রিফাতের ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা প্রতীয়মান হওয়ায় মিন্নিকে গ্রেফতার দেখিয়েছে পুলিশ

0
97

জিজ্ঞাসাবাদে স্বামী রিফাকে মারার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা প্রতীয়মান হওয়ায় মামলার প্রধান সাক্ষী ও নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে গ্রেফতার দেখিয়েছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

এর আগে মঙ্গলবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে বরগুনা পৌরসভার মাইঠা এলাকার নিজ বাসা থেকে তাকে পুলিশ লাইনে আনা হয়। রাতে তাকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন।

পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, রিফাত শরীফকে মারার মামলার ১ নম্বর সাক্ষী ও প্রত্যক্ষদর্শী মিন্নি। তার বক্তব্য রেকর্ড ও তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বরগুনা পুলিশ লাইনে আনা হয়। রাতে তাকে এ মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়।

সকালে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মিন্নিকে পুলিশ লাইনে আনার সময় তার সঙ্গে বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরও এসেছেন। মোবাইল ফোনে পুলিশ লাইন থেকে তিনি জাগো নিউজকে বলেন, রিফাত শরীফ ঘটনায় জড়িত এক অভিযুক্তকে শনাক্ত করার জন্য মিন্নিকে বরগুনার পুলিশ লাইনে আনা হয়েছে। শনাক্তকরণ শেষ হলে মিন্নিকে আবার বাড়ি নিয়ে যাওয়া হবে। কিন্তু এরই মধ্যে তাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এর আগে গত শনিবার রাত ৮টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করেন নিহত রিফাত শরীফের বাবা আব্দুল হালিম দুলাল শরীফ। তিনি রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানান।

তিনি বলেন, আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি আগে নয়ন বন্ডকে বিয়ে করেছিল। ওই বিয়ে গোপন করে রিফাত শরীফকে বিয়ে করে সে। বিষয়টি আমাদের জানায়নি মিন্নি এবং তার পরিবার। কাজেই রিফাত শরীফকে মারার পেছনে মিন্নির মদদ রয়েছে। তাকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনলে সব বিষয় পরিষ্কার হয়ে যাবে।

তিনি আরও বলেন, আজ আমার ছেলে মারার বিষয়ে কিছু কথা শেয়ার করার জন্য আপনাদের সামনে উপস্থিত হয়েছি। প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইজিপি এবং সাংবাদিক ভাইদের সহযোগিতায় রিফাত মারারকাণ্ডে জড়িত এ পর্যন্ত ১৪ জন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখ-ভারাক্রান্ত মনে আমাকে বলতে হচ্ছে এ ঘটনার নেপথ্যে থাকা হোতারা ধরাছোঁয়ার বাইরে আছে। কীভাবে তারা বাইরে তা বলার জন্যই আমি আজ এখানে এসেছি।

দুলাল শরীফ বলেন, নয়ন বন্ডের সঙ্গে মিন্নির বিয়ের বিষয়টি মিন্নি ও তার পরিবার সুকৌশলে গোপন করেছে। নয়ন বন্ডের স্ত্রী থাকা অবস্থায় আমার ছেলে রিফাতকে বিয়ে করেছে মিন্নি। রিফাতের সঙ্গে বিয়ের পরও মিন্নি নয়নের বাসায় যাওয়া-আসা করতো। নিয়মিতভাবে নয়নের সঙ্গে যোগাযোগ করতো সে।

পরদিন রোববার শ্বশুরের এ বক্তব্যকে বানোয়াট উল্লেখ করে সংবাদ সম্মেলন করেন আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি। লিখিত বক্তব্যে মিন্নি বলেন, বর্তমানে আমার শ্বশুর অসুস্থ এবং তিনি তার একমাত্র সন্তানকে হারিয়ে আরও অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তিনি যখন যা বলেন তা কোনো কিছুই পরে মনে থাকে না। আসামিরা বিচারকে অন্যদিকে প্রভাবিত করার জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্নভাবে আমাকে হয়রানির চেষ্টা করেছে। তারা আমার ছবি এডিট করে নয়ন বন্ডের সঙ্গে যুক্ত করে পোস্ট করেছে। ০০৭ নামের ম্যাসেঞ্জার গ্রুপটি যারা সৃষ্টি করেছে তারা খুবই ক্ষমতাবান এবং বিত্তবান। তারা এ বিচারের আওতা থেকে দূরে থাকার জন্য বিভিন্নভাবে চাপ সৃষ্টি করে রিফাতের ঘটনায় বিচারকে অন্যদিকে প্রবাহিত করার জন্য আমার শ্বশুরকে সংবাদ সম্মেলন করাতে বাধ্য করেছেন। শনিবার রাতে সংবাদ সম্মেলনে আমার শ্বশুর আপনাদের কাছে আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করেছেন তা সম্পূর্ণ মনগড়া ও বানোয়াট।

