শুকরানা মাহফিলে নিহত সাইফুলের জানাজা আজ, খোঁজ নেয়নি হাইআতুল উলয়া ও আ’লীগের কেউ!

0
455

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দীতে শুকরানা মাহফিলে এসে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে নিহত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আলহাজ আমেনা বেগম টাইটেল মাদরাসার শিক্ষার্থী সাইফুল ইসলামের (২২) জানাজা আজ।

জানা যায়, আজ বাদ আসর সাইফুল ইসলামের গ্রামের বাড়ি হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুরের পাইলট স্কুল মাঠে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

গতকাল রোববার সোহরাওয়ার্দী ময়দানে অনুষ্ঠিত হয় আল হাইআতুল উলয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশের শুকরানা মাহফিল। এতে অংশ নেয়া সাইফুল ইসলাম প্যান্ডের ভেতর একটি খুঁটিতে বিদ্যুতস্পৃষ্ট হয়ে মারা যান।

মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা সাঈদ আল মামুন আওয়ার ইসলামকে বলেন, ৬২ জন ছাত্র নিয়ে আমি শুকরানা মাহফিলে এসেছিলাম। মাহফিল চলাকালীন একটি খুঁটিতে থাকা বিদ্যুতের লাইনে হাত লাগলে সঙ্গে সঙ্গে সাইফুলের শরীরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়।

তিনি বলেন, গতকাল বিকালেই অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে প্রথমেই ব্রাহ্মণাবিয়ার মাদরাসায় নেয়া হয়। এ সময় মাদরাসা ও এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। মাদরাসা ছাত্রদের মধ্যে কান্নার রুল পড়ে যায়।

রাতেই নিহত সাইফুল ইসলামকে হবিগঞ্জের মাধবপুরে তার নিজবাড়িতে নেয়া হয়। সেখানেও আত্মীয় ও এলাকার লোকদের মধ্যে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয় বলে জানান মাওলানা সাঈদ আল মামুন।

সাইফুল ইসলামের মা, বাবা, তিন বোন ও ছোট দুই ভাই রয়েছে। তবে বাবা থাকেন সৌদি আরবে। আলহাজ আমেনা বেগম টাইটেল মাদরাসায় পড়া শুরু করেন জামাতে মিজান থেকে।

তার মৃত্যুতে মিডিয়া ও স্যোশাল মিডিয়াজুড়ে শোকের মাতম চললেও শুকরানা মাহফিলের আয়োজক হাইআতুল উলয়ার পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক কোনো শোকবার্তা দেয়া হয়নি। এমনকি বোর্ডের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক সমবেদনা বা পরিবারকে সহযোগিতার আশ্বাস জানানো হয়নি বলে জানান মাওলানা সাঈদ আল মামুন।

তিনি বলেন, অনুষ্ঠানে বিদ্যুস্পৃষ্ট হয়ে নিহত হওয়া মর্মান্তিক। তার পরিবার, মাদরাসার শিক্ষক ছাত্র সবাই এ ঘটনায় মর্মাহত। সাধারণত এসব মুহূর্তে আয়োজকদের পক্ষ থেকে শোক, সমবেদনা ও সহযোগিতা শোককে কিছুটা হলেও লাঘব করে।

তবে এ ঘটনায় ইসলামী ঐক্যজোট নেতা মুফতি ফয়জুল্লাহ ও মাওলানা আলতাফ হোসাইন ব্যক্তিগতভাবে খোঁজ নিয়েছেন বলে তিনি জানান।

এছাড়া মাদরাসার পক্ষ থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাওলানা সাজিদুর রহমান ও মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা কিছু ব্যবস্থা নেবেন বলে জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, কওমি মাদরাসার সনদের আইন পাস হওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা উপলক্ষে গতকালের শুকরানা মাহফিলে সারাদেশ থেকে জড়ো হয়েছিল কয়েক লক্ষ উলামায়ে কেরাম ও মাদরাসা শিক্ষার্থী।

সাইফুল ইসলাম ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর ইসলামপুরের আলহাজ আমেনা বেগম টাইটেল মাদরাসার মেশকাত জামাতের শিক্ষার্থী। মাদরাসার অন্যান্য শিক্ষার্থীর সঙ্গে তিনিও শুকরানা মাহফিলে এসেছিলেন। মাহফিল চলাকালীন প্যান্ডের ভেতর একটি খুঁটিতে থাকা বিদ্যুতের লাইনে হাত লাগলে সাইফুলের শরীরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়। সঙ্গে সঙ্গে তাকে ঢাকা মেডিকেলে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

উৎসঃ আওয়ার ইসলাম

আরও পড়ুনঃ ‘বিদুৎস্পৃষ্ট হয়ে’ শেখ হাসিনার ‘শোকরানা মাহফিলে’ আসা মাদ্রাসা ছাত্রের মৃত্যু!

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শোকরানা মাহফিলে অংশ নিতে আসা এক মাদ্রাসা ছাত্র বিদুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা গেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সাইফুল ইসলাম নামের ২২ বছর বয়সী ওই যুবক ব্রাহ্মবাড়িয়ার ইসলামপুর টাইটেল মাদ্রাসার মেসকাত ফাজিলের ছাত্র ছিলেন। অন্যদের সঙ্গে তিনিও শোকরানা মাহফিলে অংশ নিতে ঢাকায় এসেছিলেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এসআই বাচ্চু মিয়া বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের কাছেই কোনোভাবে বিদুৎস্পৃষ্ট হন সাইফুল।

“তাকে হাসপাতালে আনা হলে বেলা পৌনে ১টার দিকে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। যারা তাকে নিয়ে এসেছিল, তারা ঘটনাটা খুব স্পষ্টভাবে কেউ বলতে পারেননি।”

সাইফুলের সঙ্গীদের বরাত দিয়ে বাচ্চু মিয়া জানান, ওই মাদ্রাসা ছাত্রের বাড়ি হবিগঞ্জের মাধবপুরের ধনবাজার এলাকায়।

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here