২৮ অক্টোবর বাংলাদেশের জন্য একটি কালো দিন : খন্দকার মাহবুব হোসেন

0
1008
বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছেন, ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবরের ঘটনার মাধ্যমে বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে হত্যা করে ‘এক-এগার’ সৃষ্টির নীলনকশা করা হয়েছিল বর্তমান অবৈধ সরকারকে ক্ষমতায় আনার জন্য। তাই এই ২৮ অক্টোবর বাংলাদেশের জন্য একটি কালো দিন।
 
আজ শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে ‘রক্তাক্ত ২৮ অক্টেবর ও বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থান’ শীর্ষক আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।
আলোচনা সভার আয়োজন করে সুশীল ফোরাম নামের একটি সংগঠন।
 
সংগঠনের সভাপতি মো. জাহিদের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিএনপির স্বদেশ জাগরণ পরিষদের সভাপতি মো. কামরুজ্জামান সেলিম, বিএনপির নির্বাহী পরিষদ সদস্য নজরুল ইসলাম মোল্লা, জাগপা নেতা আসাদুর রহমান খান, বিএনপি নেতা মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার রফিকুল ইসলাম রিপন প্রমূখ।
 
২০০৬ সালের ২৮ জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে এবং পল্টন ময়দানে আওয়ামী লীগের লোকজন লগি বৈঠা দিয়ে মানুষ হত্যা করে লাশের ওপর নৃত্য করেছিল। এর পথ ধরে ফখরুদ্দিন-মঈন উদ্দিন শাসিত সরকার ক্ষমতায় আসে।
 
খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, এই ২৮ অক্টোবর গণতন্ত্রকে ধবংস করার নীলনকশা করা হয়েছিল। পরে এক এগারর সরকার গঠন এবং বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসে। এরপর ১০ বছর কেটে গেছে দেশ অগণতান্ত্রিক সরকারের হাতে। এর থেকে মুক্তি প্রয়োজন।
 
তিনি উল্লেখ করেন, গণতন্ত্রের মুক্তির জন্য অনেক সভা সেমিনার হয়েছে। আসলে সভা সেমিনার করে গণতন্ত্রের মুক্তি মিলবে না। গণতন্ত্রকে মুক্ত করার একমাত্র পথ ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাস্তায় নামা।
বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন সহায়ক সরকারের রূপরেখা দিবেন। সেই অনুযায়ী নির্বাচন হতে হবে। না হলে মানুষ রাজপথে নামতে বাধ্য হবে। এমন অবস্থার সৃষ্টি হবে জন জোয়ারে আওয়ামী লীগ সরকার বিলীন হয়ে যাবে।
 
প্রধান নির্বাচন কমিশনারের উদ্দেশে তিনি বলেন, আইন মানুষের জন্য। আপনারার দয়া করে প্রহসের নির্বাচন করবেন না। যদি মনে করেন যে সঠিক নির্বাচন করতে আপনারা পারবেন না তাহলে পদত্যাগ করুন। কারণ মানুষ তার ভোটের অধিকার চায়। মানুষের ধৈর্য্যের সীমা শেষ হয়ে গেছে।
 
সভাপতির বক্তব্যে মো. জাহিদ বলেন, ২৮ অক্টোবর লগিবৈঠা দিয়ে যে তাণ্ডব তৈরি করা হয়েছিল তা মানুষ ভুলে যায়নি। দেশের মানুষ আজ আতংকের মধ্যে। আমরা এই অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে মুক্তি চাই।
 
-নয়াদিগন্ত

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here