তিনি আরও বলেন, গত ২৬ জুলাই প্রকাশ্য দিবালোকে আমার স্বামীকে মারার পর থেকেই আমার স্বামীকে মারার বিচারের দাবিতে সারাদেশে মানববন্ধনসহ নানামুখী কর্মসূচি হয়। ওই ঘটনায় ভিডিও প্রকাশিত হলে আমার স্বামীকে বাঁচানোর জন্য আমি যে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অস্ত্রের মুখে প্রতিবাদ করেছি, সেই ভিডিও দেখে দেশের মানুষ আমার সাহসের প্রশংসা করেছে। কিন্তু প্রভাবশালী ও বিত্তবানদের অব্যাহত চাপ এবং প্ররোচনায় আমার সাহসের স্বীকৃতি না দিয়ে উল্টো আমাকেই ওই মারার মামলায় গ্রেফতারের জন্য সংবাদ সম্মেলন এবং মানববন্ধন করা হচ্ছে। কিন্তু মামলার এজাহারে আমার নাম নেই এবং আমি ওই মামলার এক নম্বর সাক্ষী।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মিন্নি বলেন, আমি আমার স্বামী রিফাত শরীফতে ছাড়া কখনও একা একা কলেজে যেতাম না। ঘটনার দিন সকালেও আমি আমার স্বামীর সঙ্গে কলেজে যাই। কৌশলে আমার স্বামী আমাকে নিয়ে ঘুরতে বের হওয়ার কথা বলে কলেজ থেকে বাইরে নিয়ে আসে। কিন্তু আমি কলেজ থেকে বের হয়ে বুঝতে পেরে আমার স্বামীর সঙ্গে ঘুরতে না গিয়ে কলেজে কাজ শেষ না হওয়ায় আমি কলেজের ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করি। এসময় আমার স্বামী আমার গতিরোধ করতে চাইলেও আমি তা উপেক্ষা করে কলেজে প্রবেশ করি। এরপরই হামলাকারীরা আমার স্বামীকে মারতে মারতে কলেজ থেকে বাইরে নিয়ে যায়। এরপর তাকে কুপিয়ে যখম করে।

উৎসঃ জাগো নিউজ ২৪

আরও পড়ুনঃ দেশের বিচার ব্যাবস্থা ধ্বংস করে এখন নিজেই ন্যায়বিচার খুঁজছেন সেই সিনহা!


সরকারের নির্দেশে নীতি নৈতিকতাকে বিসর্জন দিয়ে, সাক্ষ্য প্রমাণ ছাড়াই সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে বিচারের নামে প্রহসনন করে দেশের শীর্ষ রাজনৈতিক নেতাদেরকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করেছিলেন সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা। সেই বিচারপতি সিনহা নিজেই এখন ন্যায়বিচার চেয়ে আকুতি-মিনতি করছেন।

সম্প্রতি ফার্মার্স ব্যাংকের ৪ কোটি পাচারের অভিযোগে সাবেক প্রধানমন্ত্রী সুরেন্দ্র কুমার সিনহার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। একই সঙ্গে অভিযোগ তদন্ত শুরু করার ঘোষণা দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক। এ মামলা দায়েরের পরই আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বেনার নিউজকে একটি সাক্ষাৎকার দিয়েছেন বিচারপতি সিনহা।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমকে সিনহা বলেছেন, প্রধান বিচারপতি থাকতেই ন্যায় বিচার পাইনি। এখন কিভাবে আশা করি! তিনি এও বলেছেন, বাংলাদেশে ন্যায় বিচার আশা করা যায় না!

