কাশ্মীরী শিক্ষার্থীদের সাথে আফ্রিদি; ভারতীয় মিডিয়ার ঘুম হারাম

0
201

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) খেলতে অর্ধমাস ধরে বাংলাদেশে অবস্থান করছেন পাকিস্তানের সাবেক তারকা ক্রিকেটারা শহিদ আফ্রিদি।

গত বৃহস্পতিবার সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে তাকে দেখা যায় কয়েকজন শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলতে। সেই সাক্ষাতের ছবি নিজেই টুইট করে আফ্রিদি জানান, ছেলে-মেয়েগুলো আসলে ভারত শাসিত কাশ্মীরের নাগরিক; বাংলাদেশে পড়াশোনা করতে এসেছেন।

কাশ্মীরের অনেক তরুণ-তরুণী বাংলাদেশে পড়াশোনার জন্য আসেন। তাদের সঙ্গে সাক্ষাতের তিনটি ছবি টুইটারে পোস্ট করে আফ্রিদি লিখেছেন, ‘স্কলারশিপ নিয়ে বাংলাদেশে ডাক্তারি পড়তে আসা ছেলেমেয়েদের সঙ্গে দারুণ আলোচনা হলো। তোমরা কঠোর পরিশ্রম কর এবং কাশ্মীরের মানুষকে গর্বিত কর।’

আফ্রিদির এই টুইট নিয়েই ভারতীয় মিডিয়ায় শুরু হয়েছে জল্পনা। বরাবরই তিনি কাশ্মীর নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। কাশ্মীরের মানুষের জন্য তার মন কাঁদে। জঙ্গি দমনের নামে ওই অঞ্চলের মানুষের উপর দিনের পর দিন অন্যায় হচ্ছে বলেও দাবি তার। তিনি সেই অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেন। কিছুদিন আগেও তিনি কাশ্মীর ইস্যুতে সোশ্যাল সাইটে সরব হয়েছিলেন। তাই বাংলাদেশের মাটিতে কাশ্মীরী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আফ্রিদির এই সাক্ষাত খুব একটা ভালো চোখে দেখছে না ভারতীয় মিডিয়া। এই ঘটনায় অনেকে রাজনৈতিক গন্ধ পাচ্ছেন।

কাশ্মীরের একাধিক সংবাদমাধ্যম দাবি করেছে, আফ্রিদি কোনো বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়েই দেখা করেছেন কাশ্মীরী ছাত্র-ছাত্রীদের সঙ্গে। কী সেই উদ্দেশ্য! সেটা অবশ্য তারা পরিস্কারভাবে বলতে পারেনি। কাশ্মীরের মিডিয়াগুলো দাবি করেছে, আফ্রিদি কাশ্মীরীদের মধ্যে নিজের প্রভাব বিস্তার করতে চাইছেন। তিনি তাদের বোঝানোর চেষ্টা করছেন যে, যে কোনো সমস্যায় আফ্রিদি সব সময় তাদের পাশে রয়েছেন। তিনি হাবে-ভাবে কাশ্মীরীদের সমর্থন জোগানোর দাবি করছেন। ব্যাপারটাকে মোটেও ভালো নজরে দেখছে না দেশের রাজনৈতিকদের একাংশ।

h3>উৎসঃ ‌sangbad247

আরও পড়ুনঃ সিলেটে কাশ্মীরী শিক্ষার্থীদের মাঝে আফ্রিদি; ভারতীয় মিডিয়ায় জল্পনা

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) খেলতে অর্ধমাস ধরে বাংলাদেশে অবস্থান করছেন পাকিস্তানের সাবেক তারকা ক্রিকেটারা শহিদ আফ্রিদি। গত বৃহস্পতিবার সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে তাকে দেখা যায় কয়েকজন শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলতে। সেই সাক্ষাতের ছবি নিজেই টুইট করে আফ্রিদি জানান, ছেলে-মেয়েগুলো আসলে ভারত শাসিত কাশ্মীরের নাগরিক; বাংলাদেশে পড়াশোনা করতে এসেছেন।

কাশ্মীরের অনেক তরুণ-তরুণী বাংলাদেশে পড়াশোনার জন্য আসেন। তাদের সঙ্গে সাক্ষাতের তিনটি ছবি টুইটারে পোস্ট করে আফ্রিদি লিখেছেন, ‘স্কলারশিপ নিয়ে বাংলাদেশে ডাক্তারি পড়তে আসা ছেলেমেয়েদের সঙ্গে দারুণ আলোচনা হলো। তোমরা কঠোর পরিশ্রম কর এবং কাশ্মীরের মানুষকে গর্বিত কর।’

আফ্রিদির এই টুইট নিয়েই ভারতীয় মিডিয়ায় শুরু হয়েছে জল্পনা। বরাবরই তিনি কাশ্মীর নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। কাশ্মীরের মানুষের জন্য তার মন কাঁদে। জঙ্গি দমনের নামে ওই অঞ্চলের মানুষের উপর দিনের পর দিন অন্যায় হচ্ছে বলেও দাবি তার। তিনি সেই অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেন। কিছুদিন আগেও তিনি কাশ্মীর ইস্যুতে সোশ্যাল সাইটে সরব হয়েছিলেন। তাই বাংলাদেশের মাটিতে কাশ্মীরী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আফ্রিদির এই সাক্ষাত খুব একটা ভালো চোখে দেখছে না ভারতীয় মিডিয়া। এই ঘটনায় অনেকে রাজনৈতিক গন্ধ পাচ্ছেন।

কাশ্মীরের একাধিক সংবাদমাধ্যম দাবি করেছে, আফ্রিদি কোনো বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়েই দেখা করেছেন কাশ্মীরী ছাত্র-ছাত্রীদের সঙ্গে। কী সেই উদ্দেশ্য! সেটা অবশ্য তারা পরিস্কারভাবে বলতে পারেনি। কাশ্মীরের মিডিয়াগুলো দাবি করেছে, আফ্রিদি কাশ্মীরীদের মধ্যে নিজের প্রভাব বিস্তার করতে চাইছেন। তিনি তাদের বোঝানোর চেষ্টা করছেন যে, যে কোনো সমস্যায় আফ্রিদি সব সময় তাদের পাশে রয়েছেন। তিনি হাবে-ভাবে কাশ্মীরীদের সমর্থন জোগানোর দাবি করছেন। ব্যাপারটাকে মোটেও ভালো নজরে দেখছে না দেশের রাজনৈতিকদের একাংশ।

Heartening meeting with some Kashmiri students who are in Bangladesh on scholarship, studying Medicine. Keep up the hard work and making your people proud! pic.twitter.com/TLH674X3MW

— Shahid Afridi (@SAfridiOfficial) January 17, 2019
h3>উৎসঃ ‌বিডি টুডে

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here