আন্তর্জাতিকভাবেই সমাধান পেতে হবে : ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন

0
297

স্বাধীন দেশে যদি প্রশাসন জনগণের না হয়, তাহলে দেশ তো পরাধীন আমলের মতোই থেকে যায়। জনজীবনে অন্যায়-অবিচার বাসা বাঁধার মূল কারণ আমাদের প্রশাসনে স্বাধীনতার মূল্যবোধের অভাব। দেশ ও জাতির ক্ষতি সাধনে আমরা নিজেরাই অনেক সময় নিজেদের পায়ে কুড়াল মেরে থাকি।

দুর্নীতির সুযোগ বহাল রাখার জন্যই ভোট ডাকাতির ব্যাপারে প্রশাসনের সব স্তরের সহযোগিতা পাওয়া সহজ হয়েছে। জনগণকে তাদের পছন্দমতো সরকার গঠনের শাসনতান্ত্রিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করা রাষ্ট্রদ্রোহিতার অপরাধ। সরকারকে বিভ্রান্ত করার জন্যও লোকের কোনো অভাব নেই।

প্রকাশ্যে নির্বাচনে ডাকাতির পর স্বাধীন জাতি হিসেবে অহঙ্কার করার মতো আমাদের আর কতটা কী অবশিষ্ট আছে তাই নিয়ে ভাবছি। আন্তর্জাতিকভাবে বিষয়টি তুলে ধরতে হবে- জাতীয়ভাবে, দলীয়ভাবে নয়। নির্বাচনে কোনো দলেরই জয়-পরাজয় হয়নি।

জাতির অসহায়ত্বকেই দেখানো হয়েছে বিশ্বের কাছে। এভাবে ভোটাধিকার থেকে জনগণকে বঞ্চিত করে শুধু জনগণের শাসনতান্ত্রিক মৌলিক অধিকারই হরণ করা হয়নি। জনগণ কিছু নয়। তাদের ভোটও কিছু নয়। এর নাম মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নয়।

৩০০ সংসদীয় আসনের মধ্যে ২৮৮ আসনে জয়লাভ করা সমকালীন পৃথিবীর কোনো গণতান্ত্রিক দেশে প্রায় অচিন্তনীয়। আর অতিলোভীদের দোষ এটাই। কতটা হজম করা যাবে সেটাই বুঝতে চায় না। ভোট ডাকাতির সাক্ষ্য-প্রমাণ তারা নিজেরাই রেখে দিয়েছে।

পুলিশি মামলা দিয়ে রাজনীতি করতে গিয়ে বিচারব্যবস্থাকে নড়বড়ে করে ফেলা হয়েছে। আইনের শাসনের ক্ষেত্রে আমার নিজস্ব অভিজ্ঞতাটিও কম লজ্জাকর নয়। এটি সত্য যে, টেলিভিশন টকশোতে আমি বহুবার নির্বাচনের স্বচ্ছতা নিয়ে অনেক শক্ত কথা বলেছি। এজন্য অনেকেই বলেছেন, আপনি বিপদে পড়বেন।

আমি তো সংঘাত-সংঘর্ষের বিরুদ্ধে বলেছি। যুক্তির বাইরে কিছু বলিনি। কোনো দলের পক্ষ নিয়ে বক্তব্য রাখিনি। দেখা গেল নির্বাচনের আগে আমাকে জেলে পাঠানো হল একটি খোঁড়া অজুহাতের আশ্রয় নিয়ে।

যে পরিপ্রেক্ষিতেই হোক, আর প্রশ্নটি যতই অশোভন হোক, ৭১ টিভির টকশোতে যে মহিলাটিকে আমি চরিত্রহীন বলতে চেয়েছি তাতে তার মানহানি হলে তিনি মামলা করতে পারেন। তিনি কিন্তু কোনো প্রতিবাদ করেননি।

শব্দটির ভিন্ন ব্যাখ্যা হতে পারে মনে করে পরদিন ফোন করে আমি তার কাছে দুঃখ প্রকাশ করি। ৭১ টেলিভিশনকেও আমি লিখিতভাবে জানিয়েছি। তারা আমার চিঠির বিষয়বস্তু সম্প্রচারও করেছে। তারপর প্রকাশ্যে আর কী করার থাকতে পারে?

