রাজউকের প্ল্যান পাসের ফাইল গায়েব: রাজধানীর কেন্দ্রস্থলে অবৈধ ২০ তলা ভবন ‘ইউনিক হাইটস’

0
107

একটি প্রভাবশালী জালিয়াত চক্রের যোগসাজশে রাজধানীর কেন্দ্রস্থল রমনায় সরকারি খাস জমিতে অবৈধভাবে গড়ে তোলা হয়েছে বোরাক রিয়েল এস্টেটের ২০ তলা বিশিষ্ট সুউচ্চ ভবন ইউনিক হাইটস। জাল জালিয়াতির মাধ্যমে সরকারি জমিতে এই ভবন নির্মাণ নিয়ে খবর প্রকাশের পর রাজউক, ভূমি মন্ত্রণালয় প্রাথমিকভাবে নড়েচড়ে বসলেও এখন পর্যন্ত কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের এই নীরব ভূমিকার কারণে সরকারি জমিতে অবৈধভাবে গড়ে তোলা ২০ তলা ভবনটিতে যারা স্পেস কিনেছেন তারা এখন বিপাকে পড়েছেন। আইনগত বৈধতা না থাকায় ফ্লোরগুলির ক্রেতারা রেজিস্ট্রেশন নিতে পারছেন না।

জানা যায়, রাজধানীর কেন্দ্রস্থল রমনায় ভিআইপি রোড নামে পরিচিত কাজী নজরুল ইসলাম রোডে কয়েকশ কোটি টাকা মূল্যের ২৫ কাঠা খাস জমিতে জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে অবৈধভাবে এই ভবন গড়ে তোলা হয়েছে। এ নিয়ে খবর প্রকাশের পর কীভাবে সরকারি জমিতে রাজউক এই সুউচ্চ ভবন নির্মাণের অনুমতি দিলো তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। তবে নিজেদের বাঁচাতে ইউনিক হাইটস সংক্রান্ত সব নথিপত্র গায়েব করে দিয়েছে রাজউক।

রাজউক চেয়ারম্যানও এই মহা জালিয়াতির নথিপত্র গায়েবের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা উঠে এসেছে। এদিকে ইউনিক হাইটস যে সরকারি খাস জমিতে গড়ে তোলা হয়েছে ভূমি অফিস জমিটির মালিক দাবিদারদের উন্নয়ন কর গ্রহণ না করার কারণে ইতিমধ্যে মালিকানা সংক্রান্ত দাবিনামা ভুয়া প্রমাণিত হয়েছে। যারা জমিটির মালিক দাবি করছেন তাদের পক্ষে খতিয়ান নেই, নামজারি নেই। মালিকানার কাগজপত্র ভুয়া হওয়ায় খাজনা পরিশোধের আবেদন নাকচ করে দিয়েছে রমনা ভূমি অফিস।

রাজউকের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানিয়েছে, বোরাক রিয়েল এস্টেটের এই ইউনিক হাইটস ভবন নির্মাণের জন্য রাজউক থেকে ছাড়পত্র নেয়া ও নকশা অনুমোদনের সময় ভুয়া কাগজপত্র জমা দেয়া হয়েছিল। সাম্প্রতিক সময়ে এই ভবনের বৈধতা নিয়ে লেখালেখি শুরু হলে রাজউকের এ সংক্রান্ত ফাইল গায়েব করে ফেলা হয়। এই ফাইল গায়েবের সঙ্গে রাজউকের সাবেক চেয়ারম্যান মো. আবদুর রহমান সরাসরি জড়িত বলে জানা গেছে।

এই জমির মালিকানার যে কাগজপত্র, তা ভুয়া বা জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে তৈরি করা হয়েছে। এমনকি নামজারি, খাজনা-খারিজের কাগজপত্রও ভুয়া তৈরি করা হয়েছে। এসব ভুয়া কাগজপত্র রাজউকে জমা দিয়ে ভবন নির্মাণের ছাড়পত্র নেয়া হয়েছে এবং প্ল্যান পাস করানো হয়েছে। এর সঙ্গে রাজউকেরও দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা জড়িত রয়েছে। এখন ফাইল বের করলে সেইসব ভুয়া কাগজপত্র ধরা পড়ে যাবে। তাই ফাইল গায়েব করে রাখা হয়েছে।

জানা যায়, রাজধানীর রমনা থানার পূর্বপার্শ্বে, ইস্কাটন গার্ডেন রোড থেকে শুরু করে একেবারে দক্ষিণে কাকরাইল পর্যন্ত এই পুরো এলাকাটি সরকারি জমি। পাকিস্তান আমলে এখানে একটিমাত্র প্লট ডাক্তার আব্দুল বাসিতকে বরাদ্দ দেয়া হয়। এছাড়া বেসরকারি কোনও ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে কোনও জমি বা প্লট বরাদ্দ বা লিজ দেয়া হয়নি। ডাক্তার আব্দুল বাসিত ছিলেন তৎকালীন পাকিস্তানের শাসক জেনারেল আইয়ুব খানের ব্যক্তিগত চিকিৎসক। সেই সুবাদে ১৯৫৬ সালে তাকে ২৫ কাঠা আয়তনের এই প্লটটি লিজ দেয়া হয়েছিল বিশেষ বিবেচনায় এবং বিশেষ শর্তে। জমিটি দেয়া হয়েছিল ৩০ বছরের জন্য। আব্দুল বাসিত মারা যাওয়ার পর তার কোনও উত্তরাধিকারী ছিল না। তিনি জীবিত থাকতেই লিজের মেয়াদ অনেক আগে শেষ হয়ে গিয়েছিল। উত্তরাধিকারী না থাকায় লিজ নবায়নের জন্য আবেদনও করেননি আব্দুল বাসিত। ফলে দীর্ঘদিন জমিটি সেই অবস্থায়ই ছিল। কিন্তু অবশেষে এই জমির উপর চোখ পড়ে বোরাক রিয়েল এস্টেট মালিকের। আব্দুল বাসিতের এক ভাতিজাকে দাঁড় করিয়ে জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে ব্যাক ডেটে তার নামে মৌখিক দানপত্র তৈরি করা হয়। তাকে মালিক সাজিয়ে ভুয়া কাগজপত্রে জমিটি হাতিয়ে নেয়া হয়। সেই জমিতেই গড়ে উঠেছে দেশের অন্যতম সুউচ্চ ভবন ‘ইউনিক হাইটস’।