এখন প্রশ্ন হলো-প্রধান বিচারপতি থাকাকালীন সুরেন্দ্র কুমার সিনহা নিজে কয়টি ন্যায়বিচার করেছিলেন? কথিত যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে জামায়াতের শীর্ষ নেতা ও বিএনপির সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে দেয়া ফাঁসির আদেশগুলো কি সঠিক ছিল? এসকে সিনহা কি তখন সাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে এসব রায় বহাল রেখেছিলেন? মোটেও না। বরং তিনি নিজেই ট্রাইব্যুনালের বিচারপতিদেরকে নির্দেশ দিয়েছিলেন কয়টা ফাঁসির রায় দিয়ে দেন।

সরকারের কথিত ট্রাইব্যুনালের সবচেয়ে বড় কেলেংকারি ছিল স্কাইপির কথোপকথন ফাঁস। স্কাইপে সিনহা বাবু সেদিন ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান নিজামুল হক নাসিমকে বলেছিলেন, ৩টা রায় দিয়া লন। আপনাকে এখানে (আপিল বিভাগে) নিয়া আসি!

সিনহা বাবু আজ ন্যায়বিচার খুঁজছেন। সেদিন ৩টা ফাঁসির রায় দেয়ার নির্দেশ দেয়া কি ন্যায়বিচার ছিল?

দেখা গেছে, আবদুল কাদের মোল্লার মামলায় প্রত্যক্ষদর্শী স্বাক্ষী হিসাবে সরকার হাজির করেছিল কথিত মোমেনা বেগমকে। এই মোমেনা বেগম ৩ জায়গায় একই ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন ৩ রকমে। মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরকে বলেছেন, ঘটনার সময় তিনি শ্বশুর বাড়িতে ছিলেন। পরবর্তীতে মানুষের কাছে শুনেছেন। এরপর তিনি বলেছেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত কর্মকর্তার কাছে। এখানে তিনি বলেছেন, তাঁর বয়ষ ১২-১৩ ছিল। ঘটনার সময় ছোটবোনকে নিয়ে খাটের নিচে ট্রাঙ্কের পেছনে লুকিয়ে ছিলেন। তবে আবদুল কাদের মোল্লাকে দেখেছেন এমন কথা বলেননি। বলেছেন মানুষের কাছে শুনেছেন তিনি। তৃতীয়বার তাঁকে দিয়ে বলানো হয়েছে ট্রাইব্যুনলের ক্যামেরা ট্রায়ালে। প্রশ্ন হচ্ছে, খাটের নিচে ট্রাঙ্কের পেছনে লুকিয়ে থাকা ১২-১৩ বছরের একজন কিশোরী ৪০ বছর আগে দেখা চেহারা কিভাবে চিহ্নিত করলেন? ট্রাঙ্কের পেছনে লুকিয়ে থাকা ব্যক্তি কিভাবে দেখলেন! এর মধ্যে তার কোন বক্তব্যটি সত্য? মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘরকে দেয়া বক্তব্য? তদন্ত কর্মকর্তাকে দেয়া বক্তব্য ? নাকি ট্রাইব্যুনালে স্বাক্ষ্য দেয়ার সময় দেয়া বক্তব্য? এক ব্যক্তির একই ঘটনায় ৩টি বক্তব্য থেকে একটাকে সত্য হিসাবে ধরে নেয়ার বিচারের মাপকাঠি কি ছিল? এই মোমেনার বিতর্কিত বক্তব্যের স্বাক্ষ্য থেকে জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ও বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী আব্দুল কাদের মোল্লাকে ফাঁসির নামে হত্যার রায় দিয়েছিলেন সিনহা বাবু! এটা কি ন্যায় বিচার হয়েছিল?

এসকে সিনহা মীর কাসেম আলীর আপিলের রায়ের আগে বলেছিলেন, ফাঁসি দেয়ার মতো পর্যাপ্ত সাক্ষ্য প্রমাণ রাষ্ট্রপক্ষ উপস্থিত করতে পারেনি। তারপরও আপনি মীর কাসেম আলীর ফাঁসির রায় বহাল রেখে ছিলেন। এটা কি ন্যায়বিচার ছিল?