আশ্চর্য হলাম যখন প্রধানমন্ত্রী নিজেই এক প্রেস কনফারেন্সে সবাইকে বললেন আমার বিরুদ্ধে মামলা করতে। তাদের উৎসাহ দিয়ে বললেন, তিনি তাদের সঙ্গে আছেন। মহিলাটির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কী সম্পর্ক বুঝতে পারলাম না।

সাধারণ মানহানির বিষয়টি এখন রাষ্ট্রীয় ব্যাপার হয়ে গেল! মানহানির মামলা যে তৃতীয় পক্ষের কেউ করতে পারে না তা-ও চিন্তা করতে হয়নি। হবেই বা কেন? আইনকানুন তো নেই। আসলে সমগ্র বিষয়টি ছিল সাজানো। সরকারি আইনজীবীদেরও তো আমার জামিনে বাধা দেয়ার কোনো যুক্তিই থাকতে পারে না।

‘পবিত্র চরিত্রের’ অধিকারী আওয়ামী লীগের কিছু অতিউৎসাহী সমর্থকও নেমে পড়লেন এ অভিযোগ নিয়ে যে, মহিলাটিকে চরিত্রহীন বলে আমি সমগ্র নারী জাতির অবমাননা করেছি। তাদের দাবি, আমাকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে। সরকারের কাছে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করতেও বিশেষ উৎসাহ দেখা গেছে। বি

ষয়টির ব্যাখ্যা কী হতে পারে তা বুঝে ওঠার আগেই সন্ধ্যায় ডিবির লোকজন তৃতীয় পক্ষের এক মানহানির মামলায় আমাকে গ্রেফতার করে। সরকারের ডিটেকটিভ শাখার ব্যস্ততা দেখানোরই বা যুক্তি কোথায়? আমার নিরাপত্তা নিয়ে একদল পুলিশকে ব্যস্ত থাকতে দেখলাম।

তাদের ধারণা আওয়ামী লীগ ‘কর্মীরা’ আমাকে আক্রমণ করতে পারে! রংপুরে কোর্ট চত্বরে তা-ই হল। এ হল আমাদের দেশের রাজনীতি এবং রাজনৈতিক কর্মী!

আওয়ামী লীগের মহিলা কর্মীরা উপরের নির্দেশমতে আমার বিরুদ্ধে মামলা হয় না, তবুও একটি-দুটি নয়, ২২টি মানহানির মামলা করেন দেশের বিভিন্ন স্থানে। দেশে রাজনৈতিক নেতৃত্ব থাকলে বিচারব্যবস্থায় নিশ্চয়ই এরকম মারাত্মক অবস্থা সৃষ্টি করতে দিত না।

আশার কথা যে, দু-একজন ম্যাজিস্ট্রেট এ ধরনের মামলা গ্রহণ না করার সাহস দেখিয়েছেন। মামলা হয় না, তবুও মামলা দেয়া হল, মামলা নেয়াও হল এবং আইনত জামিনযোগ্য মামলা হলেও জামিন হল না। আমাকে তাই তিন মাসেরও বেশি জেলে থাকতে হল।

মোটকথা, নির্বাচনের সময় আমাকে বাইরে থাকতে দেয়া হবে না। সবার জানা আছে, আমি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চেয়েছি। দলীয় রাজনীতি করি না বলে নির্বাচনে অংশগ্রহণের কোনো ইচ্ছা আমার ছিল না। তবে আমি ভোট ডাকাতির বিরুদ্ধে ছিলাম।

আমার বিরুদ্ধে শুধু মামলা করার নির্দেশই দেয়া হয়নি। শুনেছি, আমার যাতে ‘অসুবিধা’ হয় সেই নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে। সুযোগ পেয়ে অন্য একটি টেলিভিশন চ্যানেলের একজন মহিলা সাংবাদিক আমাকে চরিত্রহীন রাজনীতিবিদ বলে আখ্যায়িত করতেও দ্বিধাবোধ করলেন না।

ভালো কথা, তাহলে তাদের যুক্তিতে নিশ্চয়ই তিনি সব রাজনীতিবিদকে চরিত্রহীন বলেছেন। তাতে কিন্তু কোনো আওয়ামী লীগের রাজনীতিবিদের মানহানি হয়নি! প্রধানমন্ত্রী মানহানির কোনো মামলাও করতে বলেননি!

আমার কোনো দল নেই। তাই সরকারদলীয় মামলা-হামলার মোকাবেলায় বিশেষভাবে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা অন্য আইনজীবীদের সঙ্গে মিলে আমার পক্ষে দাঁড়িয়েছেন। দেশে-বিদেশে অনেকেই প্রতিবাদ করেছেন। আমি তাদের কাছে গভীরভাবে কৃতজ্ঞ।

যাই হোক, অসুবিধা সৃষ্টির ইচ্ছাপূরণ করতে গিয়ে আমাকে জেলে নিয়ে দু’দিন সাধারণ আসামিদের সঙ্গে রাখা হল। আমাকে ডিভিশন দেয়া হল না। কিন্তু আসামিদের মধ্যে যে সুন্দর মন ও মানবিক গুণাবলীর পরিচয় পেলাম তাতে মুগ্ধ ও অবাক হয়েছি।

কীভাবে আমার থাকাটা কিছুটা হলেও সহনীয় করা যায় তার জন্য তারা অস্থির হয়ে পড়লেন। জেলের বিভিন্ন স্থান থেকে আমার জন্য লুকিয়ে লুকিয়ে কিছুটা উঁচুমানের খাবার ও অন্যান্য সামগ্রী আনা হতে থাকল।