উল্লেখ্য, ডা. আবদুল বাসিত, পিতা মৃত আলহাজ্ব মৌলভী মফিজউদ্দিন আহমেদ বরাবর তার বসবাসের জন্য ২০ নম্বর ময়মনসিংহ রোড হোল্ডিংভুক্ত সম্পত্তি ১৯৫৬ সালের ২৮ মে শর্তসাপেক্ষে নামমাত্র মূল্যে দেয়া হয়। তৎকালীন ঢাকার জেলা প্রশাসক ৩০ বছরের জন্য ২৫ কাঠা বা ০.৪১২৫ একর খাস জমির এই লিজ দলিল করেন। সাবেক খতিয়ানভুক্ত সাবেক ১৯ ও ২০ নম্বর দাগভুক্ত এই জমিটি ৫৯১৬ নম্বর রেজিস্ট্রিকৃত লিজ দলিলমূলে লিজ দেয়া হয়। শুধু এই প্লটটি ছাড়া এর আশেপাশে সবগুলো জমিই এখনো সরকারের মালিকানায়ই রয়েছে। এই প্লটটি তখন বিশেষ বিবেচনায় এবং বিশেষ শর্তে ডা. আব্দুল বাসিতকে বসবাসের জন্য দেয়া হয়েছিল। লিজের রেজিস্ট্রিকৃত দলিলে বলা হয়েছে, নি¤œ তফসিলভুক্ত সম্পত্তি কিংবা উহার কোন অংশ কোন প্রকার হস্তান্তর করা যাবে না। এছাড়া বলা হয়েছে, নি¤œ তফসিলভুক্ত সম্পত্তি যে উদ্দেশ্যে লিজ দেওয়া হয়েছে সেই উদ্দেশ্য ব্যতিত অন্য কোনও উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা যাবে না। লিজকৃত সম্পত্তি লিজদাতা অর্থাৎ সরকার প্রয়োজনে যে কোনও সময় ফেরত নিতে পারবে এবং লিজ গ্রহীতা উক্ত সম্পত্তির মালিকানা ও দখল হস্তান্তর করতে বাধ্য থাকবেন। অন্যথায় লিজদাতা অর্থাৎ সরকার লিজ গ্রহীতাকে উচ্ছেদ করে সম্পত্তির দখল গ্রহণ করতে পারবে।

অথচ বোরাক রিয়েল এস্টেট এই সম্পত্তিতে ‘ইউনিক হাইটস’ নামে ২০ তলাবিশিষ্ট সুউচ্চ ভবন নির্মাণের সময় যেসব কাগজপত্র তৈরি করেছে তাতে বলা হয়েছে, ১৯৮১ সালের ১৬ মার্চ ডা. আব্দুল বাসিত লিজ সম্পত্তি তার স্ত্রী বেগম সুফিয়া বাসিত ও ভাতিজা (ভাইয়ের ছেলে) মোহাম্মদ ইকরামকে (প্রত্যেককে সাড়ে ১২ কাঠা করে মোট ২৫ কাঠা) দান করেছেন। কিন্তু, এই দানপত্র রেজিস্ট্রিকৃত ছিল না। তিনি নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে এই দানপত্রের ঘোষণা দেন বলে দাবি করা হয়, যা মৌখিক দানপত্র নামে পরিচিত। এখানে তিনটি অনিয়ম হয়েছে, প্রথমত: লিজ দলিলের শর্ত এতে ভঙ্গ করা হয়েছে। দ্বিতীয়ত: এইটি রেজিস্ট্রিকৃত দানপত্র ছিল না। আসলেই ওই সময় এই সম্পত্তি দান করা হয়েছিল কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। তৃতীয়ত: সরকারের আইনানুযায়ী ভাতিজাকে সম্পত্তি দান করা যায় না।

বর্তমানে যারা এই সম্পত্তির মালিকানা দাবি করছেন তাদের কাগজপত্রে আরও দেখা যায়, ডা. আব্দুল বাসিতের স্ত্রী বেগম সুফিয়া বাসিত মারা গেছেন ১৯৮৭ সালের ২০ জুলাই। আব্দুল বাসিত ইতিপূর্বে তার যে এই লিজ সম্পত্তির অর্ধেক (সাড়ে ১২ কাঠা) বেগম সুফিয়া বাসিতকে দান করেছিলেন সেটি সুফিয়া বাসিত মারা যাওয়ার আগে নোটারি পাবলিক অর্থাৎ মৌখিক দানপত্রের মাধ্যমে ১৫ মার্চ, ১৯৮৬ পুনরায় স্বামী আব্দুল বাসিতকে দান করেন। আব্দুল বাসিত সেটি আবার নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে ভাতিজা মোহাম্মদ ইকরামকে দান করেছেন ১৭ মার্চ ১৯৮৮ সালে। মোহাম্মদ ইকরাম এভাবেই পুরো লিজ সম্পত্তির (২৫ কাঠা) মালিক হয়েছেন বলে দাবি করা হচ্ছে। এবং মোহাম্মদ ইকরাম ডেভেলপার হিসেবে বোরাক রিয়াল এস্টেটকে এই সম্পত্তি হস্তান্তর করেছেন। তাতে গড়ে উঠেছে ২০ তলা বিশিষ্ট সুউচ্চ এই কমার্শিয়াল ভবন ‘ইউনিক হাইটস’।

এক্ষেত্রে প্রধান বিবেচ্য বিষয় হচ্ছে, জমিটি লিজ দেয়া হয়েছিল ৩০ বছরের জন্য, যার মেয়াদ ১৯৮৬ সালেই শেষ হয়েছে। লিজের মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও ইতিমধ্যে আরও ৩১ বছর পার হয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত লিজ নবায়নের জন্য কেউ আবেদনও করেননি। তাছাড়া এ ধরনের আবেদনের এখন আর সুযোগও নেই। কারণ, লিজ গ্রহণকারী বর্তমানে জীবিত নেই। তার বৈধ কোনও উত্তরাধিকারীও নেই। মোহাম্মদ ইকরাম বরাবরে এখন যে দানপত্র দেখানো হচ্ছে তা রেজিস্টিকৃত নয়। নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে দানের যেসব কাগজপত্র তৈরি করা হয়েছে তা বস্তুত ভুয়া বা ফেইক বলে মনে করছেন ভূমি অফিসের কর্মকর্তারা। দানপত্র সঠিক হলেও মোহাম্মদ ইকরাম কোনোভাবেই এক্ষেত্রে সম্পত্তির মালিক হতে পারেন না। এর কারণ, দানপত্র সংক্রান্ত সরকারের যে আইন রয়েছে তাতে বলা হয়েছে দানপত্র মোট ৮ জনের মধ্যে করা যায়। এরা হলেন বাবা-মা, স্বামী-স্ত্রী, ছেলে-মেয়ে, ভাই-বোন। মোহাম্মদ ইকরাম লিজ গ্রহীতা ডা. আব্দুল বাসিতের সম্পর্কে ভাতিজা। যেহেতু মোহাম্মদ ইকরাম এই ৮ জনের মধ্যে নন, কাজেই তিনি এ দানপত্র পেতে পারেন না। এছাড়া যেসব শর্তে জমিটি লিজ দেয়া হয়েছিল তা ব্যাপকভাবে লঙ্ঘন করা হয়েছে। এসব কারণে জমিটির লিজের কার্যকারিতা এখন নেই। এ জমির সম্পূর্ণ মালিকানা এখন সরকারের। অথচ সরকারি এই জমিতে ‘ইউনিক হাইট’ নামে বহুতল ভবন নির্মাণ করে বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নিকট বিক্রির চেষ্টা চলছে।