ঠিক একইভাবে জামায়াতের অন্যান্য শীর্ষনেতাদের ক্ষেত্রে সিনহা বাবু সরকারের নির্দেশে ফরমায়েশি রায় দিয়েছিলেন।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমকে সিনহা বলেছেন, বাংলাদেশে এখন ন্যায়চিবচার আশা করা যায় না।

সিনহার এমন মন্তব্যে সাধারন মানুষ বলছেন, এদেশে একদিন ন্যায়বিচার ছিল। আপনি যেদিন থেকে প্রধান বিচারপতির চেয়ারে বসেছিলেন, সেদিন থেকেই বাংলাদেশের ন্যায়বিচারের পরিসমাপ্তি ঘটে। সেদিন থেকেই এদেশের বিচার ব্যবস্থা ধ্বংস হতে শুরু হয়। আর বিচার ব্যবস্থাকে ধ্বংসের আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন আপনি নিজেই। আর আজ বলছেন, বাংলাদেশে ন্যায়বিচার আশা করা যায় না।

উৎসঃ অ্যানালাইসিস বিডি

আরও পড়ুনঃ আওয়ামীলীগ নেতাকর্মী ও সরকারি কর্মকর্তাদের দুর্নীতি-লুটপাটের কথা স্বীকার করলেন শেখ হাসিনা!


বিগত ১০ বছর ধরে কথিত বায়ুবীয় উন্নয়নের নামে সারাদেশে শত শত প্রকল্প উদ্বোধন করে যে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও সরকারি কর্মকর্তারা লুটপাট করতেছে এনিয়ে প্রায় দিনই গণমাধ্যমগুলোতে সংবাদ প্রকাশ হচ্ছে। শুধু বড় বড় প্রকল্পই নয়, টিআর-কাবিখা থেকে শুরু করে প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় দেয়া গরীবের ত্রাণের টাকাও লুটে নিচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা।

খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, এক সময় আওয়ামী লীগের যেসব নেতাকর্মী ঠিক মতো তিন বেলা খেতো পেত না ১০ বছরের ব্যবধানে তারা এখন শত কোটি টাকার মালিক। বড় বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের নিয়ন্ত্রণে।

যুবলীগের একনেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, যুবলীগ নেতা ইসমাইল হোসেন সম্রাট, নুর নবী চৌধুরী শাওন, আ.লীগ নেতা শাহে আলম মুরাদ, মাহবুব উল আলম হানিফ, বাহাউদ্দিন নাসিম, মোফাজ্জল চৌধুরী মায়া, এ কে এম রহমতুল্লাহ, মো. নাসিমসহ যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষকলীগ ও ছাত্রলীগ নেতারা এখন সবাই শত থেকে হাজার কোটি টাকার মালিক।

তারপর সুইচ ব্যাংকের দেয়া তথ্য মতে, প্রতিবছরই বাংলাদেশ থেকে বিদেশে টাকা পাচারের পরিমাণ বাড়ছে। অনুসন্ধান বলছে, এসব টাকা পাচারের সাথে যারা জড়িত তারা অধিকাংশই ক্ষমতাসীন দলের নেতা ও ব্যবসায়ী। এমনকি, দেশের সর্বোচ্চ আদালত পর্যন্ত দুর্নীতি, লুটপাট ও টাকা পাচার নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। তারপরেও শেখ হাসিনা বিভিন্ন সময় দুর্নীতি-লুটপাটের দায় বিগত বিএনপি-জামায়াত সরকারের ওপর চাপানোর চেষ্টা করে থাকেন।

তবে, দেশের কথিত উন্নয়ন প্রকল্পে দুর্নীতি-লুটপাট এখন এমন একপর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে যার কারনে শেখ হাসিনা নিজেও এখন বিরক্ত। এমনকি, এতদিন দুর্নীতির কথা অস্বীকার করলেও শেখ হাসিনা এখন নিজেও স্বীকার করেছেন যে দুর্নীতি হচ্ছে।

শনিবার গণভবনে বিভিন্ন মন্ত্রণায়গুলোর বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রকাশ্যেই বলেছেন-দুর্নীতি যেন উন্নয়নগুলোকে খেয়ে না ফেলে। দুর্নীতির কারণে যে উন্নয়ন কাজগুলো ব্যাহত না হয়। দুর্নীতির কারণে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন ব্যাহত হলেও সেটা হবে দুঃখজনক।