অর্থাৎ জেলের অনেকেই জানতে ও বুঝতে পারেন আমাকে অসুবিধায় রাখা হয়েছে। যারা সাহায্য করতে এগিয়ে এসেছেন, তাদের কাউকেই আমি চিনতাম না। তাদের ব্যবহারে আমার কষ্ট অনেকটা লাঘব হয়।

যারা জেলে আছে তাদের বেশিরভাগই সত্যিকার কোনো ভয়াবহ মামলার আসামি নয়। দেখেই বোঝা গেছে তাদের বিরুদ্ধে বিরোধী রাজনীতির গন্ধ খোঁজা হয়েছে, না হয় ড্রাগস সম্পর্কিত মামলা হয়েছে। আসলে চাইলেই মামলা করা যায়। অপরাধ তো প্রমাণ করার দায় নেই। বিচার ত্বরান্বিত করার কোনো আগ্রহও নেই।

জামিন না দিয়েই জেলে আটক রাখা যাচ্ছে মাসের পর মাস। এসব আসামির অধিকাংশই বয়সে তরুণ। তাদের জীবনের অনিশ্চয়তা ও অসহায়ত্ব দেখে আমিও কষ্ট কম অনুভব করিনি। অনেকের কোর্ট-আদালতে ছোটাছুটি করার কোনো লোকও নেই। এমনও কিছু আসামি আছে যাদের আত্মীয়স্বজনরা কেউ জানে না তারা কোথায় আছে।

শাসনতন্ত্রে বলা আছে, একজন আসামি আইনজীবীর সাহায্য নিতে পারবে। কিন্তু একবার জেলে ঢোকাতে পারলে আইনজীবীর সঙ্গে যোগাযোগ করার সুযোগই দেয়া হয় না। কোনো আইনজীবী যোগাযোগ করলে তবেই সে তার সাহায্য নিতে পারে। শাসনতান্ত্রিক অধিকারগুলো সম্পর্কে পুলিশ ও জেল কর্তৃপক্ষকে অধিকতর সচেতন করা একান্ত প্রয়োজন। কিন্তু করবে কারা? রাজনৈতিক নেতৃত্ব তো নেই।

বেশ কয়েকজন আমাকে বলেছে, জেল থেকে বের হওয়ার পর আমি যেন তাদের আইনগত সাহায্য করি। কতটুকু তাদের জন্য করতে পারব জানি না। জেলে পুরলেই সমস্যার সমাধান হয় না। যারা অন্যায়কারী তাদের শাস্তি পেতে হবে। কিন্তু বিনা জামিনে, বিনা বিচারে পুলিশ দিয়ে জেলে পাঠানোর রাজনীতি তো নির্যাতন। পুলিশি ক্ষমতার অপব্যবহার। এ

কটি সুন্দর দেশ গড়তে উদার মনের নেতৃত্ব ও সুন্দর মনের মানুষের প্রয়োজন। আমি আশান্বিত হলাম এটা দেখে যে, তরুণদের মধ্যে এখনও সুন্দর মন মরে যায়নি। জেল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকেও যথেষ্ট সম্মান ও সহযোগিতা পেয়েছি। নিজের দেশে এটাই তো আশা করি। যারা মর্যাদা পাওয়ার যোগ্য তাদের অবশ্যই মর্যাদা দিতে হবে।

আমার এ লেখাটির মূল লক্ষ্য একটি সাধারণ মানহানির মামলা নিয়ে আমার প্রতি যে নোংরা আচরণ করা হয়েছে সেটা নয়। দেশব্যাপী রাজনীতিতে পুলিশি মামলার যে ছড়াছড়ি, তার বিপজ্জনক দিকটির প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করা।

জনগণের ওপর মামলা-হামলার রাজনীতিতে অংশগ্রহণ করা পুলিশের দায়িত্ব নয়। ফরমায়েশি পুলিশি মামলার ভয়ে সারা দেশের মানুষ ভীষণ আতঙ্কের মধ্যে আছে। পুলিশ তো হবে জনগণের বন্ধু। রাজনীতি করবেন রাজনীতিবিদরা।

পুলিশে এখন অনেক ভদ্র, শিক্ষিত লোক যোগ দিয়েছে। তাদের দিয়ে রাজনীতি করাতে গিয়ে তাদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে বাধা সৃষ্টি করা হচ্ছে। অর্থাৎ একটি যোগ্য, সৎ পুলিশ বাহিনী যে দেশে শান্তি-শৃঙ্খলার জন্য অপরিহার্য সে প্রশ্নটি গুরুত্ব পাচ্ছে না।

কমপক্ষে জেলের অন্তত এক-তৃতীয়াংশ বন্দি রাজনৈতিক মামলার শিকার। একেকজনের বিরুদ্ধে ২৫-৩০টি করে মামলা দেয়া হয়েছে। মামলার সত্যতা কোনো বিষয় নয়, জামিনে মুক্তি পাওয়াকে অসম্ভব করতে পারলেই হল।