উৎসঃ (সাপ্তাহিক শীর্ষকাগজে ৮ জুলাই ২০১৯ প্রকাশিত)

আরও পড়ুনঃ প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে ব্যরিস্টার সুমনের রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা খারিজ


মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে অসত্য তথ্য দেওয়ার অভিযোগে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমনের ‘রাষ্ট্রদ্রোহ’ মামলার আবেদন খারিজ করেছেন আদালত।

আজ রোববার ঢাকা মহানগর হাকিম জিয়াউর রহমানের আদালতে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলার আবেদন করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সুমন।

পেনাল কোডের ১২৩ (এ), ১২৪ (এ) ও ৫০০ ধারায় মামলাটি আমলে নেওয়ার জন্য ব্যারিস্টার সুমন আদালতে আবেদন করেন। পরে দুপুরে বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে মামলা খারিজের আদেশ দেন আদালত।

গত ১৬ জুলাই মর্কিন প্রেসিেিডন্টের হোয়াইট হাউসে ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার ২৭ ব্যক্তির সঙ্গে বৈঠক করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেখানে ১৬টি দেশের প্রতিনিধি অংশ নেন। সেখানে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহা প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ পান।

সে সময় প্রিয়া সাহা মার্কিন প্রেসিডেন্টকে বলেন, ‘আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। বাংলাদেশে ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিষ্টান নিখোঁজ রয়েছেন। দয়া করে আমাদের লোকজনকে সহায়তা করুন। আমরা আমাদের দেশে থাকতে চাই।’

এর পর তিনি বলেন, ‘এখন সেখানে ১ কোটি ৮০ লাখ সংখ্যালঘু রয়েছে। আমরা আমাদের বাড়িঘর খুইয়েছি। তারা আমাদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে, তারা আমাদের ভূমি দখল করে নিয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো বিচার পাইনি।’

ভিডিওতে দেখা গেছে, এক পর্যায়ে ট্রাম্প নিজেই সহানুভূতির সঙ্গে এই নারীর সঙ্গে হাত মেলান। প্রিয়া সাহা আর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যকার কথোপকথন প্রকাশ পেলে তা নিয়ে দেশে সমালোচনার ঝড় ওঠে। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকেও তীব্র নিন্দা জানানো হয়।

উৎসঃ আমাদের সময়, যমুনা টিভি, ডিবিসি নিউজ

আরও পড়ুনঃ প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধ কোন মামলা না করতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীঃ ওবায়দুল কাদের/span>

হিন্দুদেরমার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের সংখ্যালঘু পরিস্থিতি নিয়ে নালিশ করা প্রিয়া সাহাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ না দিয়ে কোনো ধরনের আইনি প্রক্রিয়া শুরু না করতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ রোববার দুপুরে একথা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

এর আগে রোববার সকালে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার দুটি মামলা করা হয়েছে।

ঢাকার সিএমএম আদালতে একটি মামলা করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমন। আর অপর মামলাটি করেছেন ঢাকা বারের আইনজীবী সমিতির বর্তমান কার্যকরী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট মো. ইব্রাহিম খলিল।

এ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, প্রিয়া সাহা কেন এমন কাজ করেছেন এ বিষয়ে তার আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ থাকা উচিত। আপাতত তার বিরুদ্ধে কোনো ধরনের আইনি প্রক্রিয়া শুরু করার দরকার নাই।

জনগণকে যানজট থেকে স্বস্তি দিতে সরকার কাজ করছে জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, বড় বড় প্রজেক্টের কারণে কিছুটা দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। দুর্ভোগ সহনীয় করার চেষ্টা চলছে। প্রজেক্ট শেষ হলে স্বস্তি মিলবে।

এ সময় ২০২১ সালের ডিসেম্বরে ম্যাস রেপিড ট্রানজিট (এমআরটি) লাইন-৬ এর উদ্বোধন করা হবে বলেও জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

উৎসঃ আমাদের সময়, যমুনা টিভি, ডিবিসি নিউজ

আরও পড়ুনঃ শেখ হাসিনার দেশবিরোধী চক্রান্তের ধারাবাহিকতা রক্ষা করছে প্রিয়া সাহা!


হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেত্রী প্রিয়া সাহা গত বৃহস্পতিবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে গিয়ে মুসলমানদের বিরুদ্ধে তথা ইসলামী সংগঠনগুলোর বিরুদ্ধে হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা-ভাঙচুর ও জমিদখলের অভিযোগ করেছেন। প্রিয়া সাহার অভিযোগ-ইসলামী মৌলবাদীরা দেশ থেকে ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দুকে বের করে দিয়েছে। তাদের জায়গা জমি দখল করে নিয়েছে। ভিডিওতে দেখা গেছে, তার অভিযোগ শুনে প্রেসিডেন্ট খুবই ক্ষুব্ধ হয়েছেন। আর এমন অভিযোগ শুনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ক্ষুব্ধ হওয়ারই কথা।

প্রিয়া সাহার এই বক্তব্যের ভিডিও প্রকাশের পরই এনিয়ে সারাদেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়ে গেছে। নড়েচড়ে বসেছে সরকারও। একথায় সবাই প্রিয়া সাহার দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তি দাবি করছে। রাজনৈতিক অঙ্গনসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দুই দিন ধরে শুধু প্রিয়া সাহাকে নিয়ে চলছে আলোচনা সমালোচনা। প্রিয়া সাহা এই দুঃসাহস কোথায় থেকে পেল এমন প্রশ্নই ঘুরেফিরে তুলছেন সকল শ্রেণি পেশার মানুষ।

এদিকে, সরকারের মন্ত্রীরাও প্রিয়া সাহার এই অভিযোগকে দেশের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র বলে মনে করছেন। প্রিয়ার বক্তব্যকে দেশদ্রোহী বলেও মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আর অভিযোগ প্রমাণ করতে না পারলে প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে গিয়ে দেশের বিরুদ্ধে তথা মুসলিম সম্প্রদায়ের অভিযোগ করে প্রিয়া সাহা যে গর্হিত অপরাধ করেছেন তাতে প্রশ্ন তোলার কোনো সুযোগ নেই। তার এই বক্তব্যে রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুন্ন হয়েছে। এমনকি এটা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে তথা এদেশের মুসলমানদের বিরুদ্ধে এক গভীর ষড়যন্ত্রও বটে।

