নির্বাচনের খবরের জের ধরে খুলনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাংবাদিক গ্রেপ্তারঃ বিবিসির প্রতিবেদন

0
547

খুলনা: একটি আসনে সাড়ে ২২ হাজার ভোট বেশি পড়েছে, এমন খবর প্রকাশের কারণে বটিয়াঘাটা থানায় দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

খুলনায় একটি আসনে নির্বাচনের ভুল ফলাফল প্রকাশের অভিযোগে ঢাকা ট্রিবিউন নামের একটি পত্রিকার সাংবাদিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। খবর বিবিসির।

বটিয়াঘাটা থানার পুলিশ জানিয়েছে, ঢাকা ট্রিবিউনের প্রতিনিধি ও মানবজমিন পত্রিকার প্রতিনিধির বিরুদ্ধে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে সোমবার একটি মামলা করেন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) দেবাশীষ চৌধুরী।

সেই মামলায় মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা ট্রিবিউনের ওই সাংবাদিককে গ্রেপ্তার করা হয়। বাকি একজনকে এখনো আটক করা হয় নি, পুলিশ বলছে।

থানার অফিসার ইন চার্জ (ওসি) মাহবুবুর রহমান জানান, ‘খুলনা-১ আসনে ভোট ভোটারের চেয়ে ২২,৪১৯ ভোট বেশি পড়েছে উল্লেখ করে তারা সংবাদ প্রকাশ করেছেন। তাই ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে মামলার পর একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

স্থানীয় সাংবাদিকরা জানান, নির্বাচনের রাতে যখন ফলাফল প্রকাশ করা হচ্ছিল, তখন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার মৌখিক তথ্যের ভিত্তিতে ওই সাংবাদিকরা খবরটি প্রকাশ করেন। সে সময়েই এই ভুলের বিষয়টি জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের কাছেও তুলে ধরা হয়েছিল।

তবে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মোঃ মোহাম্মদ হেলাল হোসেন বিবিসি বাংলাকে জানান, দাকোপ উপজেলার ভোটের ফল নিয়ে কয়েকজন সাংবাদিক বলেছিলেন যে, ‘আমি নাকি প্রথমে ২৯ হাজার ভোট বলেছি, পরে সেটা বলেছি ২৮ হাজার। কিন্তু বটিয়াঘাটার ভোটের ভুল তথ্য প্রকাশ করা বা সেটি সংশোধন করে দেয়ার মতো কোন ঘটনা ঘটেনি।’

তিনি ওই সাংবাদিকদের কাছে প্রমাণ দেখতে চাইলেও, তারা কোন প্রমাণ দেখাতে পারেননি বলে জানান।

এই খবরটি ৩১শে ডিসেম্বরের মানবজমিন পত্রিকায় ছাপা হয়েছে। কাগজটির অনলাইন ভার্সন ও ঢাকা ট্রিবিউনের অনলাইনে প্রথমে ছাপা হলেও পরে সেটি আর দেখা যায়নি।

মানবজমিন পত্রিকার প্রধান প্রতিবেদক লুৎফর রহমান জানান, জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতেই তাদের কাগজে খবরটি প্রকাশিত হয়েছে।

তিনি বলছেন, ‘পরে ভোররাতের দিকে সেটি আবার সংশোধন করে জানানো হয়। ততক্ষণে আমাদের পেপারে তো ছাপা হয়ে গেছে। তবে পরদিন সেই সংশোধিত খবরটিও ছাপানো হয়েছে।’

৩০শে ডিসেম্বরের সংসদ নির্বাচনে নির্বাচনে ২৫৯টি আসনে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা। তবে ভোটে অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগ তুলে ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছে বিএনপি ও ঐক্যজোট।

তারা পুনরায় নির্বাচনেরও দাবি জানিয়েছে, যদিও সেই দাবি নাকচ করে দেয়া হয়েছে নির্বাচন কমিশন ও সরকারের পক্ষ থেকে।

সুত্রঃ ‌খবর বিবিসির

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here