গুরুতর মামলা হলে তো একটিই যথেষ্ট। এসব বিষয় নিয়ে ভাববার লোক দুর্লভ। কারাগারগুলোতে ঠাঁই নেই। অথচ বেশিরভাগ বন্দিকে ছেড়ে দেয়ার, জামিন দেয়ার সুযোগ রয়েছে। তাদের প্রতি চরম অন্যায় করা হচ্ছে।

অবশেষে হাইকোর্টের নির্দেশে আমাকে ডিভিশন দেয়া হল। আইনজীবী হিসেবে ড. কামাল হোসেনের ল’চেম্বারে আমি তার জুনিয়র ছিলাম। তিনি কোর্টে আমার পক্ষে দাঁড়িয়ে ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, ‘মানিক মিয়ার ছেলেকে জেলে ডিভিশন পেতে হাইকোর্টে আসতে হয়!’

মানিক মিয়ার ছেলে ছাড়া আমার নিজেরও তো কিছু অর্জন আছে। আমি বঙ্গবন্ধুর সময় সংসদ সদস্য ছিলাম, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আইন উপদেষ্টা ছিলাম। নিজে একজন সুপ্রিমকোর্টের সিনিয়র আইনজীবী।

সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ছিলাম। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রেখেছি। সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত প্রেস কমিশনের রিপোর্ট তৈরিতে আমি সক্রিয় ভূমিকা রেখেছিলাম।

স্বাধীন দেশে মানুষের সাহস জোগায় বিচারব্যবস্থা। এজন্য জনগণ শাসনতন্ত্র রক্ষার দায়িত্ব দিয়েছে বিচার বিভাগের ওপর। এর অর্থ জনগণের অধিকার ও শাসনতন্ত্রসম্মত শাসনের ব্যাপারে জনগণ রাজনীতিবিদদের ওপর আস্থা না রেখে আস্থা রেখেছে বিচার বিভাগের ওপর।

বিচার প্রক্রিয়ায় ভয়ভীতির স্থান থাকতে পারে না। মানুষের অধিকার নিশ্চিত না হলে স্বাধীনতা অর্থহীন। বর্তমানে মানুষ তাই বড় অসহায়। জামিনের আবেদনের ভিড়ে সুপ্রিমকোর্টে তিল ধারণের ঠাঁই নেই। সুপ্রিমকোর্ট এখন জামিনের আবেদন নিয়ে মহাব্যস্ত। সুপ্রিমকোর্টের অস্তিত্ব ও সাহস না থাকলে দেশের বিচারব্যবস্থা অস্তিত্বহীন হয়ে পড়ত।

আমরা নিশ্চয়ই একটি সুস্থ, সভ্য রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা চালানোর যোগ্যতা রাখি। সেই শিক্ষাই হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী এবং তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া বিশেষ গুরুত্ব সহকারে আমাদের শিখিয়ে গেছেন।

গণতান্ত্রিক মূল্যবোধে বাঙালিদের উজ্জীবিত করার উদ্দেশ্যে শহীদ সোহরাওয়ার্দীর নেতৃত্বেই তদানীন্তন পাকিস্তানে বিরোধী দল হিসেবে আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠিত হয়। শহীদ সোহরাওয়ার্দী, মানিক মিয়াসহ আওয়ামী লীগের অনেকেই তখন জাতি গঠনে নীতি-আদর্শ ও সততার ওপর সবিশেষ গুরুত্ব দিতেন।

ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের মুখেই শুনতে হয়েছে, তারা কল্পনাও করতে পারেননি যে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এত নির্লজ্জভাবে ভোট ডাকাতি হবে। তারা ছোটাছুটি করতে থাকলেন সাক্ষীগোপাল নির্বাচন কমিশন অফিসে।

এমনকি তারা জনগণের সঙ্গেও তেমন যোগাযোগ রক্ষা করেননি। ভেবেছিলেন জনগণ তো সরকারের বিপক্ষে, তাই জনগণ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীকেই ভোট দেবে। দুর্ভাগ্যের বিষয়, বিএনপির মতো একটি বড় দল রাজনৈতিক দল হতে পারছে না। শুধু নির্বাচনের আশায় ব্যস্ত থাকার কারণে। এখন তো নির্বাচনও গেল।

দীর্ঘদিনের সংগ্রাম শেষে শহীদ সোহরাওয়ার্দী অসুস্থ অবস্থায় বৈরুত থেকে আব্বার কাছে লেখা এক পত্রে ভারাক্রান্ত হৃদয়ে বলেছিলেন, আমরা যারা নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির জন্য লড়াই করছি তারা ব্যর্থ থেকে গেলাম।

পরবর্তী সময়ে যে রাজনীতি দেখা দেবে তা হবে ভয়াবহ নৈরাজ্যিক চরিত্রের। শহীদ সাহেব এ বক্তব্য যখন রাখেন তখন দেশে আইয়ুব খানের স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলন চলছিল। পরবর্তী সময়ে কী ধরনের ভয়াবহ হিংসা-বিদ্বেষ দেশে চলেছে তা তো সবাই দেখেছি।