এখন প্রশ্ন হলো-প্রিয়া সাহা মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে গিয়ে দেশের বিরুদ্ধে এমন মিথ্যা অপপ্রচার করার সাহসটা কোথায় পেল? বিদেশে গিয়ে দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার কি শুধু প্রিয়া সাহাই করেছেন নাকি আগেও এমন হয়েছে? বিগত দিনের ইতিহাসের দিকে তাকালে দেখা যায়, এমন অপপ্রচারের সঙ্গে এক সময় শেখ হাসিনা এবং তার দলের নেতারাও জড়িত ছিলেন।

স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত আওয়ামী লীগকে দুটি এজেন্ডা নিয়েই মাঠ গরম করতে দেখা যায়। তারা সরকারে থাকলে বিরোধী দলকে আর বিরোধী দলে থাকলে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে একটি বিষয়ে বেশি প্রচারণা চালিয়ে থাকে। এটি হলো হলো সংখ্যালঘু নির্যাতন। দলটি অতিমাত্রায় ভারতঘেঁষা হওয়ার কারণে বাংলাদেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকজনও তাদের একটু বেশি ভালবাসে। আর এ সুযোগটাকেই আওয়ামী লীগ কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের অপচেষ্টা চালিয়ে আসছে। তারা নিজেরাই সংখ্যালঘুদের বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ও আগুন দিয়ে মন্দির, প্যাগোডা ও গির্জা পুড়িয়ে দিয়ে পরে বিরোধী দলের ওপর দোষ চাপানোর চেষ্টা চালায়। বাংলাদেশের কিছু কিছু জায়গায় বিভিন্ন সময়ে সংখ্যালঘুদের বাড়িঘর ও ধর্মীয় উপাসনালয়ে হামলা-ভাংচুর ও আগুন দেয়ার যে ঘটনা ঘটেছে তদন্তের পর দেখা গেছে, আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের লোকেরাই জড়িত ছিল। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার মাধ্যমে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিল করতে গিয়ে তাদের জন্য হিতে-বিপরীত হয়েছে।

বিশেষ করে ২০০১ সালের ১ অক্টোবরের সংসদ নির্বাচনে ব্যাপক ভরাডুবির পর বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বাধীন জোট সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে কথিত সংখ্যালঘু নির্যাতনের ইস্যু নিয়ে মাঠে নেমেছিলেন শেখ হাসিনা। ঢাকায় অবস্থিত বিদেশি দূতাবাসগুলোতেই শুধু অভিযোগ দেননি। বিদেশে গিয়েই শেখ হাসিনা অভিযোগ করেছেন যে, বাংলাদেশ এখন তালেবানি রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। ইসলামী দলগুলোকে নিয়ে খালেদা জিয়া দেশকে আফগানিস্তান বানানোর চেষ্টা করছে। বিশেষ করে বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসার হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টানদের বাড়িঘরে হামলা-ভাঙচুর চালাচ্ছে। তাদের জমি দখল করে নিচ্ছে। তারা এখন দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাচ্ছে। এসব প্রচারের কাজে শেখ হাসিনা তখন আওয়ামী পন্থী বুদ্ধিজীবী হিসেবে পরিচিত শাহরিয়ার কবিরসহ অন্যদেরকেও ব্যবহার করেছেন।

আর সবচেয়ে লক্ষণীয় বিষয় ছিল-বিদেশিদের কাছে করা এসব অভিযোগ প্রমাণ করতে শেখ হাসিনা তার সোনার ছেলে ছাত্রলীগ-যুবলীগ দিয়ে হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা-ভাঙচুর করিয়েছে। নারীদের ওপর নির্যাতন করিয়েছে। আগুন দিয়ে হিন্দুতের বাড়িঘর পুড়ে এগুলোর ফুটেজ ও ছবি বিদেশিদের হাতে দিয়েছে।

এখানে পাঠকদের জন্য সেই সময়কার অল্প কিছু ঘটনা তুলে ধরছি- ১৪ অক্টোবর ২০০১ তারিখে পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার বিষ্ণপুর গ্রামের নিশিপাড়ায় কালিমন্দির ভাঙ্গা হয়। আওয়ামী লীগের লোকজন এর দায় চাপায় বিএনপি-জামায়াতের ওপর। পরে পুলিশ রিপোর্টে বেরিয়ে আসে আসল তথ্য। আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরাই এর সাথে জড়িত ছিল। এ রিপোর্ট প্রকাশের পর পুরো এলাকায় হৈচৈ পড়ে যায়। গা-ঢাকা দেয় আওয়ামী লীগের অনেক নেতা। আবার অনেকে আপস করার জন্য ধরনা দেয় পুলিশের কাছে।

৮ অক্টোবর ২০০১ তারিখে খুলনার পাইকগাছা থানার কাশিমনগর গ্রামের আলোপাড়া পূজামণ্ডপ ভাংচুরের কারণে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের ৪ নেতাকর্মী গ্রেফতার হয়।

১২ অক্টোবর ২০০১ তারিখে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে হিন্দু-বদ্ধ-খৃস্টান ঐক্যপরিষদের উদ্যোগে মাইনোরিটিস সংখ্যালঘু নির্যাতন: কারণ ও প্রতিকার শীর্ষক এক সেমিনারে সংখ্যালঘু নেতারাই অভিযোগ করেছিলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা সংখ্যালঘুদের রাজনৈতিকভাবে ব্যবহারের চেষ্টা চালিয়ে আসছেন। এরা সংখ্যালঘুদের উস্কানি দিয়ে তাদের বিপাকে ফেলে তা থেকে ফায়দা লুটতে চান।

আর সংখ্যালঘু নির্যাতনের কল্পিত কাহিনী তৈরির মূলহোতা ছিল ঘাদানিক নেতা শাহরিয়ার কবির। শাহরিয়ার কবির ১১ নবেম্বর ২০০১ তারিখে ভারতে গিয়ে কথিত সংখ্যালঘু নির্যাতনের নামে হিন্দুদের দিয়ে প্রামাণ্য চিত্র তৈরি করেছিল। উদ্দেশ্য ছিল এগুলোকে দেশে-বিদেশে ছড়িয়ে দেয়া। ২৪ নভেম্বর ২০০১ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিমানবন্দরে আপত্তিকর ক্যাসেটসহ শাহরিয়ার কবির আটক হয়। শাহরিয়ার কবিরের কাছ থেকে জব্ধ করা ক্যাসেটের দৃশ্য দেখে গোয়েন্দারাও হতবাক হয়ে পড়েছিল। তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের পর বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য। এর পরই মুখোশ উন্মোচিত হয়ে যায় আওয়ামী লীগের। কথিত সংখ্যালঘু নির্যাতনের ধোঁয়া তুলে জোট সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে আওয়ামী লীগ যে চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র করেছিল তা ফাঁস হয়ে পড়ে।