তাই সচেতন মহল বলছে, শেখ হাসিনার এই বক্তব্যের মাধ্যমে প্রমাণিত হয় যে, কথিত উন্নয়নের নামে চালু করা প্রকল্পগুলোতে ব্যাপকভাবে দুর্নীতি লুটপাট হচ্ছে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, এসব দুর্নীতি লুটপাট কারা করছে? প্রকল্প বাস্তবায়নের দায়িত্ব তো আর বিএনপি-জামায়াত নেতাকর্মীদের হাতে নয়। সবগুলোর প্রকল্পের দায়িত্বে রয়েছে সরকারের এমপি-মন্ত্রীরা। সুতরাং দুর্নীতি-লুটপাট তারাই করছে।

উৎসঃ অ্যানালাইসিস বিডি

আরও পড়ুনঃ আড়াই হাজার কোটি টাকার প্রকল্পঃ উদ্বোধনের আগেই ধসে পড়লো চট্টগ্রাম শহর রক্ষা বাঁধ


পতেঙ্গা সমুদ্রসৈকতের পাশ ঘেঁষে নির্মিতব্য চট্টগ্রাম শহর রক্ষা বাঁধ তথা আউটার রিং রোড এখনো উদ্বোধনই হয়নি। অথচ সড়কটির বেশ কয়েকটি অংশ ধসে গেছে। শনিবার (১৩ জুলাই) এই ঘটনা ঘটে।

সড়কটির নির্মাণ দায়িত্বে থাকা চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) বলছে, টানা বৃষ্টিতে সাগরের পানি বেড়ে যাওয়ায় সড়কটির কিছু অংশ দেবে গেছে।

স্থানীয়রা জানায়, পতেঙ্গা সমুদ্রসৈকতের পাশ ঘেঁষে নির্মিতব্য শহর রক্ষা বাঁধ তথা আউটার রিং রোডে ব্লক সরে মাটি তলিয়ে যাওয়ায় সিসি ঢালাইয়ে তৈরি ওয়াকওয়েটি ধসে পড়েছে। টানা বৃষ্টির কারণে আরও বড় ধরনের ধসের আশঙ্কা প্রকাশ করছেন স্থানীয়রা।

প্রকল্প পরিচালক ও চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের প্রধান প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস বলেন, সাগরে পানি বেড়ে যাওয়ায় ঢেউয়ের কারণে ব্লক সরে বিশাল অংশ দেবে গেছে।

দেখা যায়, বাঁধের ব্লক সরে মাটি তলিয়ে যাওয়া সিসি ঢালাইয়ে তৈরি ওয়াকওয়েটি ধসে পড়েছে। এ অবস্থায় ওই অংশ ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। হঠাৎ ওয়াকওয়েটির বিশাল অংশ ধসে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা আশরাফুল ইসলাম বলেন, এখনো ওয়াকওয়ে তৈরির কাজ শেষ হয়নি। এরমধ্যে সেটি ধেবে পড়েছে।

চাপ বেশি পড়ে বলে এটি রড দিয়ে কংক্রিট (আরসিসি) ঢালাই করার দরকার ছিল। কিন্তু ওয়াকয়েটি সিসি ঢালাই দিয়ে করা হয়েছে।

নগর পরিকল্পনাবিদ প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন মজুমদার বলেন, সাগরের পাশে কাজ করার সময় বিবেচনায় রাখতে হয় মাটি সরে যাবে। সেটি বিবেচনায় না রেখে এ ধরনের কাজ করা মানে অর্থ অপচয়।

সাধারণত এ ধরনের কাজগুলো পাইলিংয়ের ওপর হয়। এ ছাড়া অতিরিক্ত ভরবহন করার প্রয়োজন হলে সেখানে প্রি-কাস্ট কংক্রিট পাইল ব্যবহার করা হয়।

তিনি আরও বলেন, রিটেইনিং ওয়াল দিয়ে মাটি না সরার জন্য আলাদা কাস্টিং করতে হয়। ধসে পড়া ওয়াকওয়েটিতে হয়তো এ ধরনের কাজ করা হয়নি।

প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস বলেন, ওয়াকওয়ের পাশে রিটেইনিং ওয়াল ছিল। সবকিছু বিবেচনা রেখে কাজ হয়েছে।

কাজটা সম্পূর্ণ না হওয়াতে অনেক জায়গায় ব্লক বসানো হয়নি। ফলে সেটি ধসে পড়েছে। যেসব অংশে কাজ সম্পূর্ণ হয়েছে, সেখানে ধসে পড়ার আশঙ্কা নেই।