মনে হচ্ছে ১৮ কোটি লোকের এ দেশে এত শিক্ষিত, যোগ্য ও সৎ লোক থাকা সত্ত্বেও আমরা দেখাতে পারছি না যে, স্বাধীনতাকে অর্থবহ করে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় আমাদের কোনো গঠনমূলক ভূমিকা আছে বা আমরা জাতির কোনো উপকারে আসছি।

আপস ও সমঝোতার মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করতে সচেষ্ট ছিলাম। কোনো সমঝোতা নয়, আমলা সাহেবদের ভোট ডাকাতির ষড়যন্ত্রই সহজ পথ মনে করা হল। এ হতাশা ও ব্যর্থতার গ্লানি নিয়েই আমাদের মতো কিছু লোককে হয়তো বাকি দিনগুলো কাটাতে হবে। বোবা হয়ে থাকাই শ্রেয় মনে হচ্ছে।

নির্বাচনে কারচুপি এত বিশালভাবে হয়েছে যে, সংশ্লিষ্টরাই তার প্রমাণ রেখে গেছে। আমলাদের বুদ্ধিতে এটা সম্ভব হয়েছে; কিন্তু তারা সমাধান দিতে পারবে না। ভোট কারচুপি হয়েছে জাতির বিরুদ্ধে।

তাই সংকটের সমাধানও হতে হবে জাতীয়ভাবে, আন্তর্জাতিক মধ্যস্থতায়। ভোটাধিকার থেকে জনগণকে বঞ্চিত করা সর্বজনীন মানবাধিকার লঙ্ঘন। কোনো স্বাধীন জাতি ভোটাধিকারহীন হয়ে থাকতে পারে না। আমরাও থাকব না। পুলিশি মামলা-হামলার রাজনীতি বন্ধ করতে হবে। জনগণের ভোটের শাসনতান্ত্রিক রাজনীতি ফিরিয়ে আনতে হবে। এটাই নিরাপদ, সহনশীল রাজনীতির পথ।

ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন : আইনজীবী ও সংবিধান বিশেষজ্ঞ

উৎসঃ ‌যুগান্তর

আরও পড়ুনঃ ৩০ ডিসেম্বরের কলঙ্কিত নির্বাচন নিয়ে টকশোতে বোমা ফাটালেন ড. আসিফ নজরুল (ভিডিওসহ)


একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সরণকালের সেরা বিতর্কিত নির্বাচন বলে মনে করেন ড. আসিফ নজরুল। বিভিন্ন বিদেশি নির্বাচন পর্যবেক্ষক প্রতিষ্ঠানকে ভিসা না দেয়া অনেক প্রতিষ্ঠানকে পর্যবেক্ষক থেকে বাদ দেয়াসহ বিভিন্ন বিষয় উল্লেখ করে ইনডিপেনডেন্ট টিভির টকশো আজকের বাংলাদেশ অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, এই নির্বাচনকে সম্পূর্ণরুপে আন অবজার্ভ রাখার চেষ্টা করা হয়েছে। সূত্র : ইনডিপেনডেন্ট টিভি।

নির্বাচনে অনিয়ম, বিএনপিকে রাস্তায় দাঁড়াতে না দেয়া, হাজার হাজার গায়েবি মামলা দিয়ে হয়রানি, আওয়ামী সন্ত্রাসিদের ধারাবাহিক আক্রমন, প্রচারে বাধা ইত্যাদি কারণে এই নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন আজ্ঞাবহ, সরকারের কথামতো চলেছে, বিএনপির সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকার পরও কোন ব্যবস্থা না নেয়া, প্রশাসন সরকারের নিয়ন্ত্রনে থাকা অবস্থায় সুষ্ঠ নির্বাচন করা অসম্ভব, এবং সেটিই হয়েছে।

ভিডিওঃ  ‘কলঙ্কিত নির্বাচন নিয়ে বোমা ফাটালেন ড. আসিফ নজরুল’

[সংবাদের ভিডিওটি দেখতে প্লে বাটনে ক্লিক করুন]

একাদশ সংসদ নির্বাচনকে ধর্ষিতা নারীর সাথে তুলনা করেছেন ড.আসিফ নজরুল। তিনি বলেন যে, ধর্ষণের বিচার দাবি বা ধর্ষকের শাস্তি দাবি না করে ধর্ষিতা নারীর কাপড় কত বড় ছিলো বা ছোট ছিলো সেটা নিয়ে কেউ কেউ প্রশ্ন তোলে একইভাবে কলঙ্কিত নির্বাচন ও লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের ব্যাপারে কেউ কথা না বলে তারা বিএনপি নির্বাচনে প্রচার প্রচারণা নিয়ে তারা প্রশ্ন তোলে।