এছাড়া সবচেয়ে হাস্যকর বিষয় ছিল-বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের দলীয় অফিসে লঙ্গরখানা খুলে সারা দেশের সংখ্যালঘুদের এখানে এসে আশ্রয় নেয়ার আহ্বান জানান শেখ হাসিনা। তাদের এই লঙ্গরখানায় যারা আশ্রয় নিয়েছিল তারা কেউ নির্যাতিত ছিল না। বস্তির বাসিন্দা, ফুটপাত ও পার্কে অবস্থানকারীরা খাওয়ার জন্য তাদের এই কথিত লঙ্গরখানায় আশ্রয় নিয়েছিল। মজার ব্যাপার হলো আওয়ামী লীগের এই লঙ্গরখানায় অবস্থানকারীদের অর্ধেকই ছিল মুসলমান ভিক্ষুক। ঢাকার বাইরে থেকে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নির্যাতিত কোন লোক না আসায় অবস্থা বেগতিক দেখে এক পর্যায়ে তারা লঙ্গরখানা বন্ধ করতে বাধ্য হয়। দেশের বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘু নির্যাতনের যে অভিযোগ তারা তুলছিল তা ছিল সম্পুর্ণ মিথ্যা।

এসব ঘটনা থেকে নিশ্চয় প্রমাণিত হয় যে, বিদেশ গিয়ে দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের সূচনা মূলত করেছিলেন শেখ হাসিনা ও তার দলের নেতারা। রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত মূলত শেখ হাসিনাই শুরু করেছিলেন। এদেশের ইসলামী দলগুলোকে নির্মূল করার জন্য তাদেরকে সন্ত্রাসী ও জঙ্গি হিসেবে প্রমাণ করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে যত লবিং করার দরকার ছিল শেখ হাসিনা ও তার ছেলে জয় সবই করেছেন। এখন প্রিয়া সাহা শুধু তাদের সেই ধারাবাহিকতা রক্ষা করছেন মাত্র।

উৎসঃ অ্যানালাইসিস বিডি

আরও পড়ুনঃ ‘এতদিন দুধ কলা দিয়ে যাকে পুষলেন আজ তারই ছোঁবল খেলেন’: হাসিনাকে ড. তুহিন মালিক

এতদিন দুধ কলা দিয়ে যাকে পুষলেন আজ তারই ছোঁবল খেলেন!

প্রথমে তারা আপনাকে মসজিদ, মাদরাসা, মৌলবাদী, সাম্প্রদায়িক বিরোধী আন্দোলনে নামালো।

এরপর যুদ্ধাপরাধী ইস্যুতে সংখ্যাগরিষ্ঠ ধর্মকে প্রতিপক্ষ বানিয়ে ইসলামকে গালাগালি শুরু করালো।

জাতিকে পরিস্কার দুই ভাগে বিভাজন করে রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে ধর্মীয় বিদ্বেষ, জাতিগত ও ধর্মীয় ঘৃণার প্রসার-প্রচারনা শুরু করালো।

বিভক্ত জাতির গণতন্ত্রের হত্যার জন্য আপনাকে চিরস্থায়ী ক্ষমতার লোভ দেখিয়ে ৫ই জানুয়ারির একদলীয় নির্বাচন করালো।

যুদ্ধাপরাধী ও মৌলবাদী ইস্যুর পর নতুন এক জঙ্গি ইস্যু তৈরি করে দেশ-বিদেশে রাষ্ট্রকে উগ্র মুসলিম জঙ্গি রাষ্ট্রের তকমা দেয়া হলো।

বিনিময়ে মিডনাইট ভোটের সরকার উপহার দিলো।

প্রতিদান রক্ষা করতে গিয়ে আপনি ট্রানজিট, বানিজ্য, রেমিটেন্স, বন্দর থেকে শুরু করে সবকিছু এমনিভাবেই উজাড় করে দিলেন যে, শেষ পর্যন্ত আপনাকেই বলতে হলো- ‘ভারতকে যা দিয়েছি আজীবন মনে রাখবে।’

রাষ্ট্রের প্রতিটি সেক্টর থেকে শুরু করে আপনার নিরাপত্তার ভার পর্যন্ত তাদের হাতে তুলে দিয়ে আপনার আনুগত্য প্রদর্শনে কোন কমতিই করলেন না।

গণহারে গুম, মামলা চালালেন আপনার সমালোচকদের বিরুদ্ধে।

আপনার ভয়ে ভীত সন্ত্রস্ত গোটা জাতি নিরবে সহ্য করেছে তাদের সর্বময় দাপট।

দুধ কলা দিয়ে পুষে আপনার রাজনৈতিক বিরোধী ও সমালোচকদের বিরুদ্ধে তাদেরকে ব্যবহার করেছেন। তার জন্য তাদেরকে যেমন দিয়েছেন সর্বময় ক্ষমতা, তেমনি দিয়েছেন সর্বময় দায়মুক্তি।

পীযূষরা যখন দাড়ি টুপি ও টাখনুর উপরে কাপড় পড়াকে জঙ্গি বলে একযোগে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়েছে। আপনি তখন নিশ্চুপ!

ইকসন যখন তাদের ধর্মীয় বাণী পড়িয়ে স্কুলের মুসলিম বাচ্চাদের প্রসাদ খাওয়ালো। আপনি তখন নিশ্চুপ!

যখনই তারা কোন অপরাধ করেছে আপনার সাজানো প্রশাসন ও মিডিয়া দিয়ে সেটাকে মিথ্যা প্রমান করে উল্টা সেই দায়ভার সংখ্যাগরিষ্ঠের উপর চাপিয়ে দিয়েছেন।

অন্যদিকে সংখ্যাগরিষ্ঠের সেন্টিমেন্টকে ধরে রাখতে আপনাকে মদিনা সনদে দেশ চালানো, ওলী-আউলিয়া, কওমী জননী, তাহাজ্জুদ, সকালে কোরআন না পড়ে কাজ শুরু না করা, আপনার দোয়ায় খেলায় জয়ী হওয়া… ইত্যকার নাটক করতে হয়েছে।

দিনশেষে আপনি শুধু ম্যানেজারই রয়ে গেলেন, মালিকানা পেলেন না! কারন, মালিককে দেয়ার মত আর কিছুই যখন অবশিষ্ট থাকে না, ম্যানেজারের তখন আজকের মত এই অবস্থাতেই পড়তে হয়।

পুনশ্চ- হ্যাঁ, আপনার অন্ধ লোকদেখানো গুণগ্রাহীরা আমার এই বক্তব্য দেখে আমাকে আবারও রাজাকার, রাষ্ট্রদ্রোহী বলবে। আপনারা তো পারেন শুধু শহীদুল আলম, মাহমুদুর রহমান, মাহফুজ আনাম, মাহমুদুর রহমান মান্না, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আর তুহিন মালিকদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহীতার মামলা করতে!

