তর স্বার্থের চেয়ে সরকারের স্বার্থ রক্ষা করাই এখন তাদের মূল কাজ। সেটাই তারা করেছেন।

উৎসঃ অ্যানালাইসিস বিডি

আরও পড়ুনঃ বাংলাদেশের অর্জিত আকাশসীমায় ফ্লাইট, রাজস্ব নিচ্ছে ভারত


বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের অর্জিত জলসীমার ওপর দিয়ে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চলাচল করলেও অবকাঠামো সমস্যার কারণে সেই রাজস্ব আদায় করা যাচ্ছে না। ওই আকাশপথ এখনো ভারতের এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলে রয়েছে এবং এসব ফ্লাইটের কাছ থেকে রাজস্বও আদায় করছে ভারত।

জানা গেছে, মিয়ানমার ও ভারতের সঙ্গে আইনি লড়াইয়ে বিশাল সমুদ্রসীমা জয়লাভের পর বাংলাদেশের অর্জিত জলসীমার ওপর দিয়ে বিমান চলাচলের জন্য পাঁচটি আন্তর্জাতিক রুটের খোঁজ পাওয়া গেছে। এয়ার ট্রাফিক সার্ভিস প্রদানের জন্য এ রুটগুলোর ট্রাফিক কন্ট্রোল বাংলাদেশ বুঝে নিতে পারলে রাজস্বপ্রাপ্তির খাতায় বছরে যোগ হবে প্রায় ২৫৫ কোটি টাকা।

সূত্রগুলো জানায়, বর্ধিত জলসীমায় পাঁচটি রুটের মধ্যে তিনটি আন্তর্জাতিক রুট চিহ্নিত করা গেলেও সেগুলো বাংলাদেশের রাডার ব্যবস্থার কাভারেজের বাইরে অবস্থিত। এ তিনটির মধ্যে ‘পি ৬৪৬’ নামে একটি রুটের সন্ধান পাওয়া গেছে যে রুট দিয়ে দৈনিক গড়ে প্রায় ৫৫টি এয়ারক্রাফট যাতায়াত করে। সম্প্রতি কারওয়ান বাজারের পেট্রোসেন্টারে ‘ব্লু ইকোনমি’-সংক্রান্ত এক সভায় বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ-বেবিচকের প্রতিনিধি জানান, বাংলাদেশের অ্যারোনটিক্যাল চার্জ অনুযায়ী ‘পি৬৪৬’ রুটে চলাচলকারী মাঝারি টাইপের এয়ারক্রাফটের চার্জ হিসাব করলে দৈনিক গড় রাজস্ব দাঁড়ায় (৫৫ গুণক ৩০০ মার্কিন ডলার) ১৬ হাজার ৫০০ মার্কিন ডলার। দেখা যাচ্ছে এই একটি রুট থেকে বার্ষিক সম্ভাব্য রাজস্বের পরিমাণ ৬০ লাখ ২২ হাজার ৫০০ ডলার।

সূত্র জানান, বাংলাদেশের অর্জিত আকাশসীমায় আরও দুটি আন্তর্জাতিক রুট চিহ্নিত করা গেছে ‘এন ৮৯৫’ ও ‘এম ৭৭০’ নামে। তবে রাডার এরিয়ার বাইরে থাকায় ওই দুটি রুটে চলাচলরত আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের হিসাব সংগ্রহ করতে পারেনি বেবিচক। বেবিচকের তথ্যানুযায়ী অর্জিত জলসীমায় একটি আন্তর্জাতিক রুট থেকে যদি বছরে ৬০ লাখ ২২ হাজার ৫০০ মার্কিন ডলার আয় হয়, তবে পাঁচটি রুটে সম্ভাব্য রাজস্বের পরিমাণ দাঁড়াতে পারে প্রায় ৩ কোটি ১ লাখ ১২ হাজার ৫০০ ডলার। স্থানীয় মুদ্রায় যা প্রায় ২৫৫ কোটি টাকা। অর্থাৎ অর্জিত জলসীমার ওপর বাংলাদেশের যে আকাশসীমা রয়েছে, প্রয়োজনীয় অবকাঠামো না থাকায় সেখান থেকে বছরে ওই পরিমাণ রাজস্ববঞ্চিত হচ্ছে বাংলাদেশ।

এ বিষয়ে জানতে বেবিচকের ডিরেক্টর (এটিএস অ্যান্ড অ্যারোড্রোমস) আবুল কালাম আজাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘বাংলাদেশের আকাশসীমা ব্যবহার করে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৪০০ ফ্লাইট ওভারফ্লাইং করে। প্রতিটি বড় আকারের এয়ারবাস থেকে আমরা ৪০০ মার্কিন ডলার রাজস্ব পাই। এ রাজস্ব কোনোভাবেই মিসিং হওয়ার সুযোগ নেই।’ তিনি বলেন, ‘শুধু তাই নয়, কলকাতা থেকে “লিমা ৫০৭” একটি রুট বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চল দিয়ে কিছুটা আকাশসীমা ব্যবহার করে আবার ভারতের আকাশসীমায় পড়েছে। ওই রুটে চলাচলকারী ফ্লাইটের যে কথোপকথন (বিএইচ) তা আমরা ঠিকভাবে শুনতে পাই না। আমাদের অনুরোধে কলকাতা পোর্ট কর্তৃপক্ষ সেই কথোপকথন পরিচালনা করছে, কিন্তু চার্জ আমরা আদায় করছি।’ তবে তিনি বঙ্গোপসাগরে অর্জিত জলসীমার ওপর দিয়ে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট পরিচালনার কোনো তথ্য দিতে পারেননি।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, অর্জিত জলসীমার ওপর দিয়ে যে আকাশসীমা রয়েছে তা পাশের দেশ ভারতের এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। বঙ্গোপসাগরে অর্জিত ওই বিশাল এলাকার ওপর যেহেতু বাংলাদেশের আগে একচ্ছত্র অধিকার ছিল না, সেহেতু ওই আকাশসীমায় ফ্লাইট ইনফরমেশন রিজিওন গড়ে তোলার কোনো সুযোগ ছিল না। তবে এখন সেই সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। বঙ্গোপসাগরে এফআইআর বর্ধিত করতে হলে চট্টগ্রামে অবস্থিত রাডারের কার্যক্ষমতা বাড়াতে হবে। পাশাপাশি অন্যান্য অবকাঠামো সুবিধাও গড়ে তুলতে হবে।

উৎসঃ বিডি প্রতিদিন

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here