এবারের নির্বাচনকে বিশিষ্টজনেরা ঠিকই কলঙ্কিত নির্বাচন বলে ধিক্কার জানাচ্ছে। এখন কি আওয়ামী পরিবারের লোকজনও যারা বিএনপিকে অপছন্দ করে তারাও বলছে যে এমন কলঙ্কিত নির্বাচন তারা এর আগে কখনও দেখে নি।

তিনি বলেন নির্বাচন পর্যবেক্ষণ সাধারণ বিষয় অথচ সরকার অনেক আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক সংস্থাকে অনুমোদন দেয়নি, আবার অনুমোদন দিলেও সময় মতো ভিসা দেয়া হয়নি এতে তারা তাদের প্রোগ্রাম বাতিল করেছে। এদিকে নির্বাচনে এমনভাবে ভোট কাটা হয়েছে সাধারণ মানুষ ভোট দিতে পারেনি, রাতে ব্যালট বাক্স ভরে রাখা, পোলিং এজেন্ট বের করে দেয়াসহ বিভিন্নভাবে বিএনপি কর্মিদের হয়রানি করা হয়েছে। নির্বাচনের আগে ৫৮ টি অনলাইন চ্যানেল বন্ধ করে দিয়েছে, সাংবাদিকদের দায়িত্ব পালনে বিধি নিষেধ আরোপ করে নির্বাচনের অনিয়ম প্রকাশ না করার চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু সে চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।

কোনো কোনো কেন্দ্রে শতভাগ ভোট পরেছে এবং শতভাগ ভোটই আওয়ামী লীগের প্রার্থী পেয়েছে, এটা হতে পারে? এ নির্বাচনে জনগণ অংশ গ্রহণ করেনি। তার দাবি যে নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারে না সে নির্বাচন বৈধ হতে পারে না। আর যে সরকার অবৈধ, সংসদ অবৈধ সেই সংসদের কাছে জনগণের কোন আশা থাকতে পারে না।

উৎসঃ ‌amadershomoy

আরও পড়ুনঃ রাতে সিল মারা কোন ধরণের জনগণের ম্যান্ডেট?


একাদশ সংসদ নির্বাচনে নজিরবিহীন ভোট ডাকাতির মাধ্যমে বিজয়ী হয়ে সরকার গঠন করেছে আওয়ামী লীগ। জনগণ ভোট দিতে না পারায় নতুন সরকারের প্রতি তাদের কোনো সমর্থন লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। বলা যায়- বর্তমান সরকারের সঙ্গে জনগণের কোনো সম্পর্ক নেই। র‌্যাব-পুলিশ আর বিজিবির সেল্টারে এখন দেশ পরিচালনা করছে আওয়ামী লীগ।

৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ আন্তর্জাতিক কোনো পর্যবেক্ষক সংস্থা আসেনি। সার্ক মানবাধিকার সংস্থা নামে ভুয়া একটি পর্যবেক্ষক সংস্থা সরকারের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা খেয়ে নির্বাচন পর্যবেক্ষন করেছিল। নির্বাচনের পরের দিন ৩১ ডিসেম্বর গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে মতবিনিময়ে কথিত এই পর্যবেক্ষক সংস্থাটি দাবি করেছিল নির্বাচন খুব সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হয়েছে। আর তাদের দেয়া এই বক্তব্যকে পুজি করে নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হয়েছে বলে দাবি করছে।

তবে টাকায় কেনা কথিত এই সংস্থাটিই এখন বলছে যে, তাদের পর্যবেক্ষণ সটিক ছিল না। নির্বাচন নিয়ে তারা যে তথ্য দিয়েছিল সেটা ভুল ছিল। আসলে রাতেই ব্যালটে সিল মেরে বাক্স ভরে রাখা হয়েছিল। তারা আসলে সব জায়গায় পর্যবেক্ষণ করতে পারেনি।

এখন, এই সংস্থাটিও মত পাল্টানোর পর সরকারের দাবির পক্ষে কথা বলার আর কেউ থাকলো না।

কিন্তু লক্ষণীয় বিষয় হলো-দেশি-বিদেশি মানবাধিকার সংস্থা, রাজনৈতিক বিশ্লেষক, আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম, সুশীল সমাজ ও দেশের সকল রাজনৈতিক দল নির্বাচনের বিপক্ষে অবস্থান নেয়ার পরও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সরকারের অন্যান্য মন্ত্রী-এমপি ও আওয়ামী লীগ নেতারা নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে বলে এক সুরে গান গেয়ে যাচ্ছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাতো প্রতিদিনই জনগণ তাদেরকে বিপুলভোটে বিজয়ী করেছে বলে মিথ্যাচার করে যাচ্ছেন। এত বড় ভোট ডাকাতির পরও জনগণের ভোটে নাকি তারা বিজয়ী হয়েছেন এই বলে দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন। বিশেষ করে গত শুক্রবার রাতে জাতির উদ্দেশে দেয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণ দেশবাসীকে বিস্মিত করেছে।