উৎসঃ ড. তুহিন মালিকের ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে

আরও পড়ুনঃ ‘এই মন্তব্য আমেরিকায় বাংলাদেশের মুসলমানদের আরো নিরাপত্তাহীনতায় ফেলতে পারে’


মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশে ৩৭ মিলিয়ন হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান গুমের অভিযোগের বিষয়ে প্রিয়া সাহার বক্তব্য নিয়ে চলছে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা। তিনি বাংলাদেশের হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক। তিনি দুর্নীতি দমন কমিশনের একজন কর্মচারী বলেও জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রিয়া সাহার গ্রামের বাড়ি পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলায় চরবানিরীর মাটিভাঙ্গাতে। তার স্বামীর নাম মলয় সাহা। পরিবার নিয়ে থাকেন ঢাকায়। দুই মেয়ে যুক্তরাষ্ট্রে পড়াশুনার সুবাদে প্রিয়া সাহা প্রায়ই সেদেশে যাতায়াত করেন।

প্রিয়া সাহার এই মিথ্যা অভিযোগটি আমেরিকায় থাকা বাংলাদেশের সাধারণ মুসলমানদের আরো নিরাপত্তাহীনতার আশংকায় ফেলতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল।

এনিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুল নিজের ফেসবুক পাতায় লেখেন, ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিও-তে দেখা যাচ্ছে একজন ভদ্রমহিলা (কেউ কেউ বলেছেন তার নাম প্রিয়া সাহা) আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প-এর কাছে বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নিপীড়নের অভিযোগ করেছেন। তিনি বলেছেন বাংলাদেশে ৩ কোটি ৭০ লক্ষ ধর্মীয় সংখ্যালঘু ‘ডিসএপিয়ার’ (অদৃশ্য/দেশত্যাগে বাধ্য?) হয়ে গেছেন। তিনি বলেছেন মুসলিম মৌলবাদীরা এটা করেছে এবং তারা সবসময় রাজনৈতিক শেল্টার পেয়েছে।

তিনি আরও বলেন, প্রিয়া সাহার অভিযোগ অবিশ্বাস্য। এটি যদি সত্যি না হয় তাহলে তা দুঃখজনক এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির প্রতি উস্কানিমূলক। সরকারের বিষয়টি সিরিয়াসলি নেয়া উচিত। কারন এতে দেশের ইমেজ ক্ষুন্ন হতে পারে। এ বক্তব্য এমনকি ট্রাম্পের দেশে বাংলাদেশের সাধারন মুসলমানদের আরো নিরাপত্তাহীনতার আশংকায় ফেলতে পারে।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বুধবার বিভিন্ন ধর্মের ২৭ জনকে মানুষকে ডেকেছিলেন তাদের বৈষম্যের বিভিন্ন কথা শোনার জন্য। সেখানে মায়ানমার, নিউজিল্যান্ড, ইয়েমেন, চায়না, কিউবা, ইরিত্রিয়া, নাইজেরিয়া, তুরস্ক, ভিয়েতনাম, সুদান, আফগানিস্তান, নর্থ কোড়িয়া, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান জার্মানি, বাংলাদেশ সহ আরো কয়েকটি দেশের ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

তাদের প্রত্যেকেই ট্রাম্পকে তাদের নিজ দেশের বৈষম্যের কথা বলছিলেন। সেখানেই বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রণ পান বাংলাদেশ হিন্দু- বৌদ্ধ- খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ’র কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহা। তার বাড়ি পিরোজপুর জেলার নাজিরপুরে। তিনি ট্রাম্পকে বলেন, তার জমি জমা কেড়ে নিয়েছে বাংলাদেশি মুসলিমরা, তার ঘরবাড়িতেও আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। তাই তিনি ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে এসেছেন।

ওভাল অফিসে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে তিনি ট্রাম্পকে বলেন, ‘আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। সেখানে ৩৭ মিলিয়ন হিন্দু-বৌদ্ধ খ্রিস্টানকে গুম করা হয়েছে। এখনো সেখানে ১৮ মিলিয়ন সংখ্যালঘু জনগণ রয়েছে। দয়া করে আমাদের সাহায্য করুন। আমরা আমাদের দেশ ত্যাগ করতে চাই না। আমি আমার ঘর হারিয়েছি, আমার জমি নিয়ে নিয়েছে, আমার ঘরবাড়িতে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে কিন্তু সেসবের কোনো বিচার নেই।’

ডোনাল্ড ট্রাম্প জিজ্ঞেস করেন কারা এসব করছে? বাংলাদেশি ওই নারী বলেন, ‘সবসময় উগ্রবাদী মুসলিমরা এই কাজ করছে। সবসময় তারা রাজনৈতিক প্রশ্রয়ে এই কাজ করে।’

উৎসঃ যুগান্তর

আরও পড়ুনঃ প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করবেন ব্যারিস্টার সাইয়েদুল হক সুমন

মার্কিন প্রেসিডেন্টকে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতা প্রিয়া সাহার দেয়া বক্তব্য নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া সমালোচনার ঝড় উঠেছে। বাংলাদেশ বিষয়ে এমন বক্তব্যকে মিথ্যা ও বানোয়াট বলে তার বিচার চাইছেন অনেকে।

ইতিমধ্যে ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রিয়া সাহার নালিশকে চক্রান্ত ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মন্তব্য করে বক্তব্য দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। এদিকে প্রিয়া সাহার এমন বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন সোশ্যাল এক্টিভিস্ট ও সুপ্রিমকোর্টের আলোচিত আইনজীবী ব্যারিস্টার সাইয়েদুল হক সুমন। তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদোহী মামলা করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

আজ রাতে ফেসবুক লাইভে এসে ব্যারিস্টার সাইয়েদুল হক সুমন বলেন, নিজের দেশ সম্পর্কে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে দেয়া প্রিয়া সাহার বক্তব্য মিথ্যা, বানোয়ার ও ভিত্তিহীন। তিনি সম্প্রীতির বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করেছেন।

এটি রাষ্ট্রদ্রোহীতার সামিল। যেখানে বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত এ দেশকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল উদাহরণ বলেছেন সেখানে এ দেশের নাগরিক হয়ে ট্রাম্পের কাছে গিয়ে প্রিয়া সাহা এমন বক্তব্য দিয়েছেন।

এটি রাষ্ট্রদ্রোহীতামূলক অপরাধ ও গভীর ষড়যন্ত্র। এজন্য একজন আইনজীবী হয়ে আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে, আগামী রোববার আদালত খুললেই প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে বাংলাদেশ নিয়ে ষড়যন্ত্রে অভিযোগে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করব।