তিনি আরও বলেন, ঢেউয়ের কারণে মাটি সরে যাওয়ায় ওয়াকওয়ে ধসে পড়েছে। সেগুলো সরানো হচ্ছে। পাশাপাশি ধসে পড়া স্থানগুলো পুন:নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। এ ছাড়া ধসের কারণ জানতে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে।’

উল্লেখ্য, জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা (জাইকা) ২০০৫ সাল থেকে পতেঙ্গা হতে ফৌজদারহাট পর্যন্ত বেড়িবাঁধ কাম আউটার রিং রোড নির্মাণের জন্য সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ শুরু হয়। যাচাই শেষে ২০০৭ সালে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে চুক্তি করে জাইকা।

২০১৬ সালের জুলাইয়ে চার লেনের এ সড়কটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়। আড়াই হাজার কোটি টাকার এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ)।

উপকূলীয় বাঁধ কাম আউটার রিং রোড নির্মাণ নামে এ প্রকল্পের আওতায় ১৭ দশমিক ৩৫ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ হবে। এর মধ্যে ১৫ দশমিক ২০ কিলোমিটার মূল ও ২ দশমিক ১৫ কিলোমিটার সংযোগ সড়ক। এ ছাড়া প্রায় সাড়ে ৫ কিলোমিটার ওয়াকওয়ে তৈরি করা হবে।

শুরুতে এ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয় ৮৬৫ কোটি ২৮ লাখ ৬০ হাজার টাকা। দুই বার সংশোধনের পর বর্তমানে ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ৪২৬ কোটি ১৪ লাখ ৯৫ হাজার টাকা। এর মধ্যে বাংলাদেশ সরকার ১ হাজার ৭২০ কোটি ১১ লাখ ৮০ হাজার ও জাইকার সহায়তা ৭০৬ কোটি টাকা।

২০১৯ সালে এ প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা।ইতোমধ্যে প্রকল্পের বেশিরভাগ কাজ শেষ হয়েছে।

উৎসঃ পূর্বপশ্চিমবিডি

আরও পড়ুনঃ মক্কা-মদিনায় হাজিদের বাড়িভাড়া নিয়ে হজ অফিসের দুর্নীতির ফোনালাপ ফাঁস! (অডিও সহ)


পবিত্র মক্কা ও মদিনায় কমিশন ছাড়া কোনো দিনও বাড়িভাড়া নেয় না হজ অফিস। এমন অভিযোগ করেছেন সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসিহ। এ বছরও কমিশন নিয়ে সিন্ডিকেট করে বাড়িভাড়া করা হয়েছে বলে তার অভিযোগ।

জাগো নিউজের এ প্রতিবেদকের হাতে আসা একটি অডিও আলাপনে অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। আলাপনে শোনা যায়, রাষ্ট্রদূত মোবাইল/টেলিফোনে মূসার (সৌদি আরবে বাংলাদেশ কমিউনিটির একজন) কাছে এবার সৌদি আরবে হাজিদের বাড়িভাড়া কে করেছে, এবার ব্যবসাটা কে পেল- তা জানতে চাইছেন।

বিশেষ করে মদিনায় ‘আল আনসারির’ হোটেলের ব্যবসাটা কে পেল- তা তিনি জানতে চান মূসার কাছে। এ সময় মূসা বলেন, এবার হজ অফিস বাড়ির মালিকের কাছ থেকে ভাড়া নিয়েছে। এ কথা শুনে গোলাম মসিহ বলেন, বাড়ি তো মালিকের কাছ থেকেই ভাড়া নেয়, জানতে চাচ্ছি মাঝখানের লোকগুলো কে, কারা।

ভিডিওঃ  ‘মক্কা-মদিনায় হাজিদের বাড়িভাড়া নিয়ে হজ অফিসের দুর্নীতির ফোনালাপ অডিও ফাঁস! ’

[সংবাদের ভিডিওটি দেখতে প্লে বাটনে ক্লিক করুন]

এ কথার পরিপ্রেক্ষিতে মূসা বলেন, এবার মাঝখানে কেউ ছিল না।

এ কথা শুনে রাষ্ট্রদূত গোলাম মসিহ বলেন, ‘শোন মূসা, এ কথা আমাকে বলো না, হজ অফিসাররা এত ফেরেশতা নয়, তোমরা এবার সিন্ডিকেট কইরা বাড়িভাড়া নিছ, আমি তো খবর পাইয়া যামু। কোন জমানায় ডাইরেক্ট ব্যবসা হইছে! তুমি আমারে কি শিখাইতাছ?’