নির্বাচনের পর জাতির উদ্দেশে দেয়া প্রথম ভাষণে শেখ হাসিনা মিথ্যাচারের সেই পুরনো রেকর্ড বাজিয়ে বলেছেন, জনগণ তাদের ম্যান্ডেট দিয়ে আওয়ামী লীগকে পুনরায় সরকার গঠনের সুযোগ দিয়েছে। তাই তিনি জনগণকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শুক্রবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের নাকি অনেকেই তাদের টেলিভিশন বন্ধ করে রেখেছিল। আবার অনেকে ভাষণের কিছু কথা শুনার পর টিভি বন্ধ করে দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর এই ভাষণ নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতেও চলছে কঠোর সমালোচনা। টিভি টকশোগুলোতে সমালোচনা করছেন বিশ্লেষকরাও। শেখ হাসিনার ভাষণের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন রাজনৈতিক দলগুলোও।

সবার একটিই্ প্রশ্ন, একজন প্রধানমন্ত্রী এমনভাবে মিথ্যাচার করেন কিভাবে? রাতে সিল মেরে যিনি এটাকে জনগণের ম্যান্ডেট হিসেবে দাবি করতে পারেন, অসত্য কথা বলার দিক থেকে তাকে পেছনে ফেলার মতো কোনো রাষ্ট্রপ্রধান বর্তমান বিশ্বে নেই।

উৎসঃ ‌অ্যানালাইসিস বিডি

আরও পড়ুনঃ দালাল পর্যবেক্ষকদেরও হাতে রাখতে পারলো না আওয়ামী লীগ

আওয়ামী লীগ সরকার টানা তৃতীয়বার যেন তেনভাবে ক্ষমতায় এসে নানা ধরনের কথার ফুলঝুড়ি দিয়ে জনগণকে সন্তুষ্ট করার চেষ্টা করছে। নির্বাচনের জালিয়াতিকে আড়াল করার জন্য কুটনৈতিক তৎপরতা বাড়িয়ে দিয়ে বিভিন্ন দেশের অভিনন্দন আদায়েরও চেষ্টা করছে। কিন্তু তারপরও ছিদ্রপথ দিয়ে যেন অনেক কিছু বেরিয়ে যাচ্ছে। ফলে হাতে থাকা জিনিষগুলোও যেন আর আওয়ামী লীগের হাতে থাকছে না। এজন্যই প্রবাদে বলে চোরের ১০ দিন আর গেরস্থের একদিন।

আজ দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যম ও পত্রিকায় একটি খবর প্রকাশিত হওয়ার পর আওয়ামী নীতি নির্ধারক মহলে চিন্তার ভাঁজ পড়ে গেছে বলে জানা গেছে। এবারের নির্বাচনের আগে থেকেই দেশী বিদেশী পর্যবেক্ষকদেরকে নিয়োগ করার ব্যপারে নির্বাচন কমিশন নানা ধরনের অযাচিত বিধি নিষেধ আরোপ করে। ফলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রসিদ্ধ নির্বাচনী পর্যবেক্ষকসহ আমাদের দেশের অনেক পরিচিত মুখও নির্বাচন কভার করার সুযোগ পায়নি। অন্যদিকে পর্যবেক্ষকদেরকে মুর্তির মত দাঁড়িয়ে থাকার নির্দেশ দেয়ার পর থেকে অনেকের মনেই তখন নির্বাচন কতটুকু সুষ্ঠু হবে তা নিয়ে সংশয়ের সৃষ্টি হয়।

তাই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ভয়াবহ জালিয়াতিকে লুকোনোর জন্য নির্বাচনের পরদিনই গণভবনে আওয়ামী লীগের দেশীয় ও বিদেশ থেকে ভাড়া করে আনা পর্যবেক্ষকদেরকে নিয়ে একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সেই সম্মেলনে দালাল পর্যবেক্ষকদের কাছ থেকে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে বলে স্বীকৃতিও আদায় করা হয়। সেগুলো সরকারের দালাল মিডিয়াগুলো আবার বেশ ফলাও করে প্রচারও করে। কিন্তু সব গোমর ফাঁস হয়ে গেছে এবার। সম্প্রতি বার্তা সংস্থা রয়টার্স সেই পর্যবেক্ষকদেরকে নিয়ে একটি সংবাদ প্রচার করে যাতে পর্যবেক্ষকরা আগের অবস্থান থেকে পল্টি মারেন। তারা অবলীলায় স্বীকারও করলেন যে, আমাদেরকে ভুল বোঝানো হয়েছে, আসলে নির্বাচন সুষ্ঠূ হয়নি।

পত্রিকার প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করতে আসা পর্যবেক্ষকেরা নির্বাচন নিয়ে এখন ভিন্ন কথা বলছেন। নির্বাচন পর্যবেক্ষকদের নিয়ে করা এক প্রতিবেদনে রয়টার্স জানিয়েছে, যতটা অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে বলে তারা সেসময়ে মন্তব্য করছিলেন তাঁরা, এখন বলছেন নির্বাচন ততটা সুষ্ঠু হয়নি।