ভিডিওঃ  ‘প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করবেন ব্যারিস্টার সুমন’


[সংবাদের ভিডিওটি দেখতে প্লে বাটনে ক্লিক করুন]

উল্লেখ্য, গত ১৬ জুলাই ধর্মীয় বৈষম্যের শিকার ২৭ ব্যক্তির সঙ্গে বৈঠক করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেখানে ১৬টি দেশের প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করে। বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহাও প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ পান।

বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতা প্রিয়া সাহা মার্কিন প্রেসিডেন্টকে বলেন, আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। বাংলাদেশে ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিষ্টান নিখোঁজ রয়েছেন। দয়া করে আমাদের লোকজনকে সহায়তা করুন। আমরা আমাদের দেশে থাকতে চাই।

এরপর তিনি বলেন, এখন সেখানে ১ কোটি ৮০ লাখ সংখ্যালঘু রয়েছে। আমরা আমাদের বাড়িঘর খুইয়েছি। তারা আমাদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে, তারা আমাদের ভূমি দখল করে নিয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো বিচার পাইনি।

ভিডিওতে দেখা গেছে, এক পর্যায়ে ট্রাম্প নিজেই সহানুভূতিশীলতার স্বরূপ এই নারীর সঙ্গে হাত মেলান। কারা এমন এসব করছে? ট্রাম্পের এমন প্রশ্নের জবাবে প্রিয়া সাহা বলেন, ‘দেশটির মৌলবাদীরা এসব করছে। তারা সবসময় রাজনৈতিক আশ্রয় পাচ্ছে।’

প্রিয়া সাহার দেয়া বক্তব্যের সমালোচনা করে বাংলাদেশের ধর্মীয় সম্প্রীতির বহু উদাহরণ সোশ্যাল মিডিয়া তুলে ধরছেন নেটিজেনরা। সম্প্রীতির বহু উদাহরণ সোশ্যাল মিডিয়া তুলে ধরছেন নেটিজেনরা।

৭১ এর চেতনায় গঠিত যে দেশে সব ধর্মের নাগরিক সমান অধিকারে সহাবস্থান করে বিশ্বে অসাম্প্রদায়িকতার মডেল হিসেবে পরিণত হয়েছে সেই দেশ নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাঠে প্রিয়া সাহার এমন বক্তব্য কখনই মেনে নেয়ার মতো নয় বলেও অভিমত দিচ্ছেন সচেতনরা।

উৎসঃ যুগান্তর

আরও পড়ুনঃ ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশ নিয়ে মিথ্যাচারকারী কে এই প্রিয়া সাহা? তার ক্ষমতার উৎস কি?

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বুধবার বিভিন্ন ধর্মের ২৭ জনকে মানুষকে ডেকেছিলেন তাদের দুর্ভোগের কথা শোনার জন্য। সেখানে মায়ানমার, নিউজিল্যান্ড, ইয়েমেন, চায়না, কিউবা, ইরিত্রিয়া, নাইজেরিয়া, তুরস্ক, ভিয়েতনাম, সুদান, আফগানিস্তান, নর্থ কোড়িয়া, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান জার্মানি, বাংলাদেশ সহ আরো কয়েকটি দেশের ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।
 
তাদের প্রত্যেকেই ট্রাম্পকে তাদের নিজ দেশের দুর্ভোগের কথা বলছিলেন। সেখানেই বাংলাদেশ থেকে যাওয়া প্রিয়া সাহা নামের নারী ট্রাম্পকে বলেন, তার জমি জমা কেড়ে নিয়েছে বাংলাদেশি মুসলিমরা, তার ঘরবাড়িতেও আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। তাই তিনি ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে এসেছেন।

ভিডিওঃ  ‘মিথ্যা তথ্য দিয়ে ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে হিন্দু নারীর নালিশ!’

[সংবাদের ভিডিওটি দেখতে প্লে বাটনে ক্লিক করুন]

ওভাল অফিসে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে প্রিয়া সাহা নামের নারী ট্রাম্পকে বলেন, ‘আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। সেখানে ৩৭ মিলিয়ন (৩ কোটি ৭০ লাখ ) হিন্দু-মুসলিম-বৌদ্ধ খ্রিস্টানকে গুম করা হয়েছে। এখনও সেখানে ১৮ মিলিয়ন সংখ্যালঘু জনগণ রয়েছে। দয়া করে আমাদের সাহায্য করুন। আমরা আমাদের দেশ ত্যাগ করতে চাই না। আমি আমার ঘর হারিয়েছি, আমার জমি নিয়ে নিয়েছে, আমার ঘরবাড়িতে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে কিন্তু সেসবের কোনো বিচার নেই।

ওই নারীর এমন বক্তব্যের পর ট্রাম্প বলেন, “কারা জমি দখল করেছে, কারা ঘরবাড়ি দখল করেছে? তখন প্রিয়া সাহা নামের এই নারী বলেন, “মুসলিম মৌলবাদী সংগঠন। তারা সবসময় রাজনৈতিক আশ্রয় পায়। সবসময়।”

শান্তি ও সম্প্রীতির সোনার বাংলাদেশকে কলুষিত করতে বিশ্ব মোড়ল ট্রাম্পের কাছে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নালিশ করে সাহায্য প্রার্থনা করায় এই মিথ্যাবাদী ও উগ্র হিন্দু নারী পরিচয়য় এবং তার ক্ষমতার উৎস নিয়ে জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে! কী মতলব এই নারীর? সম্প্রীতি ও ভালবাসার সোনার বাংলাদেশকে এরা কেন কলুষিত করতে চায়? কে এই নারী?

কে এই প্রিয়া সাহা? 

মিথ্যা অভিযোগকারী এই মহিলাটির নাম প্রিয়া সাহা। সে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক। তার গ্রামের বাড়িঃ চরবানিরী, মাটিভাঙ্গা, নাজিরপুর, পিরোজপুর। তাকে আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতা ও তাদের বুদ্ধিজীবী এবং শাহাবাগী ও নাস্তিকদের সাথে বিভিন্ন সভা সেমিনারে প্রায়ই দেখা যেত। এই নারী  সুলতানা কামাল, খুশি কবির, রানা দাস গুপ্ত ও পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায়ের অন্যতম সহযোগী।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশন চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক, রাশেদ খান মেনন, সুলতানা কামাল, শ্যমল দত্তের সাথে মিথ্যাবাদী উগ্র হিন্দু প্রিয় সাহা ( সবার বামে)

এরাই আসল দেশদ্রোহী, দাঙ্গাবাজ যারা বহির্বিশ্বে নিজ দেশকে বাজে ভাবে উপস্থান করে রাজনৈতিক আশ্রয় (এসাইলাম ) নেওয়ার চেষ্টা করছে।

প্রিয় সাহার ক্ষমতার উৎস কি?