আলাপনে গোলাম মসিহ আরও বলেন, ‘গতবার পর্যন্ত খালি কমপ্লেইন করছ, আমাকে বাড়িভাড়া নেয় না। এবার তোমরা কেউ বাড়ির ব্যবসা কর নাই? সবাই ফেরেশতা হইয়া গেলা। কোন জমানায় ডাইরেক্ট হইছে? আওয়ামী লীগের নাম ভাঙাইয়া সবাই ধান্ধাবাজি করে।’ এ কথা বলে তিনি লাইন কেটে দেন।

এরপর মূসা কলব্যাক করে আবার তাকে বুঝানোর চেষ্টা করেন যে, বাড়িভাড়ার ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না। এ সময় গোলাম মসিহ বলেন, ‘তুমি বুঝবা না কেন? ২৮ বছর মদিনায় আছ। কোনো দিন কমিশন ছাড়া বাড়িভাড়া নেয় হজ অফিস, আমারে বলো? কোনো দিন কমিশন ছাড়া নিছে। আজকা তোমরা সবাই ফেরেশতা হইয়া গেছ।’

তিনি আবার বলেন, ‘আমার কাছে রিপোর্ট আছে, সিন্ডিকেট কইরা বাড়িভাড়া নেয়া হইছে। না হলে আল আনসারির বাড়ি এমনিতেই ভাড়া অইয়া গেছে। তুমি কি মনে করো খবর পামু না? হজ অফিসারের গলা টিইপ্যা বাইর কইরা ফালামু।’ এভাবে চলতে থাকে তাদের কথোপকথন।

হজের বাড়িভাড়া নিয়ে কোনো দুর্নীতি হয়েছে কি-না, এ ফোনালাপের সূত্র ধরে জানতে চাইলে রাষ্ট্রদূত গোলাম মসিহ জাগো নিউজকে বলেন, ‘হজের সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করে ধর্ম মন্ত্রণালয়। একটা কমিটি হয়। তারা বাড়িভাড়ার বিষয়গুলো ঠিক করে। রাষ্ট্রদূত হিসেবে আমি জিজ্ঞেস করতে পারি, কে বাড়িভাড়া নিল বা কে বাড়ি ভাড়া দিচ্ছে? আমি সেটাই জানতে চেয়েছি। তবে যার কাছে জানতে চেয়েছি তিনি নিজেও কিছু জানেন না।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটির সদস্য বা বাড়িভাড়ার সঙ্গে যারা সরাসরি জড়িত, তারা বিষয়টি বলতে পারবেন- যোগ করেন তিনি।

উৎসঃ জাগোনিউজ

আরও পড়ুনঃ সাগরে বাংলাদেশী জেলেদের ইলিশ ধরা বন্ধ, দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ভারতীয় জেলেরা (ভিডিও সহ)

বঙ্গোপসাগরে দেশীয় জেলেরা মাছ ধরতে না পারলেও ভারতীয় জেলেরা ট্রলিং ট্রলার নিয়ে সাগরের বয়া এলাকা থেকে পূর্বে কুয়াকাটা উপকুল পর্যন্ত দাপিয়ে মাছ ধরে নিয়ে যাচ্ছে। গত ৭ জুলাই বঙ্গোপসাগরে কোষ্টগার্ডের অভিযানে ৩২ ফিসিং বোট সহ ৫ শতাধিক ভারতীয় জেলে আটক হয়েছে।

শরণখোলা ফিসিং ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি আবুল হোসেন বলেন, আমাদের ছোট ছোট ইঞ্জিন চালিত নৌকা ট্রলারের জেলেরা সুন্দরবনের দুবলারচর এলাকায় মাছ ধরার সময় গত কয়েকদিনে সাগরের বয়া এলাকায় অসংখ্য ভারতীয় ফিসিং ট্রলারের জেলেদের মাছ ধরতে দেখেছেন। আবহাওয়া খারাপ হলে ভারতীয় জেলেরা হিরণপয়েন্টের অদুরে ছোট খালে আশ্রয় নিয়ে থাকে বলে আবুল হোসেন জানান।

ভিডিওঃ  ‘বাংলাদেশী জেলেদের মাছ ধরা বন্ধ হলেও বাংলাদেশের সীমানায় ভারতের ইলিশ উৎসব!’