কানাডার তানিয়া ফস্টার নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করতে বাংলাদেশে এসেছিলেন। ভোটের পরদিন গণভবনে সাংবাদিক ও পর্যবেক্ষকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই অনুষ্ঠানে তানিয়া বলেছিলেন, ‘নির্বাচন অত্যন্ত সুষ্ঠু ও গণতান্ত্রিক হয়েছে। তবে তিনি এখন বলছেন ভিন্ন কথা। তার মতে, তখন তিনি সবকিছু একটু বেশি সরলভাবে নিয়েছিলেন।

একই রকম মনোভাব নির্বাচন পর্যবেক্ষণকারী সংগঠন সার্ক হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট হাইকোর্টের সাবেক বিচারপতি মোহাম্মদ আবদুস সালামেরও (৭৫)। তিনি বলেছেন, ভোটার ও নির্বাচন কর্মকর্তাদের কাছ থেকে তিনি শুনেছেন, ‘আওয়ামী লীগের কর্মীরা ভোটের আগের রাতেই ব্যালট বাক্স ভরেছেন, ভোটারদের ভয়ভীতি দেখিয়েছেন। আমার মনে হচ্ছে নতুন ভোট হওয়া উচিত।’ আবদুস সালাম বলেন, ‘এখন আমি সবকিছু জানতে পেরেছি এবং বলতে পারি, নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হয়নি।’

সার্ক হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশনের সঙ্গে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের যোগাযোগ আছে বলে অভিযোগ আছে। সংগঠনটির উপদেষ্টা কমিটিতে আছেন আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির দুই সাংসদ। এ ছাড়া নাম ও লোগোতে মিল থাকলেও দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থার (সার্ক) সঙ্গে সার্ক হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশনের কোনো সম্পর্কই নেই। সার্ক হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশন কানাডা, ভারত, নেপাল ও শ্রীলঙ্কা থেকে কয়েকজন পর্যবেক্ষক নিয়ে আসে। ওই দলেই ছিলেন তানিয়া ফস্টার। ৩০ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণের দিন এবং তার পরদিন ওই পর্যবেক্ষকেরা সাংবাদিকদের বলেন, নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে।

তানিয়া ফস্টার বলেছেন, আওয়ামী লীগের সঙ্গে যে সার্ক হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশনের যোগসূত্র রয়েছে বা সংগঠনটি যে সার্কের কেউ নয়, তা তিনি জানতেন না। তিনি রয়টার্সকে বলেন, ‘বিষয়টি আমার ভালো লাগেনি। আমার মনে হচ্ছে সবকিছু আমি একটু বেশি সরলভাবে নিয়েছিলাম।’

তানিয়া আরও বলেন, ‘আমরা কেবল ঢাকার নয়টি ভোটকেন্দ্রে গিয়েছিলাম, তারপরও আমাদের প্রতিবেদন যে এভাবে ওরা কাজে লাগােেব, তা বুঝতে পারিনি। আমরা অপেক্ষাকৃত প্রতিকূল এলাকাগুলোয় যাইনি।’

এর আগে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্যাপক অনিয়মের তথ্য তুলে ধরে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ ও ত্রুটিপূর্ণ বলে মন্তব্য করে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। নির্বাচনে ৩০০ আসনের মধ্য থেকে দ্বৈবচয়নের (লটারি) ভিত্তিতে ৫০টি বেছে নেয় টিআইবি। নির্বাচনের দিন ৪৭ আসনে কোনো না কোনো নির্বাচনী অনিয়মের অভিযোগ পেয়েছে সংস্থাটি। অনিয়মের ধরনের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো গবেষণায় অন্তর্ভুক্ত ৫০টির মধ্যে ৪১টি আসনে জাল ভোট; ৪২টি আসনে প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী বাহিনীর নীরব ভূমিকা; ৩৩টি আসনে নির্বাচনের আগের রাতে ব্যালটে সিল; ২১টি আসনে আগ্রহী ভোটারদের হুমকি দিয়ে তাড়ানো বা কেন্দ্রে প্রবেশে বাধা; ৩০টি আসনে বুথ দখল করে প্রকাশ্যে সিল মেরে জাল ভোট; ২৬টি আসনে ভোটারদের জোর করে নির্দিষ্ট প্রতীকে ভোট দিতে বাধ্য করা; ২০টিতে ভোট গ্রহণ শুরু হওয়ার আগেই ব্যালট বাক্স ভরে রাখা; ২২টিতে ব্যালট পেপার শেষ হয়ে যাওয়া; ২৯টিতে প্রতিপক্ষের পোলিং এজেন্টকে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে না দেওয়া ইত্যাদি।

উৎসঃ ‌অ্যানালাইসিস বিডি

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here