প্রিয়া সাহা মহিলা ঐক্য পরিষদ’র কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। উনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র ইউনিয়ন করতেন, রোকেয়া হলে থাকতেন। এখন একটি এনজিও আছে ওনার। বিভ্রান্তিমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য গতবছর তাকে মহিলা ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়, বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়ার নাটক করে প্রচুর বিদেশি ফান্ড কালেক্ট করেন তিনি। তার গ্রামের বাড়ি চরবানিরী, মাটিভাঙ্গা, নাজিরপুর, পিরোজপুর।

প্রিয় সাহাকে আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতা ও তাদের বুদ্ধিজীবী এবং শাহাবাগী ও নাস্তিকদের সাথে বিভিন্ন সভা সেমিনারে প্রায়ই দেখা যেত। সেই ধরনের কিছু সংগ্রহীত ছবি সহ  আরও তথ্য এখানে উল্লেখ করা হলঃ 

আওয়ামীলীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক, সাবেক গভর্নর আতিউর রহমান ও যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপিকা অপু উকিলের সাথে সেই মিথ্যাবাদী উগ্র হিন্দু প্রিয়া সাহা

প্রিয়া সাহার স্বামী মলয় সাহা দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর সহকারী পরিচালক। তাদের দুই মেয়ে কয়েক বছর ধরে মলয় সাহার দুর্নীতির টাকায় আমেরিকায় বসবাস করছেন, কিছুদিন পূর্বে প্রিয়া সাহাকে দুদকের অফিসিয়াল গাড়ি ব্যবহার করে এয়ারপোর্টে পৌছে দেন তার স্বামী, দুদকের সহকারী পরিচালক মলয় সাহা। সকালে এয়ারপোর্ট পৌছে ফ্লাইট মিস করেন প্রিয়া, তারপর সেদিন রাতেই আরেকটি ফ্লাইটে তিনি আমেরিকায় রওনা হন, তার বিদায় মুহূর্তে বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী আকবর কবিরের কন্যা তথাকথিত মানবাধিকার কর্মী খুশী কবির।

ইসলামবিদ্বেষী নারীবাদী খুশি কবিরের সাথে মিথ্যাবাদী উগ্র হিন্দু প্রিয়া সাহা (সবার মাঝে)

প্রিয়া সাহার এই দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের সঙ্গী হওয়ায় তার স্বামী মলয় সাহাকে অতিদ্রুত চাকুরি থেকে অব্যাহতি দিয়ে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছে দেশপ্রেমী জনতা। ভুলে গেলে চলবে না তারা স্বামী-স্ত্রী মিলে অলরেডি অনেক বড় ক্ষতি করে ফেলেছেন বাংলাদেশের।

ট্রাম্পের সাথে সাক্ষাৎকারে প্রিয়া সাহা আরও বলেন, “এখনও সেখানে ১ কোটি ৮০ লাখ সংখ্যালঘু রয়েছে। দয়া করে আমাদের সাহায্য করুন। আমরা আমাদের দেশ ছাড়তে চাই না। সেখানে আমি আমার ঘরবাড়ি হারিয়েছি। তারা আমার ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দিয়েছে। তারা আমার জমিজমাও দখল করে নিয়েছে। কিন্তু এর কোন বিচার হয়নি।”

হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের ব্যানারে মিথ্যাবাদী উগ্র হিন্দু প্রিয়া সাহা ( সবার মাঝে)

তবে ট্রাম্পের কাছে করা ওই নারীর এমন নালিশের সঙ্গে বাস্তবতার কোন মিল নেই। বাংলাদেশে ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান নিখোঁজ রয়েছেন এমন ঘটনার কোন সত্যতাই পাওয়া যায়নি। বরং এদেশে হিন্দু, মুসলিম, খ্রিষ্টানসহ সব ধর্মের মানুষের মধ্যে যথেষ্ট সম্প্রীতি রয়েছে। এখানে সব ধর্মের মানুষ মিলেমিশে বসবাস করেন।

বাংলাদেশি পরিচয় দেয়া ওই নারীর এমন বক্তব্যে সামাজিক মাধ্যমেও ঝড় বয়ে গেছে। অনেকেই বলছেন, ওই নারী এমন বক্তব্য দিয়ে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছেন। অনেকেই বলছেন, এমন মিথ্যা কথা তিনি কীভাবে বললেন। সামাজিক মাধ্যমে এক ব্যবহারকারী লিখেছেন, “এটা দেখি ঘষেটি বেগম।” অপর একজন লিখেছেন, “এটা কাদের চাল হতে পারে বুঝলাম না।”

ভিডিওঃ  ‘মিথ্যা তথ্য দিয়ে ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে হিন্দু মহিলার নালিশ।’

[সংবাদের ভিডিওটি দেখতে প্লে বাটনে ক্লিক করুন]

অন্য এক ব্যবহারকারী লিখেছেন, ‘আমার চোখে কি দেখলাম আর কি শুনলাম। আমার বিশ্বাস হচ্ছে না। মানুষ এতটা অকৃতজ্ঞ, বেইমান, রাজাকার, নিকৃষ্ট আর দেশদ্রোহী কেমনে হয়? আমাদের দেশে কোন দিন শুনি নাই জোর করে কাউকে কালেমা বা গরুর গোস্তো খাওয়াতে। মুসলমানদের কাছে অমুসলিমরা যতটা শান্তিতে আছে সেটা অমুসলিম দেশেও নাই। ইন্ডিয়া একটা হিন্দু দেশ সেখানেও দলিত হিন্দুদের পিটায়া মারে, মন্দিরে ঢুকতে দেয় না। সাইকেল পর্যন্ত চালাতে পারে না। এরা আমাদের দেশকে নিয়া কি ষড়যন্ত্র করে?’

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের ব্যানারে ইসলামবিদ্বেষী নারাবাদীদের সাথে মিথ্যাবাদী উগ্র হিন্দু প্রিয়া সাহা ( সবার মাঝে)

ওই নারীর বক্তব্যের পর দেশের এবং প্রবাসের সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় উঠেছে। রীতিমতো দেশের ও প্রবাসের বাংলাদেশী নেটিজেনরা ওই নারীর বক্তব্যের প্রতিবাদ করেন। তারা ট্রাম্পকে হ্যাশ ট্যাগ, মেনশন করে জানাচ্ছেন ওই মহিলা মিথ্যে কথা বলেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের একটি গণমাধ্যম পুরো অনুষ্ঠানটি ফেসবুকে লাইভ করেছে। যার কারণে ভিডিওটি সকলের সামনে চলে আসে।

উৎসঃ জাগো নিউজ ২৪ ও কইয়া দিমু টেলিভিশন

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here