[সংবাদের ভিডিওটি দেখতে প্লে বাটনে ক্লিক করুন]

বাংলাদেশ ফিসিং ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি মোস্তফা চৌধুরী জানান, সাগরে বাংলাদেশ জলসীমায় অবৈধভাবে মাছ শিকার করা ভারতীয় জেলেদের নিত্যদিনের ঘটনা। ৬৫ দিনের অবরোধে আমাদের দেশীয় জেলেরা মাছ ধরতে না পারলেও ভারতীয়রা ঠিকই ধরে নিয়ে যাচ্ছে । যার জলজ্যান্ত প্রমাণ গত ৭ জুলাই পায়রা সমুদ্র বন্দরের অদুরে সাগরে মাছ ধরার সময় কোষ্টগার্ড ৩২ ফিসিং বোট সহ ৫ শতাধিক ভারতীয় জেলে আটকের ঘটনা। ঝড়ের কবলে পড়ে তারা এসেছে ভারতীয় জেলেদের এ দাবী তিনি নাকচ করে বলেন, তাই যদি হয় তা হলে তাদের নিদেন পক্ষে হিরণপয়েন্ট দুবলারচর আলোরকোল পর্যন্ত আসার কথা।

ফিসিংবোট এফবি খাইরুল ইসলামের মিস্ত্রি শরণখোলা উপজেলার পূর্ব খোন্তাকাটা গ্রামের মোঃ রফিক জানান, বরাবরের মত ভারতীয় ট্রলিং ট্রলার বঙ্গোপসাগরের বয়া এলাকা থেকে পূর্বে কুয়াকাটা উপকুল, সোনারচর, ঢালচর পর্যন্ত সাগরে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে তারা অবাধে ইলিশসহ বিভিন্ন প্রজাতির ছোট বড় মাছ শিকার করে নিয়ে যাচ্ছে। এমনকি তিনি গত ২২ জুন সাগরের সোনারচর এলাকায় শতাধিক ভারতীয় ফিসিং বোটকে মাছ ধরতে দেখেছেন। ওই সময় তিনি তার বোটের মবিল ফুরিয়ে যাওয়ায় ভারতীয় একটি বোট থেকে কয়েক লিটার মবিল চেয়ে নেন বলে রফিক মিস্ত্রি জানান।

ভিডিওঃ  ‘বাংলাদেশী জেলেদের মাছ ধরা বন্ধ হলেও বাংলাদেশের সীমানায় ভারতের ইলিশ উৎসব!’

[সংবাদের ভিডিওটি দেখতে প্লে বাটনে ক্লিক করুন]

মৎস্য ও প্রানী সম্পদ মন্ত্রণালয় ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত সাগরে সকল ধরনের মাছ ধরা বন্ধের প্রজ্ঞাপন জারি করায় শরণখোলাসহ উপকুলীয় এলাকার জেলে পল্লীগুলিতে হতাশার পাশাপাশি ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

অপরদিকে শরণখোলা, পাথরঘাটাসহ অন্যান্য এলাকার অনেক ফিসিংবোট বঙ্গোপসাগরে গিয়ে মাছ শিকার করে শরণখোলা ও পাথরঘাটা মৎস্যঘাটে ফিরে এসে রাতের মধ্যেই মাছ ট্রাক বোঝাই করে খুলনা ও বরিশালের মোকামে চালান করছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দেখেও না দেখার ভান করে চলেছেন। বিশেষ করে শরণখোলার মজিবর তালুকদার, বেলায়েত খান, ও আবুল হোসেনের ফিসিং বোট নিষেধাজ্ঞার মধ্যেও চোরাইভাবে সাগরে মাছ ধরছে। নিষেধাজ্ঞার মধ্যে সাগরে মাছ ধরতে গিয়ে গত ৬ জুলাই রাঙ্গাবালীর কাছে সাগরে ৫/৬ টি ফিসিং বোট ঝড়ের কবলে পড়ে ডুবে গেছে বলে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে শরণখোলা উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা বিনয় কুমার রায় বলেন, নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাছ ধরার খবর তার জানা নেই খোঁজ নিয়ে দেখবেন।

উৎসঃ নয়াদিগন্ত

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here